এবার আন্দোলনে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা

বিভিন্ন স্থানে অবরোধ-বিক্ষোভে পুলিশের বাধা

২৬ ফেব্রুয়ারি ২১ । ০০:০০

বিশেষ প্রতিনিধি

বৃহস্পতিবার রাজধানীর শাহবাগে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত কলেজের শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ চলাকালে কয়েকজনকে আটক করে পুলিশ - সমকাল

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত সাত কলেজের শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেওয়ার পর জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত কলেজের শিক্ষার্থীরাও একই দাবিতে এবার মাঠে নেমেছেন। গতকাল বৃহস্পতিবার এ দাবিতে দেশের বিভিন্ন স্থানে সড়ক অবরোধ, মানববন্ধন ও বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছেন তারা। রাজধানীর শাহবাগে পুলিশের বাধার মুখে স্থগিত হওয়া পরীক্ষা গ্রহণের দাবিতে করা আন্দোলন আগামী রোববার পর্যন্ত স্থগিত করা হয়েছে। এ সময়ের মধ্যে পরীক্ষার স্থগিতাদেশ বাতিল না করলে কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দেন তারা।

দেশজুড়ে বিভিন্ন স্থানে শিক্ষার্থীরা পরীক্ষা নেওয়ার দাবিতে আন্দোলন করলেও জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ঈদের পর ২৪ মে থেকে ফের পরীক্ষা শুরুর কথা জানিয়ে গতকাল নতুন সূচি ঘোষণা করেছে। এদিকে, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের চলমান পরীক্ষা গ্রহণে তিন দিনের আলটিমেটাম দিয়েছে বাংলাদেশ ছাত্র মৈত্রী। গতকাল সন্ধ্যায় সংগঠনটির কেন্দ্রীয় সভাপতি কাজী আব্দুল মোতালেব জুয়েল ও সাধারণ সম্পাদক অতুলন দাস আলো যৌথ বিবৃতিতে এই আলটিমেটাম দেন। এ ছাড়া একই দাবিতে সন্ধ্যায় মশাল মিছিল বের করেছে ছাত্র ফেডারেশন, বিপ্লবী ছাত্র মৈত্রী, গণতান্ত্রিক ছাত্র কাউন্সিল ও পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক জানান, শিক্ষার্থীরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে এসে আগামী রোববার পর্যন্ত আন্দোলন স্থগিতের ঘোষণা দেন। এ সময়ের মধ্যে পরীক্ষার স্থগিতাদেশ বাতিল করা না হলে কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দেন তারা।

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ- পুলিশ তাদের 'ভিপি নুরুর লোক' অ্যাখ্যা দিয়ে ধাক্কাধাক্কি করে সরিয়ে দিয়েছে। যদিও তারা কোনো দলের হয়ে আসেননি। তাদের অনার্স-মাস্টার্সের অল্প কিছু বিষয়ের পরীক্ষা বাকি আছে। এমন পর্যায়ে পরীক্ষা স্থগিতের সিদ্ধান্ত অযৌক্তিক। সাত কলেজের চলমান পরীক্ষা নেওয়া গেলে তাদের পরীক্ষা নিতে সমস্যা কোথায়?

পুলিশের রমনা জোনের উপ-কমিশনার (ডিসি) সাজ্জাদুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, শাহবাগ একটি ব্যস্ত এলাকা। এখানে অনেক হাসপাতাল রয়েছে। জনদুর্ভোগ এড়াতে ও যান চলাচল নির্বিঘ্ন রাখতে শিক্ষার্থীদের উঠে যেতে বলেছি। এদিকে, শাহবাগ থেকে ১৩ শিক্ষার্থীকে আটক করা হলেও তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করে সন্ধ্যায় ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ।

বরিশাল ব্যুরো জানায়, সকাল সাড়ে ১১টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত ব্রজমোহন (বিএম) কলেজের শিক্ষার্থীরা কলেজ সংলগ্ন সাম?নের সড়কটি অবরোধ ক?রে রাখে। ফলে নথুল্লাবাদ কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল থেকে নগরীর প্রাণকেন্দ্রে প্রবেশের ওই সড়কে যান চলাচল আড়াই ঘণ্টা বন্ধ ছিল। অবরোধ চলাকালে দুপুর সাড়ে ১২টার দি?কে অধ?্যক্ষ গোলাম কিব?রিয়া শিক্ষার্থী?দের নানা আশ্বাস দিলেও তারা আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার কথা বলেন। দুপুর ২টার দিকে শিক্ষার্থীরা অবরোধ তুলে নেন। মহানগর পুলিশের সহকারী কমিশনার (কোতোয়ালি) মো. রাসেল জানান, শিক্ষার্থীরা যাতে বিশৃঙ্খলা করতে না পারে সে জন্য বিএম কলেজ এলাকায় পুলিশ সতর্ক অবস্থায় আছে।

নেত্রকোনা প্রতিনিধি জানান, নেত্রকোনা সরকারি কলেজসহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা দুপুর ১২টা থেকে সাড়ে ১২টা পর্যন্ত নেত্রকোনা জেলা প্রেস ক্লাবের সামনের সড়কে জড়ো হয়ে মানবন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেন। মানববন্ধন শেষে শিক্ষার্থীরা মিছিল নিয়ে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের উদ্দেশে রওনা দিলে হঠাৎ করে পুলিশ তাদের ওপর লাঠিচার্জ শুরু করে। এতে নিউজ২৪ ও দৈনিক সংবাদের জেলা প্রতিনিধি সোহান আহমেদ কাকনসহ কমপক্ষে সাতজন শিক্ষার্থী আহত হন। তাদের মধ্যে ফাহিম খান পাঠান, ইমরান হোসেন, শাহনুর আলম, আতিকুর রহমান, জিহাদ মিয়া ও খায়রুল ইসলামকে নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়।

পুলিশ সুপার আকবর আলী মুন্‌সী বলেন, শিক্ষার্থীদের মিছিলে পুলিশের লাঠিচার্জ খুবই দুঃখজনক। এ ঘটনায় এসআই সাদেকুজ্জামান ভূঁইয়া ও কনস্টেবল ওমর ফারুককে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইনে নেওয়া হয়েছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

মাদারীপুর সংবাদদাতা জানান, দুপুর ১২টার দিকে মাদারীপুর সরকারি কলেজ থেকে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে কলেজ গেট এলাকার মাদারীপুর-শরীয়তপুর আঞ্চলিক মহাসড়ক অবরোধ করেন শিক্ষার্থীরা। এ সময় সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। পরে প্রশাসনের আশ্বাসে অবরোধ তুলে নেন তারা। সদর থানার ওসি কামরুল ইসলাম মিঞা বলেন, শিক্ষার্থীদের বুঝিয়ে বললে তারা অবরোধ তুলে নেন।





© সমকাল ২০০৫ - ২০২১

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com