পেকুয়ায় যুবককে কুপিয়ে হত্যা, গৃহবধূর হাত কর্তন

প্রকাশ: ২২ ডিসেম্বর ২০ । ২১:০৬ | আপডেট: ২২ ডিসেম্বর ২০ । ২১:১১

পেকুয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধি

প্রতীকী ছবি

কক্সবাজারের পেকুয়ায় অবৈধ বালি মহলের আধিপত্য নিয়ে দু'পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। এ সময় মিন্টু মিয়া (৩৮) নামে এক যুবকে কুপিয়ে হত্যা ও এক গৃহবধূর হাতের কব্জি বিচ্ছিন্ন করে ফেলা হয়েছে। 

মঙ্গলবার বিকেল ৩টার দিকে উপজেলার টইটং ইউনিয়নের জুমপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। মিন্টু মিয়া চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার পুঁইছড়ি ইউনিয়নের পুর্ব পুঁইছড়ি গ্রামের মৃত. আহমদ মিয়ার ছেলে। 

জানা গেছে, সংঘর্ষ চলাকালে হাদিসা বেগম (৩৪) নামে এক গৃহবধূকে কুপিয়ে বাম হাতের কব্জি বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও হাবিবউল্লাহ (২২) নামের এক যুবক গুরুতর আহত হয়েছেন। হাদিসা বেগম টইটং জুমপাড়া গ্রামের জয়নাল আবেদীনের স্ত্রী। 

স্থানীয়রা জানায়, জুম পাড়ায় একটি অবৈধ বালি মহাল নিয়ে একই এলাকার অলি আহমদ প্রকাশ পেঠানের ছেলে জয়নাল আবেদীন ও সীমান্তবর্তী বাঁশখালীর পুর্ব পুঁইছড়ি গ্রামের মৃত. আহমদ মিয়ার ছেলে মিন্টু মিয়ার মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছিল। বালি মজুদ রাখার জমি নিয়ে মূলত দু'পক্ষের মধ্যে দ্বন্দ্ব। আহত গৃহবধূর স্বামী জয়নাল আবেদীন বনবিভাগের রিজার্ভ কিছু জমি মিন্টু মিয়া গংদের কাছ থেকে কিনে নেন। কিন্তু কিছু টাকা বকেয়া থেকে যায়। 

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, এই ঘটনার জেরে মিন্টু, জসিম, নাছিরসহ বাঁশখালীর এলাকার ৮/১০ জন যুবক ধারালো অস্ত্র নিয়ে জয়নালের বাড়িতে হানা দেন। এ সময় তারা জয়নালকে টানা হেচড়া করে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে আসেন। পরে জুমপাড়া জামে মসজিদ সংলগ্ন কালভার্টের ওপর দু'পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন।

জয়নাল আবেদীনের মা হানু আরা বেগম বলেন, দুপুরে খেয়ে আমরা বিশ্রাম নিচ্ছিলাম। পরে বিকেলে মিন্টুসহ ৮/১০ জন বাড়িতে এসে জয়নালকে ডেকে দরজা খুলতে বলে। তারা আমার ছেলের কাছ থেকে দুই লাখ টাকা চাঁদাদাবি করে। এসময় তারা আমার ছেলেকে টেনে হিঁচড়ে কালভার্টের কাছে নিয়ে যায়। এ সময় পুত্রবধূ হাদিসা বেগমসহ আমরা তাকে উদ্ধারের চেষ্টা করি। এসময় হামলাকারীরা ধারালো কিরিচ দিয়ে কোপ দিয়ে হাদিসার বাম হাতের কব্জি বিচ্ছিন্ন করে ফেলে। আমার ছেলে হাবিবউল্লাহকে কুপিয়ে মারাত্বক জখম করে। 

নিহত মিন্টু মিয়ার ছোট ভাই হেফাজ উদ্দিন জানায়, আমার ভাইকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছে। এটি পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড। 

টইটং ইউপির প্যানেল চেয়ারম্যান শাহাব উদ্দিন জানায়, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখি কালভার্টের ওপরে একজনের লাশ পড়ে আছে। বালি মহালের বিরোধ নিয়ে খুনাখুনি হয়েছে। 

স্থানীয়রা জানায়, মিন্টু একজন সন্ত্রাসী। তার বিরুদ্ধে ৪টি হত্যা, ডাকাতি, বন মামলাসহ ডজনখানেক মামলা রয়েছে। এসব মামলায় তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা রয়েছে। দুর্গম পাহাড়ি জায়গা হওয়ায় অপরাধ করে সে সহজে পার পেয়ে যায়।

পেকুয়া থানার ওসি (তদন্ত) কানন সরকার জানান, খবর পেয়ে নিহতের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। সুরতহাল রিপোর্ট শেষে ময়নাতদন্তের জন্য লাশ মর্গে পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে। 

© সমকাল ২০০৫ - ২০২২

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com