আলজাজিরার প্রতিবেদন

রাষ্ট্রদ্রোহের মামলার আবেদন ফেরত

২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১

আদালত প্রতিবেদক

কাতারভিত্তিক টেলিভিশন চ্যানেল আলজাজিরার মহাপরিচালক ও প্রধান সম্পাদকসহ চারজনের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলার আবেদন ফেরত দিয়েছেন আদালত। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন না থাকায় ঢাকা মহানগর হাকিম শহিদুল ইসলাম গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে আবেদনটি ফেরত দেন।

এর আগে সকালে মামলার বাদীপক্ষের আইনজীবীদের আইনগত বিষয়ের ওপর শুনানি হয়। এদিন আদালত জানতে চান, বিদেশি নাগরিকের বিরুদ্ধে এ দেশে মামলা চলতে পারে কিনা? জবাবে মামলার আইনজীবী আব্দুল খালেক বলেন, আমরা দণ্ডবিধির ৩ ও ৪ ধারা ব্যাখ্যা করে বলেছি, এই মামলা বিদেশি নাগরিকের বিরুদ্ধে চলতে পারে।

দণ্ডবিধির ৩ ধারায় বলা হয়েছে, বাংলাদেশের আইন বলে বিচারযোগ্য যে কোনো অপরাধের বিচার দেশের বাইরে হলেও তা দেশীয় আইনে করা যাবে। ৪ ধারায় বলা হয়েছে, বিদেশে অবস্থানরত বাংলাদেশের নাগরিককেও এই আইনের আওতায় বিচার করা যাবে। এ ছাড়া ফৌজদারি কার্যবিধির ১৯০ ধারা অনুযায়ী ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা গ্রহণের ক্ষমতার বিষয়টি ব্যাখ্যা করেন। বিকেলে আদালত বলেন, রাষ্ট্রদ্রোহের মামলায় ফৌজদারি কার্যবিধির ১৯৬ ধারায় যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমোদন না নেওয়ায় মামলাটি ফেরত দেওয়া হলো।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদকে নিয়ে 'মিথ্যা ও বানোয়াট' তথ্য প্রচারের অভিযোগে গত ১৭ ফেব্রুয়ারি বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের নির্বাহী সভাপতি মশিউর মালেক মামলা করেন। আদালত পরদিন আদেশের জন্য ২৩ ফেব্রুয়ারি দিন ধার্য করেন। মামলার আসামিরা হলেন- আলজাজিরার মহাপরিচালক ও প্রধান সম্পাদক মোস্তেফা সোউয়াগ, হাঙ্গেরি প্রবাসী বাংলাদেশি শায়ের জুলকারনাইন ওরফে সামি, সুইডেন প্রবাসী বাংলাদেশি ও নেত্র নিউজের সম্পাদক তাসনিম খলিল এবং ব্রিটিশ সাংবাদিক ডেভিড বার্গম্যান।

মামলার আর্জিতে বলা হয়, গত ১ ফেব্রুয়ারি রাতে প্রচারিত 'অল দ্য প্রাইম মিনিস্টারস মেন' শিরোনামের প্রতিবেদনে আসামিরা পরস্পর যোগসাজশে বাংলাদেশ সরকার ও রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে অপপ্রচার চালিয়ে রাষ্ট্রবিরোধী কর্মকাণ্ড চালিয়ে রাষ্ট্রদ্রোহমূলক অপরাধে লিপ্ত আছেন।

আবেদনে আরও বলা হয়, আসামিরা তাদের এই অবৈধ ষড়যন্ত্রমূলক কার্যক্রমের মাধ্যমে দেশের মধ্যে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি করে বৈধভাবে প্রতিষ্ঠিত সরকারকে প্রশ্নবিদ্ধ করে উৎখাত করার ষড়যন্ত্র চালাচ্ছে, যা বাংলাদেশের দণ্ডবিধির ১২৪/১২৪(এ)/১০৯/৩৪ ধারায় অপরাধ।

মশিউর মালেক বলেন, প্রধানমন্ত্রী ও সেনাপ্রধানের বিরুদ্ধে সম্মানহানিকর বক্তব্য প্রচার করে যড়যন্ত্র করা হয়েছে। তারা মিথ্যা ও বানোয়াট তথ্য দিয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করেছে, যা রাষ্ট্রদ্রোহের শামিল। মামলা ফেরতের বিষয়ে তিনি বলেন, আদালত ফিরিয়ে দিলেও মামলা খারিজ করেননি। আশা করি, মামলাটি পরে নেওয়া হবে।





© সমকাল ২০০৫ - ২০২১

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মুস্তাফিজ শফি । প্রকাশক : এ কে আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com