'স্পর্শ' দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীদের প্রকাশনী

১৯ ফেব্রুয়ারি ১৭ । ০০:০০

পূর্ণতা আঞ্জুম

দু'চোখে বিশ্ব দেখো। স্বপ্নটা এমনই থাকে। চোখের মাঝেই স্বপ্নেরা দিনভর খেলে বেড়ায়। কিন্তু যাদের চোখ নেই। স্বপ্নেরা মনে মনে ঘুরে বেড়ায়। দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীরা চোখের কারণে বঞ্চিত হয় অনেক কিছু থেকে। এই যে বইয়ের মাস। বইমেলার মাস। যারা সুস্থ আছেন দু'চোখ দিয়ে বিশ্বজয়ের পাশাপাশি বইমেলার পুরো সময়টা তারা উপভোগ করছেন। কিন্তু দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীরা? তাদের জন্য কি কেউ পড়াশোনার সঙ্গে সঙ্গে জানার জন্য বই পড়ার অভাব ছিল। কিন্তু এই দূরত্বটা কমিয়ে আনছে ব্রেইল পদ্ধতি। স্পর্শ ব্রেইল প্রকাশনী।
বইমেলার বর্ধমান হাউস প্রাঙ্গণের কাছাকাছিই স্পর্শ ব্রেইল প্রকাশনীটি। বই বিক্রি নয়, দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীরা যেন পড়তে পারে, সে তথ্য জানাতেই হাজির হয়েছে 'স্পর্শ ব্রেইল প্রকাশনী'। শুধু দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী নয়, সব বয়সী মানুষের সব বিষয় জানার সুযোগ আছে প্রাণের মেলায়। এখানে যেমন জাতীয় জাদুঘর সম্পর্কে জানা যাবে, তেমনি পাওয়া যাবে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস। আছে জাতির জনককে জানার একগাদা সুযোগ। সব মিলিয়ে বইয়ের সঙ্গে নানা রঙ ফুটে উঠেছে প্রাণের মেলা_ অমর একুশে গ্রন্থমেলায়।
স্পর্শ প্রকাশনীর সামনে কথা হয় দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী কামাল হোসাইনের সঙ্গে। অন্যদের মতো চোখে দেখার অনুভূতি থেকে তিনি বঞ্চিত। তাই শুধু হৃদয় দিয়েই বইমেলাকে অনুভব করেন। মেলায় মানুষের ভিড়, বইয়ের বেচাকেনা, মেলা নিয়ে মানুষের উচ্ছ্বাস গভীরভাবে উপলব্ধি করার চেষ্টা করেন।
বই বেচাকেনা কিংবা মানুষের ভিড় তিনি কীভাবে বুঝতে পারেন? এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, 'মেলায় ঘুরতে ঘুরতে মাঝে মধ্যে বইয়ের দোকানের পাশে দাঁড়িয়ে বিক্রেতা ও ক্রেতাদের কথাবার্তা, দরদাম শুনি। বই নিয়ে দর্শনার্থীদের উচ্ছ্বাসের কথা শুনে নিজের কাছে খুব ভালো লাগে। লোকজনের কোলাহল এসব শুনে শুনে বইমেলার অবস্থা সম্পর্কে অনুভব করি।
এবারের বইমেলায় প্রতিবন্ধীদের প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান স্পর্শ ব্রেইল নিয়ে এসেছে সাতটি বই। আগের বইসহ বর্তমান তাদের বই সংখ্যা ৪০টি ছাড়িয়েছে। এবারের মেলায় ব্রেইল প্রকাশনীর নতুন বই_ কাইজার চৌধুরীর শোভনের একাত্তর, জাফর ইকবালের দলের নাম বসাক ড্রাগন, লুৎফর রহমান রিটনের রসগোল্লাটা কথা বলে, সৈয়দ নাজিমুদ্দীন হাসেমের গলদা দাদার গোয়েন্দাগিরি, ঈশপ গল্প সমগ্র, জুল ভার্নের ৮০ দিনে বিশ্ব ভ্রমণ, ব্রেস্ট ক্যান্সার-নারী পক্ষ, শিশুতোষ স্পর্শ ছুড়ি। এ ছাড়া প্রকাশনাটি এবার মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক কবিতার সিডি '৭১ দেখব বলে' প্রকাশ করেছে।
মেহরাব হোসাইন পড়েন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটে (আইইআর) মাস্টার্সে। থাকেন মহসিন হলে। এদিকে কবিতা আক্তার পড়েন বেগম বদরুন্নেসা সরকারি কলেজে রাষ্ট্রবিজ্ঞান ফাইনাল ইয়ারে।
বইমেলায় দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীরা পড়ছে এমন অবস্থা দেখে উৎসুক জনতা ভিড় জমাচ্ছে বইমেলার 'স্পর্শ ব্রেইল' প্রকাশনীর স্টলে। দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীরা ছাড়াও প্রতিদিন হাজারো উৎসুক জনতা প্রতিনিয়ত আসছে এখানে। কেউ বই দেখছে, কেউ দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীদের পড়া শুনছে, আবার কেউ কৌতূহলী মন নিয়ে ব্রেইল পদ্ধতি সম্পর্ক জানতে চাইছে। আর এসব কৌতূহলী জনতার প্রশ্নের জবাব দিচ্ছেন প্রকাশক ও লেখিকা নাজিয়া জাবীনসহ স্পর্শ ব্রেইল প্রকাশনীর স্টলের সহযোগীরা।
স্পর্শ ব্রেইল প্রকাশনীর প্রতিষ্ঠাতা নাজিয়া জাবীন বলেন, আমরা চাই প্রত্যেকটি প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান প্রতি বছর অন্তত একটি করে ব্রেইল বই প্রকাশ করুক। এর মাধ্যমে দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীরা সবার মতো করে বইমেলার আনন্দসহ সারা বছর নতুন আনন্দে উজ্জীবিত থাকবে। ওরা সাহিত্য-কবিতা পড়তে ভালোবাসে। নতুন বই পেলে তারা অস্থির হয়ে পড়ে। কে কার আগে পড়বে।
দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীরা এখানে বই পড়তে এসে যে আবেগ প্রকাশ করে এবং তাদের পড়া দেখে কত যে ভালো লাগে তা ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়। যখন তারা বই পেয়ে বলে আমাদের আরও বই চাই, তখন মনে হয় কিছু বই তাদের তৈরি করে দিতে পারতাম, তবে আরও অনেক ভালো লাগত।
বইমেলার ষষ্ঠ দিন বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে ঢুকে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্মৃতি জাদুঘরের স্টল চোখে পড়ে।

© সমকাল ২০০৫ - ২০২২

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com