'বিজ্ঞানমুখী সমাজ বিনির্মাণে তরুণদের দায়িত্ব নিতে হবে'

প্রকাশ: ০৪ মে ১৯ । ২২:৪২ | আপডেট: ০৪ মে ১৯ । ২২:৫৩

সমকাল প্রতিবেদক ও চট্টগ্রাম ব্যুরো

অনুষ্ঠানে অতিথিদের সঙ্গে বিজয়ীরা

বিএফএফ-সমকাল জাতীয় বিজ্ঞান বিতর্ক উৎসবের চূড়ান্ত পর্বে জায়গা করে নিল ঢাকা-২ বিভাগীয় এলাকার আটটি দল। শনিবার সকাল সাড়ে ১০টায় রাজধানীর পান্থপথের ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল একাডেমির (ডিআইএ) বিজয় মিলনায়তনে এ প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন দেশবরেণ্য বিজ্ঞানী ও বিজ্ঞানলেখক ড. রেজাউর রহমান। 

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ ফ্রিডম ফাউন্ডেশনের (বিএফএফ) নির্বাহী পরিচালক সাজ্জাদুর রহমান চৌধুরী, সাবেক কৃতী বিতার্কিক ও জেন্ডার বিশেষজ্ঞ নিশাত সুলতানা এবং ডিআইএর সহকারী পরিচালক মজিবুর রহমান খোকন। 

সমকালের সহকারী সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম আবেদের সভাপতিত্বে পুরো আয়োজন পরিচালনা করেন বিতর্ক উৎসবের মডারেটর সমকালের জ্যেষ্ঠ সহ-সম্পাদক হাসান জাকির ও সহ-সম্পাদক মো. আসাদুজ্জামান।

এদিকে এ বিজ্ঞান বিতর্ক উৎসবে চট্টগ্রাম বিভাগীয় পর্যায়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বাংলাদেশ মহিলা সমিতি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় অ্যান্ড কলেজ (বাওয়া)। রানার্সআপ হয়েছে ফেনী সরকারি পাইলট বালক উচ্চ বিদ্যালয়। 

শনিবার চট্টগ্রামের বাংলাদেশ মহিলা সমিতি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় মিলনায়তনে এ প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। রাজধানীর ডিআইএর বিজয় মিলনায়তনে উদ্বোধনী বক্তব্যে ড. রেজাউর রহমান বলেন, বিতর্ক হচ্ছে জ্ঞান, আর লব্ধ জ্ঞানের সমষ্টিই বিজ্ঞান। বিজ্ঞান সত্যের সন্ধান করে। সত্য সন্ধানের মধ্য দিয়ে সামগ্রিকভাবে সমাজকে এগিয়ে নিয়ে যায়। সমাজ ও দেশ এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য তোমাদের বিজ্ঞান ও কুসংস্কারকে মুখোমুখি দাঁড় করাতে হবে। বিজ্ঞান বিতর্ক সেই সত্য উদ্ঘাটনের পথ দেখাবে। 

তিনি আরও বলেন, সমাজ তথা রাষ্ট্রকে হানাহানি, ধর্মান্ধতা, কুসংস্কার থেকে মুক্ত হতে হলে আমাদের অবশ্যই বিজ্ঞানমুখী হতে হবে। তোমরা তরুণ প্রজন্মই পারো সেই রাষ্ট্র গড়ে তুলতে।

সাজ্জাদুর রহমান চৌধুরী বলেন, শুধু প্রতিযোগিতার জন্য নয়, বিতর্ক চর্চাকে সমাজের সর্বস্তরে ছড়িয়ে দিতে হবে। বিজ্ঞানমনস্কতার মাধ্যমে সব কুসংস্কার থেকে সমাজকে মুক্ত করে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে। আর তা করতে তরুণ প্রজন্মকেই দায়িত্ব নিতে হবে।

নিশাত সুলতানা বলেন, জেন্ডার সংবেদনশীলতার অভাব আমাদের সমাজের বড় সমস্যা। বিজ্ঞান বিতর্কের মধ্য দিয়ে শিক্ষার্থীরা একই সঙ্গে জেন্ডার সহনশীল হয়ে উঠবে। আমরা কে নারী বা কে পুরুষ সেটা বড় কথা নয়, প্রথম পরিচয় হবে আমরা মানুষ।

