শিশুরা গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হতে শিখছে: শিক্ষামন্ত্রী

প্রকাশ: ২৫ জানুয়ারি ২০ । ২২:০৫

সমকাল প্রতিবেদক

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু - ফাইল ছবি

মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের মন্ত্রিসভা (স্টুডেন্ট কেবিনেট) নির্বাচন শনিবার সারাদেশে একযোগে অনুষ্ঠিত হয়েছে। মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত এবং দাখিল মাদ্রাসায় এ নির্বাচনে সকাল ৯টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে ভোটগ্রহণ করা হয়।

এদিন দেশের আট বিভাগ ও আটটি মহানগরের আওতাধীন ২২ হাজার ৯২৬টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এর মধ্যে ১৬ হাজার ৩৮৪টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও ৬ হাজার ৫৪২টি দাখিল মাদ্রাসা।

প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ৮টি পদে নির্বাচন হয়েছে। এ হিসাবে মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ১ লাখ ৩১ হাজার ৭২টি ও মাদ্রাসায় ৫২ হাজার ৩৩৬টি পদে প্রার্থীরা নির্বাচন করেছে। নির্বাচনে ভোটার ছিল ১ কোটি ১৫ লাখ ৫৩ হাজার ৯১৬ শিক্ষার্থী। ব্যতিক্রমী এ নির্বাচনে শিক্ষার্থীরাই প্রধান নির্বাচন কমিশনার, পোলিং এজেন্ট, প্রার্থী হওয়াসহ সব নির্বাচনী দায়িত্ব পালন করছে।

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি রাজধানীর মতিঝিল সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ভোটকেন্দ্র পরিদর্শন শেষে বলেন, জীবনে সব পর্যায়ে একজনকে দলনেতা মানতে হয়। শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ে সেই জ্ঞানার্জন করতে পারছে। শিশুকাল থেকে গণতন্ত্রের চর্চা এবং গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হতে পারছে। অন্যের মতের প্রতি সহিষ্ণুতা ও শ্রদ্ধা প্রদর্শন করতে শিখছে শিশুরা। ডা. দীপু মনি আরও বলেন, অধিকার ও দায়িত্ব সম্পর্কে শিক্ষার্থীদের ধারণা সৃষ্টি, শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মধ্যে আন্তরিকতা তৈরি, শিক্ষার্থী ঝরে পড়ার হার রোধসহ বিভিন্ন লক্ষ্য নিয়ে স্কুল কেবিনেট নির্বাচন আয়োজন করা হচ্ছে। এটি নিঃসন্দেহে শিক্ষার্থীদের দায়িত্বশীল হিসেবে তৈরি করবে। আজকের শিক্ষার্থীরা নানা ধরনের উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডে অংশ নেওয়ার সুযোগ পাচ্ছে। শিক্ষার্থীরা নিজের ভোটাধিকার প্রয়োগ করে নেতা নির্বাচন করছে। সেই নেতার নির্দেশনা মেনে চলছে। পড়ালেখার পাশাপাশি বিদ্যালয়ের নানা ধরনের কর্মকাণ্ডে যুক্ত হচ্ছে। এতে ওই ছাত্রছাত্রীর নিজের দায়িত্ব সম্পর্কে সচেতনতা ও নিজের মূল্যবোধ তৈরিসহ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেরও উন্নয়ন হচ্ছে।

