ইসলাম ও সমাজ

ধর্মীয় সম্প্রীতি অক্ষুণ্ণ রাখতে হবে

প্রকাশ: ২৯ অক্টোবর ২১ । ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ড. মোহাম্মদ বাহাউদ্দিন

সম্প্রীতি কথাটি বর্তমানে বহুল প্রচলিত। বহুবিধ অর্থে এটি ব্যবহূত হচ্ছে। বর্তমান বাস্তবতায় সমাজ ও সভ্যতার জন্য খুবই অত্যাবশ্যকীয় অনুষঙ্গ হলো সম্প্রীতি। এর প্রায়োগিক ও আভিধানিক নানা অর্থ, মর্মার্থ ও প্রেক্ষাপট থাকলেও মোটামুটি তিনটি বিষয় বিশেষ তাৎপর্য বহন করে। প্রথমত, সদ্ভাব- যার মানে হলো প্রণয়, আনুকূল্য, মিত্রতা, সখ্য ও সৌহার্দ্য। এই সদ্ভাবের পরিপূরক গুণাবলির অস্তিত্ব সমাজে বিদ্যমান থাকলেই তা হয়ে ওঠে সম্প্রীতিময়। প্রত্যেক মানুষ যখন একে অন্যের প্রতি সমান অনুরাগী হবে, একই পরিমাণ প্রীত থাকবে, তখনই সেখানে সম্প্রীতির প্রত্যাশিত চিত্রটি বাগ্ধময় হয়ে উঠবে। অর্থাৎ কোনো সমাজ বা দেশে জাতি-ধর্ম, বর্ণ-গোত্র-সম্প্রদায় নির্বিশেষে মানুষের সঙ্গে মানুষের যে সুসম্পর্ক গড়ে ওঠে তাই সম্প্রীতি; আবহমানকাল থেকেই এতদঞ্চলের মানুষের মাঝে ধর্মীয় সম্প্রীতির সদ্ভাব বজায় রয়েছে। যদিও নানা সময়ে এ দেশে ধর্মীয় সম্প্রীতির বন্ধন ছিন্ন করার অপপ্রয়াস চলেছে এবং অতি সম্প্রতি বেশ ক'টি ঘটনার পর বিষয়টি আবার আলোচনায় এসেছে।

বাংলাদেশে ইসলাম, হিন্দু, বৌদ্ধ ও খ্রিষ্টান- এ চারটিই প্রধান ধর্ম। বাংলাদেশের সব ধর্মাবলম্বী মানুষ ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনায় পালন করে থাকে তাদের স্ব-স্ব ধর্মীয় উৎসব। একের উৎসবে যোগ দেয় ভিন্ন ধর্মের অনুসারীরাও। আর এভাবেই বাঙালির ধর্মীয় উৎসবগুলোও সর্বজনীন উৎসবে পরিণত হয়। এ দেশে যেমন মুসলিমদের জন্য মসজিদভিত্তিক শিক্ষা কার্যক্রম চালু আছে; তেমনি হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের জন্যও সরকারি অর্থায়নে মন্দিরভিত্তিক শিক্ষাব্যবস্থা ও পাঠাগার চালু রয়েছে। বৌদ্ধ ধর্মগুরু জ্ঞানতাপস অতীশ দীপঙ্করের নামে রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়; গঠন করা হয়েছে খ্রিষ্টান ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্ট আর উপজাতি অধ্যুষিত পার্বত্যাঞ্চলে রয়েছে তাদের নিজস্ব ধর্মীয় ও জাতিগত নানাবিধ কেন্দ্র। রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতা এবং ব্যক্তি বা প্রাতিষ্ঠানিক উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত ও ক্রমান্বয়ে সম্প্রসারিত এসব ধর্মীয়, সামাজিক ও শিক্ষামূলক কেন্দ্রের সরব উপস্থিতি ও গতিশীল কার্যক্রমের মাধ্যমে বাংলাদেশের আন্তঃধর্মীয় সম্প্র্রীতির প্রত্যাশিত রূপটিই ফুটে ওঠে। কবি গৌরীপ্রসন্ন মজুমদার সেই চেতনার আলোকেই গেয়েছেন :'বাংলার হিন্দু, বাংলার বৌদ্ধ, বাংলার খ্রিষ্টান, বাংলার মুসলমান/ আমরা সবাই বাঙালি।'

