আমরা মনে করি, নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে: ইসি সচিব

প্রকাশ: ২০ সেপ্টেম্বর ২১ । ২২:২৫ | আপডেট: ২০ সেপ্টেম্বর ২১ । ২২:৪০

সমকাল প্রতিবেদক

সাংবাদিকদের ব্রিফিং করছেন ইসি সচিব হুমায়ুন কবীর খোন্দকার (ফাইল ছবি)

প্রার্থী ও তাদের সমর্থকরা ইমোশনাল (আবেগী) হয়ে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সহিংসতায় জড়িয়ে পড়ে বলে মন্তব্য করেছেন নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিব হুমায়ুন কবীর খোন্দকার। নির্বাচনের দিন দুইজনের মৃত্যুর ঘটনা বেদনাদায়ক ও দুঃখজনক বলেও মন্তব্য করেন তিনি। এছাড়া বাকি নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে বলে দাবি করে ইসি সচিব বলেন, খুবই বেদনাদায়ক ও দুঃখজনক যে, মহেষখালী ও কুতুবদিয়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে একজন করে দুইজন লোক নিহত হয়েছেন। তিনি বলেন, আমরা মনে করি, নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে।’ সোমবার বিকেলে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি।

এছাড়া বিভিন্ন জায়গায় নিজেদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ায় আরও ২৪ জন আহত হয়েছেন। ইসি কার্যালয়ের আসা তথ্য অনুযায়ী, এসব ঘটনা ছাড়া নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে হয়েছে। যে ঘটনা ঘটেছে তা খতিয়ে দেখা হবে। সামনে এসব ঘটনার পুনরাবৃত্তি যাতে না ঘটে সেজন্য ইসি সজাগ থাকবে।

ইসি সচিব বলেন, ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে ইউনিয়ন পরিষদে প্রায় ৫০ শতাংশ, পৌরসভায় ৫৫ শতাংশ ও ব্যালটের মাধ্যমে ইউনিয়ন পরিষদে ৬৫ শতাংশের বেশি ভোট পড়েছে। তিনি জানান, মহেষখালীতে দুই প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে একজন মারা গেছেন। কুতুবদিয়ায় ব্যালট পেপার ছিনিয়ে নেওয়ার সময় প্রিজাইডিং কর্মকর্তার নির্দেশে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সদস্যরা গুলি করেছেন। 

তিনি বলেন, ‘ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন ডোর টু ডোর নির্বাচনী আমেজ থাকে। প্রার্থীরা এত বেশি ইমোশনাল হয়ে যান যে নিজেদের মধ্যে দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়েন। নিজেদের মধ্যে দ্বন্দ্বের কারণে এসব ঘটনা ঘটেছে।’

বড় অনেক দল অংশ না নেওয়ার পরও নির্বাচনে সহিংসতা ঘটনা প্রসঙ্গে তিনি বলেন ‘ইউপি নির্বাচন দলের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকে না। এলাকা এলাকা দ্বন্দ্ব থাকে, প্রার্থী ও তাদের সমর্থকরা ইমোশনাল হয়ে যান। তখনই এ দ্বন্দ্ব হয়ে যায়। অনিয়মের কারণে পাঁচটি কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ বন্ধ করতে হয়েছে। নির্বাচনে অনিয়ম হওয়ায় সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং কর্মকর্তারা এসব কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ বন্ধ করেছেন।’

ভোটের আগের রাতে একজন নারী মারা যাওয়ার বিষয়ে সচিব বলেন, ‘প্রার্থীদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ায় ৭০ বছর বয়স্ক একজন বৃদ্ধ নারী মারা গেছেন। কীভাবে এ ঘটনা ঘটেছে তা তদন্ত করে আমাদের জানাতে বলেছি।’

সহিংসতার বিষয়ে ইসির পদক্ষেপ নিয়ে তিনি বলেন,‘কুতুবদিয়ায় ৭ নম্বর কেন্দ্রে নির্বাচনী প্রার্থীদের পক্ষে একদল সন্ত্রাসী ব্যালট পেপার ছিনিয়ে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছিল, প্রিজাইডিং কর্মকর্তাকে হুমকি দিচ্ছিল। তখন আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ফায়ার ওপেন করেছে। অর্থাৎ এ বিষয়ে সর্বোচ্চভাবে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য এটি হয়েছে।’

এক প্রশ্নের জবাবে সচিব বলেন, ‘নির্বাচনের অনিয়ম যখন হয় ওই সময়ে কোনো প্রার্থী অভিযোগ করলে রিটার্নিং কর্মকর্তারা ব্যবস্থা নেবেন। ওই মুহূর্তে রিটার্নিং কর্মকর্তাদের কাছে অভিযোগ করেছেন এমন বিষয় আমাদের জানা নেই। আমরা মনে করি, নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে।’

বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় অনেক প্রার্থী জয়ী হওয়ায় নির্বাচন ব্যবস্থা প্রশ্নবিদ্ধ বা নির্বাচন ব্যবস্থা ভেঙে পড়ছে কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘নির্বাচনী ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে তা কোনোভাবেই বলবো না। কারণ তিনটি। প্রথমত, একাধিক প্রার্থী নির্বাচনে অংশগ্রহণ যদি না করেন, দ্বিতীয়ত, যারা নির্বাচনে মনোনয়নপত্র দাখিল করেন তারা যদি নিয়মনীতি না মানেন তাহলে অনেকের প্রার্থিতা বাতিল হবে খুবই স্বাভাবিক, তৃতীয়ত, যোগ্য প্রার্থীর সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবো না- তাহলে তো বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় প্রার্থী জয়ী হবেন।’













© সমকাল ২০০৫ - ২০২১

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com