পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়

পরীক্ষার ফাঁদে আটকে গেলেন বহু শিক্ষার্থী

২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১

সাব্বির নেওয়াজ

মঙ্গলবার জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ রফিক-জব্বার হল সিলগালা করে প্রশাসন -সমকাল

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে অধিভুক্ত সরকারি-বেসরকারি কলেজগুলোতে স্নাতক (অনার্স) ও স্নাতকোত্তর (মাস্টার্স) শিক্ষার্থীদের চূড়ান্ত পর্বের পরীক্ষা শুরু হয়েছিল গত বছর মার্চে। কয়েকটি পরীক্ষা দেওয়ার পর করোনার কারণে বাকিগুলো আটকে যায়। চলতি ফেব্রুয়ারিতে তা শুরু হলেও গতকাল সরকারের ঘোষণায় আবার স্থগিত হয়ে যায়।

কিশোরগঞ্জ সরকারি গুরুদয়াল কলেজের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী নুরুল ইসলাম সমকালকে বলেন, 'আমাদের শুধু ব্যবহারিক পরীক্ষা বাকি। এটি নিতে দিলে কার কী ক্ষতি হতো? আমাদের তো সরকারি চাকরির বয়স পেরিয়ে যাচ্ছে।'

চলমান পরীক্ষাগুলো হঠাৎ স্থগিত করায় নুরুল ইসলামের মতো কয়েক হাজার শিক্ষার্থী বিপাকে পড়েছেন। তাদের ভাষ্য, করোনার কারণে এমনিতেই বিশ্ববিদ্যালয়ে সেশনজটের সৃষ্টি হয়েছে। জীবন থেকে চলে গেছে একটি বছর। এ অবস্থায় চলমান পরীক্ষাগুলো স্থগিত না করে শেষ করতে দেওয়া যেত। ২৪ মের আগে নতুন করে কোনো পরীক্ষার সূচি ঘোষণা না করলেই চলত।

পরীক্ষা স্থগিত হওয়ায় অনেকেই হতাশ হয়েছেন। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের মাস্টার্সের ছাত্র মঈনউদ্দীন সমকালকে বলেন, আমার বাড়ি কক্সবাজার। পরীক্ষা দিতে বন্ধের মধ্যে রাজশাহী এসে মেসে আছি। তিনটি পরীক্ষা দিয়েছি, তিনটি বাকি রয়েছে। এখন আবার বাড়ি ফিরে যেতে হবে।

মার্চে জুডিশিয়াল সার্ভিসে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি হওয়ার কথা। পরীক্ষা শেষ হলে এ জন্য প্রস্তুতি নিতে পারতেন বলে হতাশার কথা জানান মঈন। একইভাবে তার বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছয়টি কোর্সের মধ্যে একটি কোর্সের পরীক্ষা বাকি ছিল।

এ ছাড়া রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের নৃবিজ্ঞান বিভাগে মাস্টার্সের আটটি কোর্স। এর মধ্যে তিনটির পরীক্ষা শেষ হয়েছে। ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের ছয়টি বিভাগের মধ্যে দুটিতে পরীক্ষা চলছিল। হিসাব ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের এমবিএ দ্বিতীয় সেমিস্টারের পরীক্ষা শুরু হয়েছিল। পাঁচটি কোর্সের মধ্যে একটির পরীক্ষা হয়েছে। ফাইন্যান্স বিভাগের এমবিএ প্রথম সেমিস্টারের পাঁচটি কোর্সের মধ্যে তিনটি পরীক্ষা হয়েছে। বিজ্ঞান অনুষদের অধীনে পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের মাস্টার্সের দুটি কোর্সের লিখিত পরীক্ষা বাকি থাকতে স্থগিত হয়ে গেছে পরীক্ষা। রসায়ন বিভাগের অনার্স শেষ বর্ষের লিখিত পরীক্ষা শেষ হয়েছে, ব্যবহারিক ও মৌখিক পরীক্ষা আটকে গেছে। আর চারুকলা অনুষদের (পুরোনো) অনার্স শেষ বর্ষের পরীক্ষা আজ ২৪ ফেব্রুয়ারি শুরু হওয়ার কথা ছিল।

গত সোমবার দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর খোলার সময়সূচি ঘোষণা করেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। তিনি আগামী ২৪ মে থেকে সারাদেশের সরকারি ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দেওয়ার ঘোষণা দেন। আর ১৭ মে থেকে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সব আবাসিক হল খুলে দেওয়ার কথা জানান। মন্ত্রী বলেন, ২৪ মের আগে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোয় কোনো পরীক্ষা হবে না। তবে অনলাইনে ক্লাস চলবে। মন্ত্রীর এ ঘোষণার পর মঙ্গলবার থেকে দেশের সব সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের চলমান পরীক্ষাগুলো স্থগিত করা হয়।

বর্তমানে দেশে ৪৬টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষা কার্যক্রম চালু আছে। এ ছাড়া অনুমোদিত বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় আছে ১০৭টি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান বলেন, যেসব বড় বড় পরীক্ষার রুটিন করা হয়েছিল, তা স্থগিত করা হয়েছে। কারণ, সেগুলো শিক্ষার্থীদের হলে থাকার সঙ্গে সংশ্নিষ্ট। তবে যেসব বিভাগের কয়েকটি পরীক্ষা হয়েছে, দু-একটি বাকি আছে, সে পরীক্ষাগুলোর বিষয়ে বিভাগ এবং অনুষদ সিদ্ধান্ত নেবে।

অধিভুক্ত সাত সরকারি কলেজের পরীক্ষার বিষয়ে উপাচার্য বলেন, কলেজগুলোর সমন্বয়কারী অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বৈঠক করেন। পরে সন্ধ্যায় সাত কলেজের অধ্যক্ষের সঙ্গে বৈঠকে পরীক্ষা স্থগিতের সিদ্ধান্ত হয়। এ সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে রাতে বিক্ষোভ করেছেন শিক্ষার্থীরা। তারা নীলক্ষেত মোড় অবরোধ করেন।

শিক্ষামন্ত্রীর ঘোষণার পর জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ও বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়েরও কয়েকশ পরীক্ষার্থীর পরীক্ষা আটকে গেছে। এ দুটি বিশ্ববিদ্যালয়ের অনলাইন পরীক্ষাগুলোও স্থগিত করা হয়েছে। একই চিত্র বেশিরভাগ পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়েই।

তবে আগের সূচি অনুযায়ী গতকাল মঙ্গলবারও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের দুটি বিভাগের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সপ্তম সেমিস্টারের পরীক্ষা এবং পদার্থবিদ্যা বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ব্যবহারিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার এস এম মনিরুল হাসান সমকালকে বলেন, সরকারি সিদ্ধান্তের প্রজ্ঞাপন পেলে তারা সব পরীক্ষা স্থগিত করবেন।





© সমকাল ২০০৫ - ২০২১

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মুস্তাফিজ শফি । প্রকাশক : এ কে আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ (প্রিন্ট), +৮৮০১৮১৫৫৫২৯৯৭ (অনলাইন) | ইমেইল: samakalad@gmail.com (প্রিন্ট), ad.samakalonline@outlook.com (অনলাইন)