১০ ডিসেম্বর ঢাকায় বিএনপির সমাবেশস্থল নিয়ে চলমান টানাপোড়েন কেটে যাবে বলে আশাবাদী আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন, যেটাই হোক, একটা সমঝোতায় আসবে।

মঙ্গলবার সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে ঢাকায় নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার প্রণয় ভার্মার সঙ্গে বৈঠকের পর সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ কথা জানান সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

কাদের বলেন, বাংলাদেশের রাজনীতির আকাশে মেঘ ঘনীভূত হয়, আবার চট করে চলে যায়। আমি আশাবাদী।

১০ ডিসেম্বর নয়াপল্টনের দলীয় কার্যালয়ের সামনে অথবা আরামবাগ, মতিঝিল এলাকায় বিভাগীয় গণসমাবেশ করতে চায় বিএনপি। কিন্তু ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপিকে সমাবেশের অনুমতি দিয়েছে।

ডিএমপি কমিশনার জানিয়েছেন, বিএনপি চাইলে পূর্বাচল অথবা টঙ্গীর ইজেতমা ময়দানে সমাবেশ করা যাবে। তবে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান, পূর্বাচল বা ইজতেমার মাঠে যেতে নারাজ বিএনপি।

আরামবাগে সমাবেশের অনুমতি দেওয়া হবে কিনা প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, যেটাই হোক, একটা সমঝোতায় আসবে। জনগণের আতঙ্কিত হওয়ার কারণ নেই।

তিনি আরও বলেন, দলের পক্ষ থেকে বলতে চাই, আওয়ামী লীগ সরকারে আছে, কেন দেশের অশান্তি চাইবে? তবে বিএনপি ঝাঁপিয়ে পড়লে আওয়ামী লীগ চুপ থাকবে না বলেও হুঁশিয়ার করে দেন ওবায়দুল কাদের।

নবনিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনারের সঙ্গে বৈঠকের বিষয়ে সেতুমন্ত্রী বলেন, ভারতীয় হাইকমিশনারের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ ছিল। বাংলাদেশ ও ভারতের সড়ক যোগাযোগ নিয়ে কিছু প্রকল্প রয়েছে। সেগুলোর অগ্রগতি, তিস্তার নদীর পানি বণ্টন নিয়ে কথা হয়েছে।