প্রত্যয় ইন্টারন্যাশনাল নামের একটি সিঅ্যান্ডএফ প্রতিষ্ঠান জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সার্ভারে অনুপ্রবেশ করে পণ্যের ৯টি চালান খালাস করে নেয়। এই ঘটনা ফাঁস হলে এই প্রতিষ্ঠানটির অন্য দুটি চালান আটক করেন কাস্টমস কর্মকর্তারা। 

শনিবার সেই চালানের কায়িক পরীক্ষা করে ঘোষণা বহির্ভূত ৭৫ ধরনের পণ্য জব্ধ করেছে কাস্টমস। এর মধ্যে রয়েছে জায়নামাজ, কম্বল, খাদ্যপণ্য ও প্রসাধনী। এ ঘটনায় ১৭ লাখ টাকার রাজস্ব ফাঁকি দেওয়ার চেষ্টা করেছে প্রত্যয় ইন্টারন্যাশনাল।

কাস্টমস উপকমিশনার মো. শরফুদ্দীন মিঞা জানান, আটক চালানটি আমদানি হয় পাবনা রপ্তানি প্রক্রিয়াজাতকরণ এলাকার আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান এমজিএল কোম্পানি বাংলাদেশ লিমিটেডের নামে। শুল্কমুক্ত সুবিধায় কম্বলের কাপড় আমদানির ঘোষণা দিয়েছিল প্রতিষ্ঠানটি। সে জন্য ২১ হাজার ডলারের ঋণপত্র খোলা হয়। কিন্তু কায়িক পরীক্ষার পর পাওয়া গেছে অন্য পণ্য সামগ্রী।

জানা গেছে, সিঅ্যান্ডএফ প্রতিষ্ঠান প্রত্যয় ইন্টারন্যাশনাল দুজন রাজস্ব কর্মকর্তার পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে চট্টগ্রামের আগ্রাবাদের বন্দর থেকে ৯টি চালান খালাস করে নেয়। এ মাসের শুরুতে বিষয়টি নিশ্চিত হয় কাস্টমস কর্তৃপক্ষ। এরপর খালাসের অপেক্ষায় থাকা তাদের দুটি চালান আটকে দেওয়া হয়। আটক চালানটিতে কম্বলের কাপড় আমদানির ঘোষণা ছিল। তবে কনটেইনার খুলে ২৩৮টি প্যাকেটে পাওয়া গেছে ৭৫ ধরনের সামগ্রী। এর মধ্যে আছে নতুন ও পুরোনো ১৫৫১টি কম্বল, ২০০ কেজি ইলেকট্রনিক সামগ্রী, ৪৮৩টি জায়নামাজ, ১২০ কেজি প্রসাধনী, ৭ হাজার ৫৭০ কেজি পণ্য।