বোট ক্লাবে পার্টি করতে যাইনি: পরীমণি

প্রকাশ: ১৪ জুন ২১ । ২১:৩৮ | আপডেট: ১৪ জুন ২১ । ২৩:৩০

সমকাল প্রতিবেদক

অভিনেত্রী পরীমণি- সমকাল

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সমালোচকদের তির্যক মন্তব্যের জবাব দিয়েছেন চিত্রনায়িকা পরীমণি।

ঢাকা বোট ক্লাবে নিগ্রহের কথা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ করার পর পরীমণির চারিত্রিক দিক নিয়ে বিরূপ মন্তব্য করেছেন ফেসবুক ব্যবহারকারীদের একাংশ। তারা প্রশ্ন তুলেছেন, বোট ক্লাবে মদের পার্টিতে কেন গিয়েছিলেন পরীমণি।

সমালোচকদের তির্যক মন্তব্যের জবাব দিতে গিয়ে পরীমণি সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘আপনাদের কি মনে হয়, আমরা পার্টি করার মুডে ছিলাম ? মদ খেতে গিয়েছিলাম? একটু যদি ভাবেন।’

সোমবার সন্ধ্যায় বনানীতে নিজ বাসায় ডিজাইনার বন্ধু জিমিকে নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে আসেন পরীমণি।

ডিজাইনার জিমির বন্ধু অমির কথায় বিশ্বাস করেই পরীমণিরা উত্তরা বোট ক্লাবে গিয়েছিলেন। অমির অনুরোধেই ক্লাবের ভেতরে যেতে হয়েছিল তাদের।

গত সপ্তাহে আশুলিয়ার বেরিবাধে ঢাকা বোট ক্লাবে যাওয়ার পর ব্যবসায়ী নাসির উদ্দিন মাহমুদ ও তার সহযোগীরা ‘ধর্ষণ ও হত্যার চেষ্টা’ করেন বলে অভিযোগ আনেন পরীমণি।

এ ঘটনায় পর সোমবার সাভার মডেল থানায় নাসির উদ্দিন মাহমুদ (৫০), অমিসহ (৪১) অজ্ঞাতনামা চার জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন পরীমনি। সোমবার বিকালে রাজধানীর উত্তরা থেকে ডিবি পুলিশ গ্রেপ্তার করে আসামিদের।

আসামিদের গ্রেপ্তারে স্বস্তি প্রকাশ করে পরীমনি বলেছেন, ‘এবার ঘটনার তদন্ত হোক।’

সংবাদ সম্মেলনে পরীমণি নিজের উপর হওয়া নির্যাতনের ঘটনা বর্ণনা দিয়ে বলেন, ‘আমরা সত্যিই সেখানে যাওয়ার মতো অবস্থায় ছিলাম না। ঘরোয়া কাপড়চোপড় পরে কি যাওয়া যায়? পরে তারা বেনজীর ভাইয়ের (আইজিপি বেনজীর আহমেদ) কথা বলে। আমাদের সাথে থাকা ছোট বোনের ওয়াশরুমে যাওয়ার দরকার ছিল।’

পরীমণিরা দ্রুত ঢাকা বোট ক্লাব থেকে বের হয়ে যেতে চাইলেও অমি তাদের জোর করেই আটকে রাখছিলেন বলে জানান পরী।

জিমির ক্ষতস্থান দেখিয়ে পরীমনি বলেন, ‘অমি তো বাধা দিতে পারত। কিন্তু সেটা না করে জিমিকে ব্লেইম করছে।’

রোববার সন্ধ্যায় নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগ এনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে বিচার দাবি করেন পরীমণি। এরপর রাত সাড়ে ১০টায় তার বনানীর বাসভবনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে ঘটনার বিস্তারিত জানান তিনি।

সেদিন তিনি অভিযোগ করেন, এ ঘটনার প্রেক্ষিতে বনানী থানায় মামলা করতে গেলেও পুলিশ মামলা নেয়নি। বনানী থানা বলছে, পরীমণি থানাতেই যাননি।

পরীর পক্ষে-বিপক্ষে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চলছে আলোচনা, সমালোচনা।


 


 


 


 

© সমকাল ২০০৫ - ২০২১

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মুস্তাফিজ শফি । প্রকাশক : এ কে আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com