বগুড়ায় আ'লীগ নেতার হাতে উপজেলা চেয়ারম্যান লাঞ্ছিত, মামলা

প্রকাশ: ২৯ আগস্ট ২০ । ১৭:৫৭

 বগুড়া ব্যুরো

রেজাউল আশরাফ জিন্নাহ -ফাইল ছবি

বগুড়ায় নন্দীগ্রাম উপজেলা চেয়ারম্যান যুবলীগের সাবেক সভাপতি রেজাউল আশরাফ জিন্নাহকে শারিরীকভাবে লাঞ্ছিত করা হয়েছে। শনিবার দুপুরে উপজেলার কুন্দারহাটে স্থানীয় এক আওয়ামী লীগ নেতা তাকে লাঞ্ছিত করেন। এছাড়া চেয়ারম্যানের পদত্যাগের দাবিতে তারা সেখানে বিক্ষোভ সমাবেশও করেন। এ ঘটনায় চেয়ারম্যান বাদী হয়ে এক আওয়ামী লীগ নেতাকে আসামী করে মামলা দায়ের করেছেন।

স্থানীয়রা জানান, শনিবার দুপুরে কুন্দারহাট বাজারে একটি চায়ের দোকানে বসেছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান রেজাউল আশরাফ জিন্নাহ। এসময় একই উপজেলার ভাটগ্রাম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি জুলফিকার আলী সেখানে হাজির হয়ে উপজেলা চেয়ারম্যানকে গালিগালাজ করেন এবং কিল-ঘুষি মারতে থাকেন। এসময় স্থানীয় লোকজন উপজেলা চেয়ারম্যানকে উদ্ধার করে উপজেলা পরিষদে পাঠিয়ে দেন। উপজেলা চেয়ারম্যান চলে যাওয়ার পর কুন্দারহাট বাজারে আওয়ামী লীগ নেতা জুলফিকার আলীর নেতৃত্বে বিক্ষোভ সমাবেশের আয়োজন করা হয়। উপজেলা চেয়ারম্যান বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে বিরূপ মন্তব্য করেছেন এমন অভিযোগ এনে তার অপসারণ দাবি করা হয় বিক্ষোভ সমাবেশ থেকে।

ভাটগ্রাম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি জুলফিকার আলী বলেন, 'বঙ্গবন্ধুর মাজার জিয়ারত করতে যাওয়ার কথা আছে উপজেলা আওয়ামী লীগের। বঙ্গবন্ধুর মাজার জিয়ারত করার বিষয় নিয়ে তার সঙ্গে আলাপ করতেই চেয়ারম্যান এ নিয়ে বিরূপ মন্তব্য করায়  চেয়ারম্যানের গায়ে হাত তুলতে বাধ্য হই।'

নন্দীগ্রাম উপজেলা চেয়ারম্যান রেজাউল আশরাফ জিন্নাহ বলেন, 'আমি নৌকা মার্কা নিয়ে উপজেলা নির্বাচন করেছি। বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে বিরূপ মন্তব্য করার প্রশ্নই ওঠে না। কুন্দারহাট বাজারে শত শত মানুষের সামনে আমাকে মারধর করা হয়েছে। আমি থানা পুলিশকে বিষয়টি জানিয়েছি।'

নন্দীগ্রাম থানার ওসি শওকত কবীর বলেন, এ ঘটনায় উপজেলা চেয়ারম্যান বাদী হয়ে আওয়ামী লীগ নেতা জুলফিকার আলীকে আসামী করে মামলা দায়ের করেছেন।

© সমকাল ২০০৫ - ২০২২

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com