'মুভমেন্ট পাস' বিড়ম্বনা নিয়ে বিবৃতি দিল ডিএমপি

প্রকাশ: ১৫ এপ্রিল ২১ । ২৩:৫৬

সমকাল প্রতিবেদক

করোনাভাইরাস সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে সর্বাত্মক লকডাউনে জরুরি প্রয়োজনে ঘরের বাইরে যেতে পুলিশের 'মুভমেন্ট পাস' নিয়ে বিড়ম্বনার শিকার হওয়া নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবরের প্রেক্ষাপটে বৃহস্পতিবার বিবৃতি দিয়েছে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি)।

বিবৃতিতে যাতায়াতের সময় আইডি কার্ড দেখাতে যারা ব্যর্থ হয়েছেন তাদের যাচাই বাছাই করা চলমান বিধি নিষেধের পরিপ্রেক্ষিতে যৌক্তিক বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

একই সঙ্গে পুলিশের কাজে সহায়তা করতে নাগরিকদের অনুরোধ জানিয়ে ডিএমপি বলেছে, প্রয়োজনে কর্তৃপক্ষকে জানালে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, জরুরি প্রয়োজনে নিয়োজিত ব্যক্তিরা ছাড়া অন্যরা যাতে বিনা কারণে বা উপযুক্ত পাস ছাড়া রাস্তার বের হতে না পারেন তা নিশ্চিত করতে ২৪ ঘণ্টা ডিএমপি'র সদস্যরা রাস্তায় দাঁড়িয়ে কাজ করছেন।

এতে আরও বলা হয়েছে, '১৪ ও ১৫ এপ্রিল সাধারণ মানুষের সহযোগিতা নিয়ে বিধিনিষেধ বাস্তবায়নের কাজ অনেকটা সফলতার সঙ্গেই শেষ হয়েছে। যদিও বিনা কারণে রাস্তায় বের হওয়া ব্যক্তি এবং বিভিন্ন পরিসেবায় নিযুক্ত ব্যক্তিদের মধ্যে পার্থক্য বের করা কষ্টকর কাজ। কেননা কিছু কিছু ব্যক্তি সুনির্দিষ্ট কারণ ছাড়া গাড়ি নিয়ে বের হওয়ায় তাদের নিয়ন্ত্রণ করতে পুলিশকে সারাদিন গলদঘর্ম হতে হয়েছে।'

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, 'কিছু গণমাধ্যমে এবং গণমাধ্যমের কিছু ব্যক্তি পুলিশের চেকপোক্টে বিড়ম্বনার শিকার হয়েছেন বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। এমন ঘটনার একটিতে দেখা যায়, কারওয়ান বাজারে পুলিশ একটি প্রাইভেট কারের ড্রাইভারকে বাইরে আসার কারণ জিজ্ঞাসা করলে তিনি গাড়িটি একজন চিকিৎসকের বলে জানান। কিন্তু চিকিৎসক গাড়ীতে উপস্থিত না থাকায় এবং ড্রাইভার সেই চিকিৎসকের সাথে যোগাযোগ করতে ব্যর্থ হওয়ায় গাড়ির কাগজপত্র দেখাতে বলা হয়। কিন্তু গাড়ির কাগজপত্র দেখার পর গাড়ির মালিকের সাথে চিকিৎসকের সামঞ্জস্য না থাকায় ড্রাইভারের বক্তব্যের সত্যতা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দেয়।'

বিজ্ঞপ্তিতে একজন চিকিৎসকের গাড়ি কয়েক জায়গায় থামানোর কারণে হাসপাতালে পোঁছাতে দেরি হওয়া প্রসঙ্গে বলা হয়, জাহাঙ্গীর গেট সংলগ্ন চেকপোস্টে তিনি ৩০ সেকেন্ডের মত আটকে ছিলেন।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, 'যাতায়াতের সময় যারা আইডি কার্ড দেখাতে ব্যর্থ হয়েছেন তাদেরকেই যাচাই বাছাই করা হয়েছে, যেটি চলমান বিধি নিষেধের প্রেক্ষিতে যৌক্তিক একটি বিষয়। মহামারী সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে সরকারি বিধিনিষেধ মেনে চলা সব নাগরিকের সমান দায়িত্ব।'

বিজ্ঞপ্তিতে পুলিশ সদস্যরা যাতে অপেশাদার আচরণ না করেন, সে জন্য তাদের মনিটর করা এবং যথাযথ দায়িত্ব পালনে উদ্বুদ্ধ করাসহ প্রশিক্ষণ চলমান রয়েছে বলে জানানো হয়েছে।

© সমকাল ২০০৫ - ২০২২

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com