চট্টগ্রাম যুগ্ম মহানগর দায়রা জজ আদালত থেকে জোবায়ের মোহাম্মদ আওরঙ্গজেব নামে এক আইনজীবীর বিরুদ্ধে চেক ডিজঅনার মামলার নথি থেকে ২৭ কোটি ৯৭ লাখ ৮৮ হাজার ৭২ টাকার চেক সরানোর অভিযোগ উঠেছে। 

এ ঘটনায় মহানগর যুগ্ম মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. জহির উদ্দিন চট্টগ্রাম মহানগর দায়রা জজ শেখ আশফাকুর রহমানের কাছে লিখিত অভিযোগ দেন। তা আমলে নিয়ে ব্যবস্থা নিতে আইনজীবী সমিতির কাছে অভিযোগটি পাঠিয়ে দিয়েছেন আদালত।

চট্টগ্রাম মহানগর দায়রা জজ আদালতের স্টেনোগ্রাফার দীপেন দাশগুপ্ত সমকালকে বলেন, ‘মহানগর দায়রা জজ আদালতে জোবায়ের মোহাম্মদ আওরঙ্গজেব নামে এক আইনজীবী নথি দেখার নামে চেক সরিয়ে ফেলার ঘটনায় ব্যবস্থা নিতে মহানগর যুগ্ম মহানগর দায়রা জজ আদালত থেকে অভিযোগ দেওয়া হয়। আজ সোমবার ১৩ সেপ্টেম্বর এ বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে জেলা আইনজীবী সমিতির অফিসে অভিযোগটি পাঠানো হয়েছে।’

আইনজীবী জোবায়ের মোহাম্মদ আওরঙ্গজেব বলেন, ‘ঘটনাটি ভুল বোঝাবুঝির কারণে হয়েছে। এটা পরে মীমাংসা হয়ে গেছে।’

জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক এএইচএম জিয়াউদ্দিন বলেন, ‘আদালত থেকে অভিযোগটি সমিতিতে এসেছে। এটি নিয়ে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে। কমিটি যে রিপোর্ট দিবে তার আলোকে যে জড়িত থাকবে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

আদালত সূত্রে জানা যায়, গত ৯ সেপ্টেম্বর বিকেলে চট্টগ্রাম যুগ্ম মহানগর দায়রা জজ আদালতে দায়রা-১৮৩৭/২০১৪ নথি দেখার জন্য নেন অ্যাডভোকেট আওরঙ্গজেব। 

ওই মামলার আইনজীবী না হয়েও তিনি নথি দেখার অনুরোধ করলে আদালতের অফিস সহায়ক নথিতে রক্ষিত সব কাগজপত্র সঠিক আছে যাচাই করে নথি দেন। নথি দেখার পর, রেকর্ড অফিস সহায়কের কাছে হস্তান্তর করলে, অফিস সহায়ক নথি যাচাই করে নথিতে রক্ষিত ২৭ কোটি ৯৭ লাখ ৮৮ হাজার ৭২ টাকার চেক নেই। 

অফিস সহায়ক এবং বেঞ্চ সহকারী আইনজীবীকে অনেক খোঁজাখুঁজির পরও না পেয়ে আদালতের বিচারককে অবহিত করেন। বিষয়টি আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদককে জ্ঞাত করে বেঞ্চ সহকারী আওরঙ্গজের চেম্বারে যান। পরে রাত ১০টায় নগরের হোটেল আগ্রাবাদ থেকে আদালতের বেঞ্চ সহকারী ফরিদ আওরঙ্গজেব থেকে উদ্ধার করেন।