শিক্ষামন্ত্রী পরে মতিঝিল সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয় এবং বেইলি রোডের সিদ্ধেশ্বরী স্কুল অ্যান্ড কলেজে স্কুল কেবিনেট নির্বাচন পরিদর্শন করেন। এ নির্বাচনের উদ্দেশ্য সম্পর্কে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের (মাউশি) মহাপরিচালক অধ্যাপক সৈয়দ মোহাম্মদ গোলাম ফারুক সমকালকে বলেন, স্টুডেন্টস কেবিনেটে বিদ্যালয়ের প্রধান আটটি কার্যক্রমের দায়িত্বে নির্বাচিত আটজন প্রতিনিধি থাকবে। এগুলো হচ্ছে- পরিবেশ সংরক্ষণ (বিদ্যালয়, আঙিনা ও টয়লেট পরিস্কার এবং বর্জ্য ব্যবস্থাপনা), পুস্তক এবং শিখন সামগ্রী, স্বাস্থ্য, ক্রীড়া ও সংস্কৃতি এবং সহপাঠ কার্যক্রম, পানিসম্পদ, বৃক্ষরোপণ ও বাগান তৈরি, দিবস ও অনুষ্ঠান উদযাপন এবং অভ্যর্থনা ও আপ্যায়ন, আইসিটি। নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়, উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও কলেজ এবং আলিম, ফাজিল ও কামিল মাদ্রাসায় এ নির্বাচন হয়নি বলে মাউশি জানিয়েছে।

রাজধানীর বাইরের চিত্র: 

বরিশাল ব্যুরো জানায়, সারাদেশের মতো বরিশালেও অনুষ্ঠিত হয়েছে স্টুডেন্ট কেবিনেট নির্বাচন। জেলার ৪২০টি স্কুল ও ২৬০টি মাদ্রাসাসহ মোট ৬৮০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। বরিশাল জিলা স্কুলে সুষ্ঠু-সুন্দর পরিবেশে লাইনে দাঁড়িয়ে শিক্ষার্থীদের ভোট দিতে দেখা গেছে।শিক্ষার্থীরা জানায়, এ নির্বাচনের মাধ্যমে ছোটবেলা থেকে গণতন্ত্রচর্চার অভ্যাস গড়ে উঠছে তাদের। কীভাবে আগামীতে দেশ পরিচালনা করা যাবে সে বিষয়েও সম্যক ধারণা পাচ্ছেন তারা। মাউশির বরিশালের সহকারী পরিচালক (মাধ্যমিক) এবাদুল ইসলাম জানান, ভবিষ্যতে জনপ্রতিনিধি তৈরি এবং দেশ শাসনে অভ্যস্ত করার জন্য এই নির্বাচনের আয়োজন করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

পাবনা অফিস জানায়, পাবনায় উৎসবমুখর পরিবেশে স্টুডেন্ট কেবিনেট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। দুপুর ২টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ শেষে গণনার পর নির্বাচনের ফল ঘোষণা করে নিজ নিজ স্কুলের প্রধান নির্বাচন কমিশনার।

পাবনা কৃষ্ণপুর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায়, জাতীয় নির্বাচনের আদলে তৈরি হয়েছে বুথ। লম্বা সারিতে দাঁড়িয়ে ভোটাররা ভোটকক্ষে প্রবেশ করছে। খুদে পোলিং এজেন্টদের কাছ থেকে ব্যালট পেপার নিয়ে গোপন কক্ষে গিয়ে পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিচ্ছে। ভোট দিয়ে আসা অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থী মনিরা সুলতানা জানায়, আগে বাড়ির বড়দের ভোট দিতে যেতে দেখেছি। আজ কীভাবে ভোট দিতে হয় তা জানলাম। নিজের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিয়েছি। আমি খুবই আনন্দিত।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী অহনা করিম সমকালকে জানায়, কয়েকদিন ধরে নির্বাচনের বিধিমালা সম্পর্কে আমরা শিক্ষকদের কাছ থেকে জেনেছি। সে অনুযায়ী সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে নির্বাচন আয়োজন করতে পেরে আমি খুবই আনন্দিত। পাবনা জেলা শিক্ষা অফিসার মোসলেম উদ্দিন সমকালকে জানান, উৎসবমুখর এ আয়োজনে শিক্ষার্থীরা স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণ করেছে।

© সমকাল ২০০৫ - ২০২২

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৭১৪০৮০৩৭৮ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com