খালার সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্কের জেরে রনি হত্যাকাণ্ড: পুলিশ

প্রকাশ: ২৪ ডিসেম্বর ২০ । ২১:৩৫ | আপডেট: ২৪ ডিসেম্বর ২০ । ২১:৪৮

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি

নিহত রফিকুল ইসলাম রনি

নারায়ণগঞ্জ থেকে নিখোঁজের ১ মাস ২০ দিন পর বুধবার রাতে মুন্সীগঞ্জের রামপালে সেপটি ট্যাংক থেকে রফিকুল ইসলাম রনি নামের এক যুবকের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় রনির খালা সুলতানা রাজিয়া রুমা ও বাড়ির গৃহকর্মী আম্বিয়াকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। 

নিহত রনি নারায়ণগঞ্জ ফতুল্লা থানার লালপুর এলাকার মৃত কাজি জাহিরউদ্দিনের ছেলে। খালার সঙ্গে ভাগ্নের প্রেমের সম্পর্কের জের ধরে এ হত্যাকাণ্ড ঘটেছে বলে প্রাথমিক তদন্তে পুলিশ নিশ্চিত হয়েছে।

এদিকে মামলার তদন্তের স্বার্থে অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য বৃহস্পতিবার গ্রেপ্তার দু’জনকে মুন্সীগঞ্জ আদালতে পাঠিয়ে ৭ দিনের রিমান্ডের আবেদন করে পুলিশ। পরে বিচারক ২ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।

মুন্সীগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) আশফাকুজ্জামান জানান,  নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থানায় গত ৬ নভেম্বরের নিখোঁজ ডাইরির তদন্তে রনি গত ৩ নভেম্বর মুন্সীগঞ্জের রামপালে তার খালা সুলতানা রাজিয়া রুমার বাড়িতে এসেছিল বলে তথ্য পাওয়া যায়। তাই এ বিষয়ে খালাকে জিজ্ঞাসাবাদের একপর্যায়ে সেপটি ট্যাংকে রনির লাশ লুকিয়ে রাখার কথা জানিয়ে স্বীকারোক্তি দেন তিনি। তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতেই বুধবার রাত সাড়ে ৮টায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে সেফটি ট্যাংক থেকে রনির মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আরো জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে নিহতের খালা রুমা জানিয়েছে, ভাগ্নে রনির সঙ্গে তার দীর্ঘদিনের অনৈতিক সম্পর্ক ছিলো৷ গত ৩ নভেম্বর রাতে রনি তার বাসায় রাতযাপন করেন। পরদিন সকালে কামাল নামে এক আত্মীয় বাড়িতে আসলে ধরা পড়ার ভয়ে রনি ঘরের একটি  কাঠের সিন্দুকের ভেতর লুকিয়ে পড়েন। এ সময় সিন্দুকটির দড়জা আকস্মিক বন্ধ হয়ে যায়। কিছুক্ষণ পর আগত আত্মীয় চলে গেলে সিন্দুক খুলে রুমা দেখতে পান, শ্বাসরোধ হয়ে রনি মারা গেছেন। এ অবস্থায় দিশেহারা হয়ে পড়া খালা রুমা পরদিন ভোর রাতে কাজের মেয়ে আম্বিয়ার  সহযোগিতায় নিহত রনির লাশ বাড়ির পরিত্যক্ত সেপটি ট্যাংকে ফেলে দেয়।

নিহত রনির ছোট ভাই মো. জনি দাবি করে বলেন, 'শেয়ার বাজারে আমার খালা রুমার সঙ্গে ভাই রনির ব্যবসা ছিল। রুমা রামপালের মৃত হায়দার সিকদারের মেয়ে। শেয়ার বাজারে ব্যবসার টাকার জন্য পরিকল্পিতভাবে আমার ভাইকে হত্যা করা হয়েছে।' 

মুন্সীগঞ্জের হাতিমারা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ মো. রাজিব খান জানান, লাশ উদ্ধারের পর ময়নাতদন্তের জন্য মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। 

© সমকাল ২০০৫ - ২০২২

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com