পাহাড়ধস

পার্বত্য অঞ্চলের শোক মিছিল!

প্রকাশ: ০৩ আগস্ট ২১ । ১৪:৫৯

সজীব ওয়াফি

মাঝারি বা ভারি বৃষ্টি হলেই সাম্প্রতিক বছরগুলোতে চট্টগ্রামাঞ্চলে বেড়েছে পাহাড় ধসের পরিমাণ। মাটির নিচে চাপা পড়ে ঘটছে মর্মান্তিক মৃত্যু। পার্বত্য এলাকাজুড়ে ক্ষুদ্র নৃতাত্ত্বিক গোষ্ঠীর মানুষের সংখ্যা বেশি। কয়েকশ বছর ধরে পাহাড়ের সঙ্গে তাদের বসবাস। ক্ষুদ্র নৃতাত্ত্বিক গোষ্ঠীর এই মানুষেরা পাহাড় ধসে মাটিচাপায় কখনও মারা গেছে? যায়নি, গেলেও দুর্ঘটনার সংখ্যাটা একেবারেই অল্প। এর প্রধানতম কারণ পাহাড় পাঠ।

সংখ্যালঘু চাকমা, মারমা এবং ত্রিপুরাসহ ক্ষুদ্র জাতিগুলো পাহাড়ে বসবাস করছে বহুকাল ধরে। গত শতাব্দীর শেষাংশে তাদের সঙ্গে পাহাড়ে থাকা শুরু করেছে বাঙালিরাও। বাঙালি জনগোষ্ঠীর এই অংশ নদীভাঙনে ভিটামাটি হারিয়ে অথবা কোনো না কোনোভাবে উদ্বাস্তু হয়ে আশ্রয় নিয়েছে পাহাড়ি এলাকায়। যাদের পাহাড় সম্পর্কে তেমন কোনো জ্ঞান নেই। আবার চট্টগ্রামে শহরতলি গিয়ে ঠেকেছে পাহাড়ের পাদদেশে। পাহাড় কেটে তৈরি হয়েছে বসতি। ঝুঁকি আছে জেনেও সেখানে থাকছেন নিম্ন আয়ের লোকজন।

পাহাড়ে চাষাবাদের অন্যতম পদ্ধতি হচ্ছে জুমচাষ। বিশেষ পদ্ধতিতে পাহাড়ের জঙ্গল পুড়িয়ে ফেলা হয়। এতে বড় গাছ মারা পড়ে না। তারপর কিছু দূর পরপর পাহাড়ের গায়ে দা দিয়ে ছোট গর্ত করে ধান, কলা, আনারস, ভুট্টাসহ নানা বিচি একসঙ্গে লাগানো হয়। সার-কীটনাশকবিহীন ফলন হয় ভালো ফসলের। ১০ থেকে ২০ বছর পরপর একবার চাষাবাদ করায় তেমন কোনো ক্ষতির মুখেও পড়তে হয় না। সমতল থেকে আসা জনসাধারণ বিশেষ এই চাষাবাদ সম্পর্কে পুরোপুরি অজ্ঞাত। তারা নিমেষেই পাহাড়ের ক্ষতি করে ফেলে।

টারশিয়ারি যুগের সৃষ্টি আমাদের পাহাড়গুলো। এর গায়ে জন্মানো বনজঙ্গল এবং গাছপালা অভ্যন্তরীণ বন্ধন শক্তিশালী রাখে। কিন্তু অতিবৃষ্টিতে পাহাড়ের বেলে-দোআঁশ মাটি নরম হয়ে যায়। বর্তমান সময়ে কিছু এলাকায় অধিক লাভের আশায় এমন প্রজাতির সব গাছ লাগিয়ে বনায়ন করা হচ্ছে যে, সেগুলো পাহাড়ের নিজস্ব কোনো প্রজাতি নয়। এসব গাছের নিচে জঙ্গল হওয়া দূরের কথা, দূর্বাঘাসও জন্মায় না। আম-লিচুর বাগান করার জন্যও পাহাড় কাটা এবং প্রাকৃতিক বন উজাড় করা হয়। পাহাড় আঁকড়ে ধরা বনজঙ্গল না থাকায় নাজুক হয়ে পড়ে রাতারাতি।

প্রাকৃতিক সৌন্দর্য মুগ্ধতায় ক্রমান্বয়ে পাহাড়ে তৈরি হচ্ছে নতুন নতুন পর্যটন স্পট। সেখানে ভিড় জমাচ্ছেন সমতলের পর্যটক। না জেনে তারা ব্যবহূত পলিথিন খোসা বা পল্গাস্টিক বোতল ফেলছেন যত্রতত্র। অপচনশীল পল্গাস্টিক বা বোতল পাহাড়ের মাটিতে ঢুকে মাটি ধসে সহায়তা করে। একমাত্র পাহাড়িয়া নৃগোষ্ঠী মানুষকেই দেখা যায় সেই পল্গাস্টিক কুড়িয়ে এক জায়গায় জড়ো করতে। পাহাড়ের সঙ্গে মিতালি গড়তে যুগের পর যুগ তারা ব্যবহার করছেন নিজেদের তৈরি বাঁশের কৌটা, ব্যাগ এবং পোশাক।

