টাঙ্গুয়ার হাওরে শেষ হলো 'হৃদিতা'র শুটিং

প্রকাশ: ২১ সেপ্টেম্বর ২১ । ১৪:০৪ | আপডেট: ২১ সেপ্টেম্বর ২১ । ১৪:০৪

বিনোদন প্রতিবেদক

টাঙ্গুয়ার হাওরে পূজা চেরি

কখনো আকাশের মতো নীল, কখনো আয়নার মতো স্বচ্ছ—এমন স্নিগ্ধ রঙে রাঙা পানিতে টইটুম্বর টাঙ্গুয়ার হাওর। যে হাওরের দূরে মেঘালয় রাজ্যের পাহাড়ে ঝরনা থেকে নেমে আসা স্বচ্ছ পানি। এই পানিতে পা ভেজাচ্ছিলেন ঢাকাই ছবির চিত্রনায়িকা পূজা চেরি। শুটিংয়ের জন্য দৃশ্য ধারণ চললেও পূজার হৃদয়ে দোল খাচ্ছিল অন্যরকম এক অনূভূতি। যে অনুভূতি ভাষায় প্রকাশ যোগ্য নয় বলেই মন্তব্য এ নায়িকার। 

অনুদানের ছবি হৃদিতার গানের শুটিংয়ে গত ১৮ সেপ্টেম্বর সুনামগঞ্জের টাঙ্গুয়ার হাওরে যান পূজা চেরি। সঙ্গে যান ছবির নায়ক এবিএম সুমন ও হৃদিতা টিম। এতোদিন ভিডিও ব্লগে টাঙ্গুয়ার হাওরের সৌন্দর্য দেখেছেন পূজা। এবার দেখলেন সরাসরি উপস্থিত হয়ে। বললেন, এমন সুন্দর জায়গা দেখেই নিজের ভেতরে প্রশান্তি চলে এসেছে। গানের শুটিংয়ে এখানে এলেও মনে হচ্ছে পিকনিকে এসেছি। শুটিংয়ের ফাঁকে উপভোগ করেছি সময়টা, জায়গাটা।

যুগল পরিচালক ইস্পাহানি আরিফ জাহানের সঙ্গে হাওরে নৌকার উপর বাসা পূজা চেরি

পূজার সঙ্গে পূজার মাও গিয়েছিলেন। তিনিও হাওরের সুন্দর্যে মুগ্ধ হয়েছেন বলে জানিছেন পূজা।

পূজা বলেন, 'এখানে নানা জাতের অগণিত পাখির কলতান আর করচ-হিজল বনের অপরূপ সৌন্দর্যের সমাহার দেখেছি।শুটিংয়ের পাশাপাশি আমরা সবাই টাঙ্গুয়ার হাওরের সৌন্দর্য সম্পূর্ণভাবে উপভোগ করেছি।'

২০১৯-২০ অর্থ বছরে সরকারি অনুদানে ‘হৃদিতা’ নির্মাণ করছেন পরিচালক যুগল পরিচালক ইস্পাহানি আরিফ জাহান। পরিচালক বললেন, 'হৃদিতার শুটিং শেষ। বাকি ছিলো একটি গানের শুটিং। সে গানের শুটিং করতেই টাঙ্গুয়ার হাওরে আসা। গানের শুটিং শেষ। এখন ইডিটিং প্যানেলে কিছু প্যাসওয়ার্ক থাকলে সেটার শুট করতে হবে। তবে আপাতত হৃদিতার শুটিং শেষ। 


ছবিটি লেখক আনিসুল হকের ‘হৃদিতা’ উপন্যাস থেকে নির্মিত হচ্ছে। ছবিটির মাধ্যমে প্রথমবার পূজা চেরি ও এবিএম সুমন জুটি হয়েছেন। 

সিলেট থেকেই ফিরেই পূজা চেরি শাকিব খানের বিপরীতে 'গলুই' নামে আরও একটি অনুদানের ছবির শুটিং করবেন।  এটি পরিচালনা করবেন  এস এ হক অলিক।  

© সমকাল ২০০৫ - ২০২১

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com