গপ্পো

বন্ধুর জন্য মায়া

০৮ অক্টোবর ২১ । ০০:০০

আদিবা ফাইরোজ

মিহরিমা। প্রথম শ্রেণিতে পড়ে। থাকে বাবা-মা, দাদা- দাদির সাথে। তার ছোট বোন নাদিয়া। মিহরিমা চঞ্চল হলেও স্কুলে যেতে এবং পড়াশোনায় বড্ড মনোযোগী। ওরা যে বাড়িতে থাকতো, সেখানে পানির সমস্যা। তাই আজ নতুন বাসায় উঠেছে। বাবা-মায়ের ব্যস্ততার কারণে ছোট চাচ্চু আজ ওকে নিতে এসেছে স্কুলে। স্কুল ছুটির পর ছোট চাচ্চুকে দেখে তো সে মহাখুশি। চাচ্চু চাচ্চু বলে লাফিয়ে কোলে উঠে পড়লো। মিহরিমা জানে, বাবা যে আবদার পূরণ করে না, তা ছোট চাচ্চু করবেই। চাচ্চুর কাছে আবদারের শেষ নেই তার। পারলে চাচ্চুকে দিয়ে দোকানই কিনে ফেলতো!

নতুন বাসায় মিহরিমা পেয়েছে নতুন কিছু বন্ধু। বাসার পেছনে বিশাল মাঠ। রাতে ঘুমোনোর সময় শিউলি ফুলের মিষ্টি সুবাস যেন ওকে কানে কানে বলে যায় সারা রাত মিষ্টি কাটুক। সত্যিই সে মিষ্টি একটা রাত কাটায়। পরদিন সকালে খাওয়া শেষে পড়তে বসেছে। আর তখনই ট্রি টি ট্রি টি করে কলিং বেল বেজে উঠলো। মিহরিমা দৌড়ে দরজা খুলতে যায়। ভাবে, ছোট চাচ্চু এসেছে। লাফালাফি করেও ছিটকিনি পর্যন্ত উঠতে পারে না। কী আর করার। শেষমেষ মা দরজা খুলে দিলেন। ছোট চাচ্চু নয়; দরজায় দাঁড়িয়ে আছে নবম-দশম শ্রেণিতে পড়া চার-পাঁচজন। তারা শৈশবকাল সংস্থা থেকে এসেছে। মিহরিমার মাকে তারা আরও বলে, খেলাধুলা করলে মন ও শরীর ভালো থাকে। শিশুদের জন্য খেলাধুলা খুবই প্রয়োজন। আমরা আপনার মেয়েকে নিয়মিত মাঠে খেলাধুলায় দেখতে চাই। তারপর মিহরিমার কাছে সবাই তাদের নাম বললো। নুভা আর পিটু এই নাম দুটি বড্ড ভালো লাগে তার।।

নুভা বলে, কাল থেকে মাঠে চলে আসবে মিহরিমা। এই বলে তারা চলে যায়। পরদিন কী, সেইদিন বিকেলেই মিহরিমা মাঠে হাজির। প্রথম দিন খেলতে গিয়েই সে চারজন বন্ধু জুটিয়ে নিল। তবে তার প্রিয় বন্ধু হয়ে ওঠে নুভা। নুভার সঙ্গে তার কতো যে কথা!

শুক্রবার সকাল হতেই নুভার সাথে ঘুরতে বেরিয়ে পড়ে মিহরিমা। পার্কে যায়, চা খায়। মিহরিমা শৈশবকাল সংস্থার বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে। একবার প্রতিযোগিতায় দ্বিতীয় স্থান অর্জন করে। খুব আনন্দেই তার দিন কাটে। তবে এ আনন্দ বেশি দিন স্থায়ী হয় না। তার বাবা হুট করে বদলি হয়ে গেলো ঢাকায়। নতুন জায়গায় যাবে, নতুন বন্ধু পাবে তবু তার মনে আনন্দ নেই। মন খারাপ করেই চলে আসে মিহরিমা। তার মন পড়ে থাকে নুভার কাছে। নুভাও অপেক্ষায় থাকে; কখন মিহরিমার কাছ থেকে বন্ধু ডাকটি শুনবে!

 নবম শ্রেণি, ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল স্কুল, টাঙ্গাইল

© সমকাল ২০০৫ - ২০২১

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মুস্তাফিজ শফি । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com