হামলার প্রতিবাদ করতে গিয়ে দোকান ভাঙচুর

২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১

বাউফল (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি

বাউফল পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ইব্রাহিম ফারুকসহ ৬ জনকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে আহত করার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ হয়েছে। এ প্রতিবাদ সমাবেশ করেন সাবেক চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজ এমপি সমর্থিত উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।

মিছিল চলাকালে বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা কুণ্ডপট্টি বাজারে ১০ থেকে ১৫টি দোকান, একটি শিশু পার্ক ভাঙচুর করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। সোমবার সকালে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে পৌর মেয়র জিয়াউল হক জুয়েল সমর্থিত হেমায়েত উদ্দিন, রেজাউল ও হিরু নামে তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় পৌর শহরে ফের হামলার আতঙ্ক বিরাজ করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে বিভিন্ন স্থানে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও চেয়ারম্যান আবদুল মোতালেব হাওলাদার, আওয়ামী লীগ সহসভাপতি উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোশারেফ হোসেন খান এবং নারী ভাইস চেয়ারম্যান মরিয়ম আক্তার নিশুর নেতৃত্বে থানার সামনের সড়কে বিক্ষোভ প্রদর্শন ও দোষীদের বিচার দাবি করা হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন ভাইস চেয়ারম্যান মোশারেফ হোসেন খান। প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান ও দলীয় সম্পাদক আব্দুল মোতালেব হাওলাদার। অতিথি ছিলেন সাংগঠনিক সম্পাদক আনোয়ার হোসেন, চেয়ারম্যান শাহিন হাওলাদার, যুবলীগ সভাপতি শাহজাহান সিরাজ, সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহম্মেদ মনির।

বাউফল উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আবদুল মোতালেব হাওলাদার জানান, ইব্রাহিম ফারুক প্রতিদিনের মতো আজও দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে যাত্রীছাউনিতে আলাপচারিতা করছিলেন। মেয়র জিয়াউল হক জুয়েলের লোকজন বিনা উস্কানিতে ইব্রাহিম ফারুকসহ দলীয় নেতাকর্মীদের ওপর হামলা চালায়। এ হামলায় জড়িতদের গ্রেপ্তার দাবি করছি।

পৌর মেয়র সমর্থিত উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মাহমুদ রাহাত জামসেদ বলেন, তাদের শান্তিপূর্ণ মিছিলে চেয়ারম্যান ইব্রাহিম ফারুকের নির্দেশে লাঠিসোটা নিয়ে হামলা চালানো হয়। এতে প্রায় ১০ জন আহত হন।

বাউফল থানার ওসি খন্দকার মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, পরিস্থিত স্বাভাবিক রয়েছে। জড়িতদের তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

২১ ফেব্রুয়ারি শহীদ মিনারে ফুল দেওয়া নিয়ে মেয়র ও এমপি গ্রুপের মধ্যে হাতাহাতি হয়। এর প্রতিবাদে রোববার মেয়র জিয়াউল হক জুয়েল সমর্থিত উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাইদুর রহমান হাসান ও সম্পাদক মাহমুদ রাহাত জামসেদের নেতৃত্বে অর্ধশতাধিক নেতাকর্মীকে নিয়ে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি উপজেলা পরিষদের হাসপাতাল এলাকা প্রদক্ষিণ করে ফেরার পথে যাত্রীছাউনিতে অবস্থানরত পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি ইব্রাহিম ফারুকসহ উপস্থিত দলীয় নেতাকর্মীদের ওপর হামলা চালায়। এ সময় উভয়পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।

© সমকাল ২০০৫ - ২০২১

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মুস্তাফিজ শফি । প্রকাশক : এ কে আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ (প্রিন্ট), +৮৮০১৮১৫৫৫২৯৯৭ (অনলাইন) | ইমেইল: samakalad@gmail.com (প্রিন্ট), ad.samakalonline@outlook.com (অনলাইন)