পাটুরিয়া ও আরিচা ঘাটে কর্মস্থলে ফেরা যাত্রীদের দুর্ভোগ

০৭ আগস্ট ২০২০ | আপডেট: ০৭ আগস্ট ২০২০

শিবালয় (মানিকগঞ্জ) প্রতিনিধি

ঘাটে কর্মস্থলে ফেরা যাত্রীদের ভিড়- সমকাল

পাটুরিয়া ও আরিচা ঘাটে পরিবহন স্বল্পতার কারণে কর্মস্থলে ফেরা যাত্রীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। 

ঈদ শেষে যাত্রীরা বুধবার থেকেই ঢাকায় ফিরতে শুরু করেছেন। গত তিন চার দিন ধরে প্রতিদিনই সকাল থেকে শুরু করে সন্ধ্যা পর্যন্ত যাত্রীরা কর্মস্থলে যাওয়ার জন্য পাটুরিয়া ও আরিচা ঘাটে আসছেন। দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১টি জেলার হাজার হাজার যাত্রীরাও ঘাটে এসে ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করছেন। চার পাঁচগুণ ভাড়া বেশি দিয়েও ঢাকায় কর্মস্থলে ফিরে যেতে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে তাদের।

শুক্রবার পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌ-রুটে চলাচলরত ফেরি ও লঞ্চে হাজার হাজার যাত্রীদের উপচে পড়া ভিড় দেখা গেছে। যাত্রীদের উপচে পড়া ভিড়ের কারণে ফেরি ও লঞ্চে তিল ধারণের ঠাঁই ছিল না। 

পাটুরিয়া ঘাটে বাসের জন্য অপেক্ষায় থাকা পোশাককর্মী জবেদা আক্তার, শিউলী খাতুন, জামাল শেখ ও জালাল উদ্দিন জানান, পাটুরিয়া ঘাটে এসে সকাল ১১টা থেকে অপেক্ষায় রয়েছেন বাসের জন্য।

এরকম হাজার হাজার যাত্রীরা পাটুরিয়া, আরিচা ঘাটসহ বিভিন্ন স্টেশনে বাসের জন্য অপেক্ষায় রয়েছেন। পাটুরিয়া ঘাটের এক শ্রেণীর দুর্নীতিবাজ বাস মালিক শ্রমিকরা স্বাস্থ্যবিধির কোন তোয়াক্কা না করে প্রতিটি সিটে যাত্রী নিচ্ছেন। যাত্রীদের কাছে থেকে স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে তিন-চার গুণ ভাড়া বেশি নিয়েও সিট ছাড়াও বাসের ভিতর দাঁড়িয়েও যাত্রী নিচ্ছেন।

বিআইডব্লিউটিসির আরিচা অফিসের সহকারী পরিচালক রাশেদুল ইসলাম জানান, ঈদ শেষে কর্মস্থলে ঢাকায় যাওয়ার জন্য বুধবার থেকে পদ্মা-যমুনা নদী পাড়ি দিয়ে পাটুরিয়া ঘাটে আসছেন যাত্রীরা। কর্মস্থলে ফেরা যাত্রীরা পরিবার পরিজন নিয়ে স্বাস্থ্যবিধি না মেনেই ফেরিতে নদী পাড়ি দিচ্ছেন। বেশির ভাগ যাত্রীর মুখে কোনো মাস্ক দেখা যায়নি। 

পাটুরিয়া বাস মালিক সমিতির সভাপতি আলাল উদ্দিন আলাল বলেন, অতিরিক্ত ভাড়া নেওয়ার ব্যাপারে কেউ অভিযোগ করেনি।

আরিচা অফিসের বিআইডব্লিউটিসির ডিজিএম জিল্লুর রহমান জানান, বুধবার থেকে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌ-রুটে ফেরিতে যাত্রী ও প্রাইভেকার এবং মোটরসাইকেলের চাপ বেড়েছে। প্রতিদিন ছোট বড় ১২-১৩টি ফেরি দিয়ে যাত্রী ও যানবাহন পারাপার করা হচ্ছে।

ওসি ফিরোজ কবির জানান, যাত্রীদের কাছে থেকে অতিরিক্ত ভাড়া নেওয়ার ব্যাপারে অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

© সমকাল ২০০৫ - ২০২০

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মুস্তাফিজ শফি । প্রকাশক : এ কে আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ (প্রিন্ট), +৮৮০১৮১৫৫৫২৯৯৭ (অনলাইন) | ইমেইল: samakalad@gmail.com (প্রিন্ট), ad.samakalonline@outlook.com (অনলাইন)