শিক্ষার্থীদের চুল কাটা

তদন্ত কমিটির মুখোমুখি হননি ফারহানা, অবশেষে প্রতিবেদন জমা

প্রকাশ: ২১ অক্টোবর ২১ । ১৯:২৭ | আপডেট: ২১ অক্টোবর ২১ । ১৯:২৭

সিরাজগঞ্জ ও শাহজাদপুর প্রতিনিধি

ফারহানা ইয়াসমিন বাতেন

সিরাজগঞ্জে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৪ শিক্ষার্থীর চুল কাটার ঘটনার তদন্তের প্রতিবেদন অবশেষে কর্তৃপক্ষকে জমা দিয়েছে তদন্ত কমিটি। বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টার দিকে ভারপ্রাপ্ত উপাচার্যের কাছে প্রতিবেদন জমা দেওয়া হয়।  তদন্ত কমিটির প্রধান রবীন্দ্র অধ্যয়ন বিভাগের চেয়ারম্যান প্রভাষক লায়লা ফেরদৌস হিমেল প্রতিবেদন জমা দেওয়ার বিষয়টি সমকালকে নিশ্চিত করেছেন।  

তবে এদিন অভিযুক্ত শিক্ষক ফারহানা ইয়াসমিন বাতেনের সশরীরে হাজির হওয়ার কথা থাকলেও তিনি আসেননি। অবশেষে তাকে ছাড়াই প্রায় ২৫ দিন পর প্রতিবেদন জমা দেয় তদন্ত কমিটি। এদিকে, শিক্ষক ফারহানার স্থায়ী বহিষ্কারের দাবি জানিয়ে শান্তিপূর্ণ অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছেন শিক্ষার্থীরা। আগামীকালও এই অবস্থান কর্মসূচি পালন করবেন বলে জানিয়েছেন মুখপাত্ররা। 

তদন্ত কমিটির সভাপতি প্রভাষক লায়লা ফেরদৌস হিমেল বলেন, ‘অভিযুক্ত শিক্ষক ফারহানা ইয়াসমিন বাতেনকে বৃহস্পতিবার দুপুর একটার মধ্যে সশরীরে কমিটির মুখোমুখি হতে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তৃতীয় দফা নির্দেশ দেয়া হয়েছিল। এর আগেও আরো দু’দফা নির্দেশ পেয়েও কমিটির মুখোমুখি হননি শিক্ষক ফারহানা। ঘটনার বিপরীতে আত্মপক্ষের সমর্থনে বক্তব্য দিতে সশরীরে হাজির হওয়ার কথা থাকলেও তিনি বৃহস্পতিবারও আসেননি। অবশেষে তার অনুপস্থিতেই তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে আমরা বাধ্য হলাম।’ 

তিনি আরও বলেন, ‘ঘটনার প্রেক্ষাপট, ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী ও তার দুস্কর্মের কতিপয় সহকর্মীদের স্বাক্ষ্য প্রমান ও বক্তব্য এবং সিসিটিভি ফুটেজে শিক্ষক ফারহানা শুরু থেকেই অভিযুক্ত হন। শিক্ষার্থীদের চুল কাটার ঘটনায় তিনিই যে চূড়ান্ত ও একমাত্র অভিযুক্ত, তাতেও কোন সন্দেহের অবকাশ নেই। তারপরেও বিশ্ববিদ্যালয় তথা সরকারি চাকরির বিধিমালা (শৃঙ্খলা ও আপীল) অনুযায়ী তাকে তিনবার তাকে সময় দেয়া হয়। সুযোগ কাজে না লাগিয়ে বরং একগুয়েমির মাধ্যমে তদন্ত কমিটিকে উল্টো বিতর্কিত করার চেষ্টা করেন তিনি। একটা ঘটনা তদন্ত করতে গিয়ে শিক্ষক ফারহানার বিরুদ্ধে আরও অনেক অভিযোগের সংবাদ এবং তথ্য প্রমাণ পাওয়া গেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের চাকরির বিধিমালা (শৃঙ্খলা-আপীল) অনুযায়ী প্রতিবেদনে তার শাস্তির জন্য সুপারিশও করেছে তদন্ত কমিটি।’

এদিকে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য ট্রেজারার আব্দুল লতিফ সন্ধায় বলেন, ‘আত্মপক্ষের সমর্থনে বক্তব্য দিতে বৃহস্পতিবার দুপুরে সশরীরে তদন্ত কমিটির মুখোমুখি হতে শিক্ষক ফারহানাকে এর আগে চূড়ান্ত সময় সীমা বেধে দেয়া হয়। এরপর সাধারনত আর কোন সুযোগই থাকেনা। বিকেলে তদন্ত কমিটি প্রতিবেদন জমা দিয়েছে। আগামীকাল বিকেলে আবারও সিন্ডিকেট সভা আহ্বান করা হবে। ওই সিন্ডিকেট সভায় তদন্ত কমিটির দেয়া সুপারিশের ভিত্তিতে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।' 

উল্লেখ্য, গত ২৫ সেপ্টেম্বর ১৪ শিক্ষার্থীর চুলকাটার ঘটনায় অভিযুক্ত হয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের তিনটি পদ থেকে সরে আসার পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেট থেকে সাময়িক বহিষ্কৃত হন শিক্ষক ফারহানা। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ গত ২৭ সেপ্টেম্বর থেকে তার বিরুদ্ধে কমিটি গঠন করে তদন্ত কার্যক্রম শুরু করে। 

© সমকাল ২০০৫ - ২০২২

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com