'তলার ছিদ্র দিয়ে পানি ঢুকছিল ফেরিতে'

প্রকাশ: ২৭ অক্টোবর ২১ । ১৫:৫২ | আপডেট: ২৭ অক্টোবর ২১ । ১৬:৩৭

বিপ্লব চক্রবর্তী, মানিকগঞ্জ

উল্টে যাওয়া ফেরি

মানিকগঞ্জের পাটুরিয়ার ৫ নম্বর ফেরিঘাটে নোঙর করার পর শাহ আমানত নামের একটি রো-রো ফেরি ১৪টি যানবাহন নিয়ে উল্টে গেছে। তলদেশের ছিদ্র দিয়ে পানি ঢুকে ফেরি উল্টে যাওয়ার ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগ প্রত্যক্ষদর্শীদের।  

বুধবার সকাল পৌনে ১০টার দিকে ৫ নম্বর পন্টুনে আনলোড করার সময় ফেরিটি উল্টে যায়। ফেরিতে থাকা ১৭টি পণ্যবাহী ট্রাকের মধ্যে মাত্র ৩টি ট্রাক নামতে সক্ষম হলেও বাকি ১৪টি ট্রাক ও মোটরসাইকেল নিয়ে ফেরিটি উল্টে যায়। 

কুষ্টিয়া থেকে আসা ফেরির মোটরসাইকেল যাত্রী মোহাম্মদ সুজন বলেন, দৌলতদিয়া থেকে ছেড়ে আসার পর মাঝ পদ্মাতেই ফেরির তলদেশের ছিদ্র দিয়ে পানি ঢুকতে শুরু করে। এতে ফেরি কিছুটা কাত হয়ে যায়। ফেরিটি ৫ নম্বর ঘাটে আসা মাত্রই একপাশে কাত হতে থাকে। কোনো কিছু বুঝে উঠার আগেই ফেরিটি উল্টে যায়।   

খুলনা থেকে ছেড়ে আসা কাভার্ডভ্যান চালক আসলাম বলেন, আমরা গাড়িতেই ছিলাম। কয়েকজনকে বলতে শুনেছি ফেরিতে পানি উঠছে। নদীতে স্রোত থাকলে ফেরিতে পানি উঠে এটা সব সময় দেখি, এজন্য গুরুত্ব দেইনি। যখন ফেরি পাড়ে ভিড়ল তখন দুমড়ে-মুচড়ে একটা গাড়ি আরেকটার সঙ্গে ধাক্কা লাগছিল। তখন গাড়ি থেকে নেমে নদীতে ঝাঁপ দিই। 

ফেরির মাস্টার শরিফুল ইসলাম লিটন বলেন, চার মাস আগে ফেরিটি নারায়ণগঞ্জ থেকে ভারী মেরামত শেষে পাটুরিয়া সার্ভিসে আসে। তবে সম্প্রতি ফেরিটির তলদেশে একটি ছিদ্র হয়। ফেরিটি সকাল সোয়া ৯টার দিকে পাটুরিয়া অভিমুখে রওনা দেওয়ার কিছু সময় পরই ফেরিটির তলদেশের ছিদ্র দিয়ে ভেতরে পানি প্রবেশ শুরু করে। কিন্তু বিষয়টি যখন টের পাই তখন আর কিছু করার ছিল না।

৫ নম্বর ঘাটে ভাসমান ফেরি মেরামত কারখানা মধুমতিতে অব্যবস্থাপনার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ফেরি সংশ্লিষ্টদের অভিযোগ, দীর্ঘদিন ধরে এই ভাসমান ফেরি মেরামত কারখানায় মেরামতের নামে জোড়াতালি দেওয়া হচ্ছে।

মেরামত কারখানার এজিএম (প্রকৌশলী) আবদুল মান্নান তার কাছে ফেরির মাস্টাররা ফেরি মেরামতের জন্য আসলে তিনি বিভিন্ন সময় টালবাহানা করেন বলে অভিযোগ রয়েছে। তবে অভিযোগ অস্বীকার করে তিনি বলেন, ফেরিটি আসার পর পরই মেরামত শুরু করা হয়।

কী কারণে ফেরিটি ডুবলো এখনও তারা নিশ্চিত হতে না পারলেও সেক্টরের এজিএম (মেরিন) আব্দুস সাত্তার ফেরিটির তলদেশ ছিদ্র থাকার বিষয়টির প্রতি ঈঙ্গিত দেন।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন করপোরেশন আরিচা শাখার উপ-মহাব্যবস্থাপক মো. জিল্লুর রহমান জানান, ফেরি উল্টে যাওয়ার খবর পাওয়ার পর ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি ইউনিট কাজ করছে। এখন পর্যন্ত কোনো হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি। উদ্ধারকারী জাহাজ হামজা কাজ করছে। উদ্ধারকাজ করতে মুন্সিগঞ্জ থেকে প্রত্যয় নামে একটি উদ্ধারকারী জাহাজ রওনা দিয়েছে।

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের উপসহকারী পরিচালক মো. শরিফুল ইসলাম জানান, তাদের দুটি টিম উদ্ধারকাজ করছে। ঢাকা থেকে ৩টি টিমসহ মোট ৫টি টিম কাজ করছে।

© সমকাল ২০০৫ - ২০২২

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com