সিরাজুল ইসলাম আবেদ বলেন, একটি দৈনিক পত্রিকা হিসেবে সংবাদ পরিবেশন মূল কাজ হলেও বিজ্ঞানমুখী ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় তরুণ প্রজন্মকে গড়তে সমকাল বছরজুড়ে নানা কর্মকাণ্ড পরিচালনা করে আসছে, যার অন্যতম এই বিজ্ঞান বিতর্ক উৎসব।

ঘূর্ণিঝড় ফণীর ভয়কে জয় করে ঢাকা-২ বিভাগীয় এলাকার বিতর্ক উৎসব জমে ওঠে তুখোড় বিতার্কিকদের যুক্তি আর যুক্তি খণ্ডনের মধ্য দিয়ে। দিনব্যাপী লড়াই শেষে চূড়ান্ত পর্বে জায়গা করে নেয় আদমজী ক্যান্টনমেন্ট স্কুল অ্যান্ড কলেজ, সেন্ট যোসেফ হায়ার সেকেন্ডারি স্কুল, ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজ, মতিঝিল সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়, রাজউক মডেল কলেজ, শেরেবাংলা নগর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, ধানমণ্ডি গভ. বয়েজ হাই স্কুল ও রাজবাড়ী সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়।

প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়া অন্য দলগুলো হলো- নারায়ণগঞ্জ হাই স্কুল অ্যান্ড কলেজ, আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজ, মতিঝিল সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, গভর্নমেন্ট ল্যাবরেটরি হাই স্কুল, হলি ক্রস গার্লস হাই স্কুল ও রোটারি উচ্চ বিদ্যালয়।

প্রতিযোগিতায় বিচারকের দায়িত্ব পালন করেন রাশেদুল ইসলাম পল্লব, নিশাত সুলতানা, ইমরান এইচ তালুকদার, ফয়সাল মাহমুদ শান্ত, আবদুল কাইয়ুম, মাকসুদা আক্তার তমা, খোন্দকার ফয়সাল আজম বাপ্পী, আনান আফসানা আজাদ, রোমান উদ্দীন ও মোজাম্মেল হক তন্ময়।

আয়োজন সুন্দরভাবে সম্পন্ন করতে দায়িত্ব পালন করেন সুহৃদ সমাবেশ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, মিরপুর, ড্যাফোডিল ইন্টান্যাশনাল ইউনিভার্সিটি ও বাংলাদেশ টেপটাইল বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সুহৃদরা।

চট্টগ্রামে বিভাগ সেরা বাংলাদেশ মহিলা সমিতি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়: 

শনিবার চট্টগ্রাম বিভাগীয় পর্যায়ের প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশ মহিলা সমিতি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় অ্যান্ড কলেজ (বাওয়া) চ্যাম্পিয়ন এবং ফেনী সরকারি পাইলট বালক উচ্চ বিদ্যালয় রানার্সআপ হয়। সেরা বিতার্কিক হয়েছেন বাওয়া স্কুলের আসরাত সুলতানা।

সমকাল চট্টগ্রাম ব্যুরোপ্রধান সারোয়ার সুমনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মো. মাহবুব হাসান। বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ মহিলা সমিতি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের অধ্যক্ষ আনোয়ারা বেগম।

বিভাগীয় বিতর্ক উৎসবে অংশ নেওয়া তিনটি দলের মধ্যে অপর দলটি হলো কক্সবাজার পাইলট স্কুল। প্রধান অতিথির বক্তব্যে মো. মাহবুব হাসান বলেন, উন্নত জাতি গঠনে মেধার বিকল্প নেই। সমকাল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মেধা চর্চার জন্য এ বিতর্ক প্রতিযোগিতার আয়োজন করছে, এটি সত্যিই প্রশংসনীয়। 

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে অধ্যক্ষ আনোয়ারা বেগম বলেন, যুক্তিতেই মুক্তি। সত্যকে সত্য হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে এ যুক্তিই প্রয়োজন। এখন যারা বিতর্ক করছো তারাই দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবে।

শনিবার সকাল থেকে বৈরী আবহাওয়া এবং তিন পার্বত্য এলাকায় ধর্মঘটের কারণে চূড়ান্ত এ প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে পারেনি লক্ষ্মীপুর, নোয়াখালী, রাঙামাটি, বান্দরবান ও খাগড়াছড়ি জেলা পর্যায়ের চ্যাম্পিয়ন দলগুলো।

© সমকাল ২০০৫ - ২০২১

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মুস্তাফিজ শফি । প্রকাশক : এ কে আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com