করোনা: কানাডায় ৮২ বিলিয়ন ডলারের প্রণোদনা প্যাকেজ পাস

২৬ মার্চ ২০২০ | আপডেট: ২৬ মার্চ ২০২০

কানাডা (আলবার্টা) প্রতিনিধি

অবশেষে হাউজ অব কমন্সের বিশেষ অধিবেশনে পাস হয়েছে প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোর প্রস্তাবিত ৮২ বিলিয়ন ডলারের ‘কোভিড-১৯’ এইড প্যাকেজ। 

সব দলের সম্মতিতে এই প্রস্তাব পাস হয়েছে। তবে সিদ্ধান্ত হয়েছে, এ বছরের ৩০ মার্চ থেকে ১৫ দিন অন্তর অর্থমন্ত্রী বিল মনরো করোনাভাইরাস সংক্রান্ত গৃহীত পদক্ষেপের বিবরণী পার্লামেন্টের পরবর্তী ২০ এপ্রিলের অধিবেশন থেকে দেওয়া শুরু করবেন। 

একইসঙ্গে ‘কোভিড-১৯ ইমার্জেন্সি রেসপন্স অ্যাক্ট’-এর অধীনে বিলটি ‘রয়্যাল অ্যাসেন্ট’ বা রাজকীয় অনুমতি প্রাপ্তির দিন থেকে ছয় মাসের মধ্যে সংসদীয় অর্থ কমিটি তাদের অনুসন্ধানে উদ্ঘাটিত বিষয়াবলী আগামী বছরের ৩১ মার্চের অধিবেশনে তুলে ধরবে।

কনজারভেটিভ পার্টি ওই বিলের ক্ষেত্রে তাদের জোর আপত্তি উত্থাপন করে বিষয়টিকে সরকারি দলের ‘পাওয়ার গ্র্যাব’ হিসেবে আখ্যা দেয়। এ নিয়ে সংসদ সদস্যদের মধ্যে আলোচনা চলতে থাকে।

বুধবার সকালে তার অবসান শেষে হাউজ অব কমন্সে দ্রুতই বিলটি পাস হয় এবং তা ‘থার্ড রিডিং’ বা তৃতীয় পঠন শেষে সিনেটে রাজকীয় অনুমতির জন্য পাঠানো হয়। 

কনজারভেটিভ নেতা অ্যান্ড্রু শিয়ার এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, গত সপ্তাহে প্রধানমন্ত্রী ট্রুডো প্রস্তাবিত ওই বিলের ক্ষেত্রে তার দলের কোনো আপত্তি ছিল না। তবে তারা প্রায় দু-বছর ধরে ওই বিলের আওতায় ব্যয় ও করারোপের ক্ষেত্রে সরকারকে কোনো ‘ব্লাঙ্কচেক’ দিতে রাজি হননি, যা প্রাথমিকভাবে ওই বিলের খসড়ায় যুক্ত করে অনুলিপি আকারে সোমবার তাদের দেওয়া হয়। 

তিনি আরও বলেন, ‘কানাডিয়ানরা আমাদের দিকে তাকিয়ে আছে। তাই তাতে ক্ষমতােএখন মুখ্য বিষয় হতে পারে না।’

যদিও অ্যান্ড্রু শিয়ার সে কথা বলেছেন, কিন্তু ‘সেল্ফ-আইসোলেশনে থাকা’ প্রধানমন্ত্রী ট্রুডো তার এক টুইট বার্তায় জানিয়েছেন, ‘অনুচ্ছেদ ২’-এর আপত্তিকর বিষয় বাদেই বিলটি সংসদে উত্থাপনের প্রয়াস সরকারি দলের ছিল।

সাধারণ কানাডিয়ানদের জন্য ওই বিলে তাৎক্ষণিক সুবিধা হিসেবে যা থাকছে-

১. অস্থায়ী প্রক্রিয়াধীনে কানাডা চাইল্ড টেক্স বেনিফিটে সংযোজিত হবে অতিরিক্ত ২ বিলিয়ন ডলারের প্রণাদনা।

২. অসুস্থতায় ছুটিবিহীন কিংবা চাকরিবীমা (ইআই) নেই এমন সেল্ফ-এমপ্লয়েডদের জন্য জরুরি সেবার উপযোগ হিসেবে সর্বোচ্চ ১৫ সপ্তাহের জন্য পাক্ষিক (১৫ দিন) সর্বোচ্চ ৯০০ ডলারের প্রাপ্তির সুবিধা, যাতে ব্যয় হবে ১০ বিলিয়ন ডলার।

৩. জরুরি সেবার উপযোগ হিসেবে চাকরিবীমার (ইআই) সুফল বঞ্চিত বেকারদের জন্য ৫ বিলিয়ন ডলারের আর্থিক প্রণোদনা।

৪. ছয় মাসের সুদবিহীন রিপ্রিভ বা দায়হীন স্টুডেন্ট লোন পেমেন্ট।

৫. গৃহহীন সেবা প্রদান কার্যক্রম দ্বিগুণ করা।

৬. জুনের ১ তারিখ পর্যন্ত টেক্স ফাইলের সুযোগ বাড়ানো

৭. ৩১ আগস্ট পর্যন্ত করদাতাদের কর দেওয়া রহিতকরণ।

৮. আদিবাসী ফার্স্ট নেশন, ইনুইট ও মেটিস সম্প্রদায়ের জরুরি সাহায্যে ৩০৫ মিলিয়ন ডলারের নতুন ‘ইনডিজিনিয়াস কমিউনিটি সাপোর্ট ফান্ড’ প্রদান।

৯. এছাড়া স্বল্প-উপার্জনক্ষম, গৃহহীন ও আশ্রিত কানাডিয়ানদের জন্য এসব সুবিধার পাশাপাশি রয়েছে অতিরিক্ত ‘জিএসটি’ ক্রেডিট।         

© সমকাল ২০০৫ - ২০২০

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মুস্তাফিজ শফি । প্রকাশক : এ কে আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ (প্রিন্ট), +৮৮০১৮১৫৫৫২৯৯৭ (অনলাইন) | ইমেইল: [email protected] (প্রিন্ট), [email protected] (অনলাইন)