আপাতত ইন্টারনেট বন্ধ হচ্ছে না

১৭ অক্টোবর ২০২০ | আপডেট: ১৭ অক্টোবর ২০২০

সমকাল প্রতিবেদক

ফাইল ছবি

দেশজুড়ে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট ও ক্যাবল টিভি বন্ধের কর্মসূচি আপাতত স্থগিত করা হয়েছে। ফলে রোববার থেকে বন্ধ হচ্ছে না ব্রডব্যান্ড ইন্টারনটে ও ক্যাবল টিভি লাইন। শনিবার সন্ধ্যায় যৌথ ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে পূর্বের কর্মসূচি স্থগিতের ঘোষণা দেয় ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সেবাদাতা ব্যবসায়ীদের সংগঠন আইএসপিএবি এবং ক্যাবল অপারেটরদের সংগঠন কোয়াব। 

এর আগে গ্রাহকের দোরগড়া পর্যন্ত সংযোগ স্থাপনে ঝুলন্ত তারের বিকল্প ব্যবস্থা না করে ক্যাবল কাটায় ইন্টারনেট ও ক্যাবল টিভি বন্ধের কর্মসূচি দিয়েছিল সংগঠন দুটি। এ কর্মসূচির আওতায় রোববার থেকে প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত সারাদেশে বাসা-বাড়ি, অফিস ও ব্যাংকসহ সকল পর্যায়ে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট কানেক্টিভিটি এবং ক্যাবল টিভি বা ডিশ বন্ধ রাখার কথা জানানো হয়।

শনিবারের সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার, তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, দক্ষিণ সিটি করপোরেশন এবং সরকারের সংশ্নিষ্ট দপ্তরের আশ্বাসের পরিপ্রেক্ষিতে পূর্ব ঘোষিত কর্মসূচি স্থগিত করেন তারা। 

সংবাদ সম্মেলনে যুক্ত হয়ে টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী বলেন, ইন্টারনেট ও ক্যাবল টিভি সেবাদাতাদের বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে দেখছে সরকার। তিনি ইতোমধ্যে বিষয়টি নিয়ে তথ্যমন্ত্রী, তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রীসহ সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তরের সঙ্গে আলোচনা করেছেন। এলজিআরডি মন্ত্রীকে চিঠি দিয়েছেন। এরপর দুটি সিটি করপোরেশনকে এলজিআরডি হতে চিঠি দেয়া হয়েছে যেন তার না কাটা হয়। মুখ্য সচিবকে সব বিষয় জানানো হয়েছে যাতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিষয়গুলো পৌঁছে দেয়া হয়।

ধর্মঘট-কর্মসূচি স্থগিতের আহ্বান জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, বিষয়টি প্রধানমন্ত্রী রোববার অবহিত হবেন বলে মুখ্যসচিব জানিয়েছেন। তার না কাটার আশ্বাস দিয়ে মোস্তাফা জব্বার বলেন, যতক্ষণ পর্যন্ত গ্রহণযোগ্য সমাধান না হচ্ছে ততক্ষণ পর্যন্ত তার কাটা হবে না।

ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে যুক্ত হয়ে আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, বিষয়টি অত্যন্ত জনগুরুত্বপূর্ণ। এটি নিয়ে আমরা পুরোপুরি আন্তরিক। আমাদের ৭ দিন সময় দিন। এই সময়ের মধ্যে যৌক্তিক সমাধান হয়ে যাবে। এর মধ্যে যেন তার আর কাটা না হয় এটা আমরা দেখব।

এরপর আইএসপিএবি’র সভাপতি আমিনুল হাকিম এবং কোয়াবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এস এম আনোয়ার পারভেজ কর্মসূচি স্থগিতের ঘোষণা দিয়ে বলেন, রোববার দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়রের সঙ্গে তারা বৈঠক করবেন। বৈঠক শেষে তারা পরবর্তী কর্মসূচি ঘোষণা করবেন। এ সময় আইএসপিএবি সাধারণ সম্পাদক এমদাদুল হকসহ সংগঠন দুটির শীর্ষ নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

আইএসপিএবি এবং কোয়াব তাদের ঝুলন্ত তার না কেটে বিকল্প সমাধানে ৫ দফা দাবি নিয়ে গত ১২ অক্টোবর প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে। এতে ১৭ অক্টোবর পর্যন্ত সময়সীমা বেঁধে দেয় সংগঠন দুটি। দাবিগুলোর মধ্যে রয়েছে লাস্ট মাইল ক্যাবল বা গ্রাহক পর্যন্ত সংযোগের স্থায়ী সমাধান না হওয়া পর্যন্ত কোনো ঝুলন্ত ক্যাবল অপসারণ করা যাবে না, আইএসপিএপি, কোয়াব, বিটিআরসি, এনটিটিএন এবং সিটি করপোরেশন সমন্বয়ে লাস্ট মাইল ক্যাবল স্থাপন করা হয়েছে কিনা তা নিশ্চিত করণে একটি কমিটির মাধ্যমে সরেজমিন তদন্তের ব্যবস্থা করা। এছাড়া সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় কর্তৃক বাসা-বাড়ি, অফিস ও ব্যাংকসহ সকল পর্যায়ে ইন্টারনেট ও ক্যাবল টিভি সেবার মূল্য নির্ধারণ, গ্রাহক পর্যায়ে ইন্টারনেট ও ক্যাবল টিভি সেবা স্বল্পমূল্যে দিতে এনটিটিএন এর মূল্য সরকারের নির্ধারণ এবং গ্রাহক পর্যায়ে নিরবিচ্ছিন্ন সেবা প্রদানের নিশ্চয়তার পক্ষে এনটিটিএনগুলো সার্বিক সক্ষমতা আছে কিনা তা যাচাই করা। তবে তাদের কোনো দাবি না মেনে সিটি করপোরেশন তার কাটা অব্যাহত রাখে। ফলে সংগঠন দুটি তার কাটা বন্ধে ইন্টারনেট বন্ধের কর্মসূচি নেয় যা আপাতত স্থগিত করা হলো। এদিকে সংশ্নিষ্টরা বলছেন, ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট বন্ধ রাখা হলে অনলাইন ক্লাস, আউটসোর্সিং, ক্লাউড কম্পিউটিং ভিত্তিক সেবা, ডাটাসেন্টারসহ সামগ্রিক তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি ভিত্তিক ব্যবসাসহ সামগ্রিক অর্থনীতিতে বিরূপ প্রভাব পড়বে। এক্ষেত্রে ইন্টারনেট সেবা অব্যাহত রেখে সমস্যার সমাধান করা জরুরি।

© সমকাল ২০০৫ - ২০২০

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মুস্তাফিজ শফি । প্রকাশক : এ কে আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ (প্রিন্ট), +৮৮০১৮১৫৫৫২৯৯৭ (অনলাইন) | ইমেইল: samakalad@gmail.com (প্রিন্ট), ad.samakalonline@outlook.com (অনলাইন)