চিকিৎসা দিতে অনীহায় মৃত্যু হলে ফৌজদারি অপরাধ: হাইকোর্ট

১৫ জুন ২০২০

সমকাল প্রতিবেদক

সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে গুরুতর অসুস্থ রোগীকে চিকিৎসা দিতে অনীহা দেখালে এবং এতে রোগীর মৃত্যু হলে তা 'অবহেলাজনিত মৃত্যু' অর্থাৎ ফৌজদারি অপরাধ হিসেবে বিবেচনা করতে বলেছেন হাইকোর্ট। পাশাপাশি এর জন্য দায়ী ব্যক্তিদের দ্রুত আইনের আওতায় আনারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমের ভার্চ্যুয়াল হাইকোর্ট বেঞ্চ সোমবার এই আদেশ দেন।

আদেশে আরও বলা হয়, আইসিইউতে চিকিৎসাধীন কোভিড-১৯ রোগীর চিকিৎসার ক্ষেত্রে বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিক যেন মাত্রাতিরিক্ত বা অযৌক্তিক ফি আদায় করতে না পারে সেজন্য নজরদারির ব্যবস্থা করতে হবে। এছাড়া অক্সিজেন সিলিন্ডার সরবরাহ ও বিক্রিতে 'মনিটরিং' জোরদার করতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি সংশ্নিষ্ট কর্তৃপক্ষকে অক্সিজেন সিলিন্ডারের খুচরা ও রি-ফিলিংয়ের মূল্য নির্ধারণেরও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আদালত বলেছেন, সিলিন্ডারের নির্ধারিত মূল্য খুচরা বিক্রেতাদের প্রতিষ্ঠান/ দোকানে প্রদর্শন করতে হবে। এ ছাড়া কৃত্রিম সংকট রোধে চিকিৎসকের ব্যবস্থাপত্র ও রোগীর পরিচয়পত্র ছাড়া অক্সিজেন সিলিন্ডারের খুচরা বিক্রি বন্ধের বিষয়টি সংশ্নিষ্ট কর্তৃপক্ষ বিবেচনা করতে পারে।

রাজধানী ঢাকায় 'লকডাউন' জারির বিষয়ে আদালত আদেশে বলেন, সরকার ইতোমধ্যে রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশকে কোভিড-১৯ রোগীর সংখ্যা বিবেচনায় লাল, হলুদ ও সবুজ জোনে বিভক্ত করে পর্যায়ক্রমে লকডাউনের আওতায় আনার সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন প্রক্রিয়া অব্যাহত রেখেছে। এ অবস্থায় বর্তমান পর্যায়ে লকডাউনের বিষয়ে কোনো আদেশ দেওয়া সঙ্গত হবে না। আদালত আদেশে বলেছেন, এসব নির্দেশনা যথাযথভাবে পালন করা হচ্ছে কি- না তা জানিয়ে আগামী ৩০ জুনের মধ্যে স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিব ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালককে প্রতিবেদন দিতে হবে।

বেসরকারি হাসপাতালের আইসিইউ রিকুইজিশন এবং 'সেন্ট্রাল বেড ব্যুরো' স্থাপন, ৫০ শয্যা বা তার বেশি শয্যার সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে কোভিড ও সাধারণ রোগীদের জন্য আলাদা চিকিৎসা ব্যবস্থা চালু এবং রাজধানী ঢাকায় দুই সপ্তাহের জন্য লকডাউন ঘোষণা চেয়ে করা পৃথক তিনটি রিটের শুনানি নিয়ে পর্যবেক্ষণসহ এসব নির্দেশ দেওয়া হয়। আদালতে রিটগুলোর পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মনজিল মোরসেদ, আইনজীবী ইয়াদিয়া জামান, আইনজীবী জামিউল হক ফয়সাল ও মেহেদী হাসান। অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল মুরাদ রেজা, ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অমিত তালুকদার ও সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল অবন্তী নুরুল।

গত ১১ মে সরকারের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য বিভাগ সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিকে সাধারণ (নন-কোভিড) রোগীদের চিকিৎসা সংক্রান্ত দুটি নির্দেশনা জারি করে। এ ছাড়াও ৫০ শয্যা বা তার বেশি শয্যা বিশিষ্ট সরকারি, বেসরকারি হাসপতালে কোভিড ও সাধারণ রোগীদের চিকিৎসার জন্য গত ২৪ মে আরেকটি নির্দেশনা জারি করে। এসব নির্দেশনাসহ ঢাকা লকডাউনের নির্দেশনা চেয়ে সম্প্রতি হাইকোর্টে পৃথক তিনটি রিট দায়ের করা হয়।

© সমকাল ২০০৫ - ২০২০

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মুস্তাফিজ শফি । প্রকাশক : এ কে আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ (প্রিন্ট), +৮৮০১৮১৫৫৫২৯৯৭ (অনলাইন) | ইমেইল: samakalad@gmail.com (প্রিন্ট), ad.samakalonline@outlook.com (অনলাইন)