চলচ্চিত্র ও টেলিভিশন ইনস্টিটিউট আইন সংশোধনে বিল পাস

১২ জুলাই ২০১৯

সমকাল প্রতিবেদক

চলচ্চিত্র ও টেলিভিশনের ক্ষেত্রবিশেষ অবদানের জন্য ব্যক্তির পাশাপাশি প্রতিষ্ঠানকে সম্মাননা দেওয়ার বিধান সংযোজন করে 'বাংলাদেশ চলচ্চিত্র ও টেলিভিশন (সংশোধন) বিল, ২০১৯' সংসদে পাস হয়েছে গতকাল বৃহস্পতিবার। তথ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ হাছান মাহমুদ বিলটি পাসের প্রস্তাব করলে কণ্ঠভোটে তা পাস হয়।

এর আগে বিলের ওপর বিরোধীদলীয় একাধিক সদস্যের জনমত যাচাই-বাছাই কমিটিতে প্রেরণ ও সংশোধনী প্রস্তাব নিষ্পত্তি করা হয় ওই কণ্ঠভোটেই। দিনের কার্যসূচিতে বিলটি পাসের কথা থাকলেও তথ্যমন্ত্রীর অনুপস্থিতিতে বিল পাসের কার্যক্রম প্রথমে স্থগিত ঘোষণা করেন বৈঠকের সভাপতির আসনে থাকা ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়া। এরই মধ্যে তথ্যমন্ত্রী সংসদের বৈঠকে প্রবেশ করেন এবং স্পিকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। মন্ত্রীর অনুরোধে বিলটি উত্থাপনের সুযোগ দেন স্পিকার।

তথ্যমন্ত্রী বিলটি উত্থাপন করতে গিয়ে তার সংসদে প্রবেশে দেরি হওয়ার কৈফিয়ত হিসেবে বলেন, 'যানজটের কারণে সংসদে ঢুকতে দেরি হয়েছে। অন্য একটা গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকে অংশ নিয়ে সংসদে ফিরতে গিয়ে যানজটের কবলে পড়েছি।'

তার এ বক্তব্যে ক্ষোভ প্রকাশ করেন জাতীয় পার্টির সদস্য ফখরুল ইমাম। তিনি বলেন, 'সংসদের কাজের তুলনায় অন্য কাজ কোনো মন্ত্রী বা এমপির জন্য গুরুত্বপূর্ণ হতে পারে না।' মন্ত্রীর এমন অজুহাতের প্রতিবাদে বিলের ওপর জনমত যাচাইয়ের বক্তব্য দেওয়া থেকে বিরত রাখেন তিনি নিজেকে।

পরে অবশ্য তথমন্ত্রী হাছান মাহমুদ ফখরুল ইমামের এ বক্তব্যের প্রতি সমর্থন ব্যক্ত করে বলেন, 'অবশ্যই সবার আগে সংসদের কাজ গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু সংসদ থেকে ১০ মিনিটের দূরত্বে ছিলাম আমি। এক ঘণ্টা আগে রওনা হয়েও সময়মতো পৌঁছাতে ব্যর্থ হয়েছি। এর কারণ যানজট।' মন্ত্রী বলেন, ঢাকায় আজ বৃষ্টি হয়েছে এবং বৃহস্পতিবার সপ্তাহের শেষ দিন। এ কারণেই যানজট তীব্র আকার ধারণ করেছে।

বিলের ওপর জনমত যাচাইয়ের আলোচনায় অংশ নিয়ে জাতীয় পার্টির পীর ফজলুর রহমান বলেন, 'তথ্যমন্ত্রী যতটা স্মার্ট, বিটিভি ততটাই আনস্মার্ট। বিটিভির মান মোটেই ভালো না। যেখানে অন্য চ্যানেল দেখা যায় না, সেখানকার মানুষই শুধু বিটিভি দেখে।'

পাস হওয়া বিলের উদ্দেশ্য ও কারণ সম্পর্কে মন্ত্রী বলেন, 'বাংলাদেশ চলচ্চিত্র ও টেলিভিশন ইনস্টিটিউটের গভর্নিং বডিতে সংশ্নিষ্ট বরেণ্য ব্যক্তিদের উপস্থিতি ইনস্টিটিউটকে সমৃদ্ধ করবে। গণমাধ্যম ব্যক্তিদের কাজের অধিক্ষেত্র বিস্তৃত বিধায় চলচ্চিত্র ও টেলিভিশন প্রশিক্ষণ সংক্রান্ত এই ইনস্টিটিউটের কার্যাবলির সঙ্গে গণমাধ্যম ব্যক্তিত্বদের অন্তর্ভুক্তি অধিকতর সঙ্গতিপূর্ণ হবে।'

© সমকাল 2005 - 2019

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মুস্তাফিজ শফি । প্রকাশক : এ কে আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭ (প্রিন্ট পত্রিকা), +৮৮০১৮১৫৫৫২৯৯৭ (অনলাইন) । ইমেইল: [email protected]