চট্টগ্রামের ঝাউতলায় ডেমু ট্রেনের সঙ্গে গাড়ির সংঘর্ষে নিহতের ঘটনায় দুটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। 

কারণ অনুসন্ধানে রেলওয়ে পূর্বাঞ্চল কর্তৃপক্ষ তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। এছাড়া রেলওয়ে পুলিশের গঠিত অন্য একটি তদন্ত কমিটি ইতোমধ্যে কাজ শুরু করেছে। 

রেলক্রসিং থেকে জব্দ করা বাসচালককে আসামি করে একটি মামলা করেছে পুলিশ। 

এ ঘটনায় আহত ছয়জনের অবস্থার কিছুটা উন্নতি হয়েছে বলে জানা গেছে। 

রোববার ঝাউতলা রেলক্রসিং এলাকায় জেব্রা ক্রসিং নতুন করে চুন দিয়ে মার্কিং করা হয়েছে।

রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের মহাব্যবস্থাপক মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের সহকারী পরিবহন কর্মকর্তা মো. মনিরুজ্জামানকে প্রধান করে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। সংক্ষিপ্ত সময়ের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

রেলওয়ে পুলিশের চট্টগ্রাম জেলার পুলিশ সুপার (এসপি) হাসান চৌধুরী বলেন, তদন্ত কমিটি কাজ শুরু করেছে। প্রতিবেদন পেলে সেই আলোকে পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

ট্রেন দুর্ঘটনার কারণ ও দায়ীদের বিষয়ে রেলওয়ে পুলিশের তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি কাজ শুরু করেছে। কমিটির প্রধান রেলওয়ে পুলিশের চট্টগ্রাম জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবদুল গফুর নেতৃত্ব দিচ্ছেন। কমিটির অন্য দুই সদস্যরা হলেন রেলওয়ে পুলিশের সহকারী পুলিশ সুপার (সদর) ও রেলওয়ে থানার ওসি।

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ২৬ ও ২৮ নম্বর ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন আহত ছয়জন জমির উদ্দিন (৪০), শহীদুল ইসলাম (৪০), জয়নাল (২৬), জোবায়দা (২০), আদনান (৭) ও মোহাম্মদ (১০)। দু'জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক থাকলেও বর্তমানে তাদের অবস্থা স্থিতিশীল বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

বাসচালকের বিরুদ্ধে মামলা 

ঝাউতলা রেলক্রসিং এলাকায় সংঘর্ষে তিনজন নিহতের ঘটনায় নিউ মার্কেট থেকে ভাটিয়ারী রুটে চলাচল করা ৭ নম্বর বাস (চট্ট-মেট্রো-জ-১১-১৬-২৩) চালককে অজ্ঞাতপরিচয় আসামি করে একটি মামলা করেছে পুলিশ। শনিবার রাত সাড়ে ১০টায় চট্টগ্রাম রেলওয়ে থানার পুলিশ বাদী হয়ে মামলাটি করে।

রেলওয়ে থানার ওসি নাজিম উদ্দিন বলেন, বাসচালকে অজ্ঞাত আসামি করে থানা পুলিশ বাদী হয়ে মামলা করেছে। বাসটি জব্দ করা হয়েছে। চালককে ধরতে অভিযান চলছে।