১৯৬০ সালে কাপ্তাই বাঁধ নির্মাণ করা হয় জলবিদ্যুৎ উৎপাদনের লক্ষ্যে। বাঁধের কারণে হ্রদের দুই পাড় তলিয়ে পানি পৌঁছে যায় পাহাড়ের পাদদেশ পর্যন্ত। কৃত্রিমভাবে ৭২৫ বর্গকিলোমিটারজুড়ে সৃষ্টি হয় বিশাল হ্রদ। অসংখ্য মানুষ ঘরবাড়ি তলিয়ে বাস্তুহারা হয়। পাহাড়ের ওপরে বসবাস শুরু করে তলিয়ে যাওয়া এই জনগোষ্ঠী। ছয় দশক ধরে পাহাড়ের গোড়ায় পানি এবং ওপরে মানুষের বসবাস পরিবর্তন এনেছে মাটির প্রকৃতি।

লোভী মানুষরা অব্যাহতভাবে পাহাড় কাটছে। দরিদ্রতাও এখানে এসে এক হয়েছে। পাহাড়ি অঞ্চলের ভূতাত্ত্বিক গঠন এবং বৈশিষ্ট্য আলাদা। ভূতাত্ত্বিক জরিপ ছাড়াই পার্বত্য অঞ্চলে অবকাঠামো-স্থাপনা নির্মাণেও পাহাড় ধসে পড়ে। বালু ও পাথর উত্তোলন দুর্বল করে দিচ্ছে পাহাড়ের দাঁড়িয়ে থাকার শক্তি। এসব কারণে ভারি বর্ষণে পাহাড়ের ফাটল দিয়ে ভেতরে পানি প্রবেশ করে। ফলে পাহাড় ধসের মতো ঘটনা ঘটে। প্রকৃতির কাছে প্রাণ হারিয়ে মানুষ কেবল সংখ্যা হয়ে যায়।

প্রতিবেশী রাষ্ট্র মিয়ানমার থেকে গণহত্যার শিকার হওয়া লাখ লাখ রোহিঙ্গা আশ্রয় নিয়েছে কপবাজার, বান্দরবান, খাগড়াছড়ি ও রাঙামাটি জেলায়। সেখানকার ছবি দেখলে যে কেউ ধারণা করতে পারে পরিবেশের কী বিধ্বংসী রূপ তারা তৈরি করেছে। গত পাঁচ বছর আগেও যেখানে পাহাড় ছিল সবুজের সমারোহ। অথচ শরণার্থী রোহিঙ্গারা কেটে-কুটে উজাড় করে দিয়েছে গাছপালা। নষ্ট করেছে পাহাড়ি পরিবেশের ভারসাম্য।

নির্বিচারে পাহাড় কেটে অবৈধ বসতি স্থাপন এবং বনজঙ্গল ও গাছপালা উজাড়ের কারণেই মূলত চট্টগ্রাম এবং পার্বত্য চট্টগ্রামাঞ্চলে পাহাড় ধসের ঘটনা ঘটছে। প্রতি বছরই দুর্ঘটনায় প্রাণ হারাচ্ছে কেউ না কেউ। কখনও সাধারণ মানুষ, কখনও সেনাসদস্যরা, আবার কখনও উদ্ধারকাজে অংশ নেওয়া সরকারি সংস্থার কর্মী। পাহাড় কাটা এবং পাহাড়ি বনভূমি নির্বিচারে ধ্বংস বন্ধ করণই এর থেকে পরিত্রাণের একমাত্র পথ। তাৎক্ষণিকভাবে পাহাড়ের পাদদেশে বসবাসকারী বাসিন্দাদের সরিয়ে নিতে হবে। পর্যায়ক্রমে তাদের করতে হবে পুনর্বাসন। ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় পুনরায় বসতি স্থাপন নিষিদ্ধ বাস্তবায়নে কড়াকড়ি আরোপও জরুরি। গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে ঢালু পাহাড়ে গাইডওয়াল এবং বসতি এলাকায় মজবুত সীমানা প্রাচীর নির্মাণের। জুমচাষে আগাছানাশক ওষুধ ছিটানো বন্ধ, পানি নিস্কাশন ব্যবস্থা, ভূমিকম্প প্রতিরোধে তাল ও সুপারিগাছ লাগানো এবং পরিবেশ আইন মেনে পাহাড়ের উপযোগী অবকাঠামো নির্মাণে সবার সচেতন হওয়া প্রয়োজন।

পাহাড় থাকলে ধস হবে এটা সত্য। পাহাড়ের ভূতাত্ত্বিক গঠন, দীর্ঘ খরার পর একটানা বৃষ্টি, ভূকম্পন, বজ্রপাত এবং জলবায়ু পরিবর্তনে প্রাকৃতিক দুর্যোগগুলো পাহাড় ধসের জন্য কিছুটা দায়ী হলেও কাল হয়েছে কৃত্রিম সংকট তৈরিকরণই। এখনই ব্যবস্থা না নিলে অদূরভবিষ্যতে যে ভয়াবহ মহাপরিবেশ বিপর্যয় ঘটবে তা মোকাবিলা করা অসম্ভব। রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী চাপিয়ে দিয়ে পাহাড় ধ্বংস করায় মিয়ানমারের কাছে আমাদের ক্ষতিপূরণ দাবির সময় এসেছে। সবচেয়ে বড় স্কুলটা থাকে স্কুলের দেয়ালের বাইরে। আমাদের সময় এসেছে প্রকৃতি পাঠের।



© সমকাল ২০০৫ - ২০২২

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com