প্রায় হাজার বছর আগে এতদঞ্চলে ইসলামের আগমন ঘটেছিল নির্লোভ ও নির্মোহ চিত্তের সুফি ও অলিদের মাধ্যমে; যারা আমৃত্যু নিঃস্বার্থভাবে ইসলাম প্রচারে আত্মনিয়োগ করেছেন। তাদের কাছে রাজা-প্রজা, ধনী-নির্ধন আর সাদা-কালোর কোনো ব্যবধান ছিল না। ধর্মীয় মতপার্থক্যের কারণে তারা কাউকে অসম্মান করেননি, বরং মহান প্রভু নির্দেশিত হেকমত, কৌশল ও প্রজ্ঞার সঙ্গে জনমানুষের কাছে ইসলামের দাওয়াত তুলে ধরেছেন। তাদের ব্যক্তিগত ব্যবহার, উন্নত চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য এবং খোদাপ্রদত্ত অলৌকিক ঘটনাবলির মাধ্যমে অবিশ্বাস্য দ্রুততার সঙ্গে এ দেশে ইসলাম প্রসার লাভ করে। বাগদাদ, খোরাসান, মক্কা, ইয়েমেন, দিল্লি, মুলতান- এর মতো দূর-দূরান্ত থেকে বহু সাধক বাংলায় এসে বসতি স্থাপন ও ধর্ম প্রচার করেন। জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সবাইকে তারা খোদার সেরা সৃষ্টি মানুষ হিসেবে মূল্যায়ন করেছেন। আমাদের পূর্বসূরি অলি-সুফিরা সব ধর্মমতের মানুষের আস্থা, বিশ্বাস ও মর্যাদালাভে ধন্য হয়েছেন। তাদের মাজার আজ তীর্থস্থানে পরিণত হয়েছে, যেখানে সব ধর্মের লোক এসে থাকে এবং তাদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধাবনত হয়। সুফিরা নৈতিকতার শিক্ষায় উজ্জীবিত হয়ে সব ধর্মমতের অনুসারীদের একত্রিত করতে পেরেছিলেন। সর্বজনীন ভালোবাসার অনুপম সৌধ নির্মাণ করে তারা এতদঞ্চলে আন্তঃধর্মীয় সম্প্র্রীতির নজির স্থাপন করেছিলেন। বাংলাদেশ একমাত্র মুসলিমপ্রধান দেশ, যার সীমান্তে আর কোনো মুসলিম দেশ নেই। ফলে বিপুলভাবে মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশ হিসেবে বাংলাদেশের আত্মপ্রকাশ একটি ব্যতিক্রমী ঘটনা। এর পেছনে সুফিদের ভূমিকাই অগ্রগণ্য। তাদের ব্যক্তি-মাধুর্য, নৈতিক চরিত্র আর আচার-ব্যবহারে অজস্র বনি আদম মুগ্ধ হয়ে ইসলামের সুশীতল ছায়াতলে সমবেত হয়।

বাংলাদেশে আন্তঃধর্মীয় সম্প্র্রীতির সুদীর্ঘ ঐতিহ্য থাকলেও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের চক্রান্ত ও ধর্মীয়-জাতিগত দ্বন্দ্ব-সংঘাত যে হয়নি, তা কিন্তু নয়। পবিত্র ধর্ম ইসলামকে মানুষ ও মানবতার খেদমতের পরিবর্তে যখনই ব্যক্তিস্বার্থ বা দল-গোষ্ঠীগত ফায়দা হাসিল অথবা ক্ষমতায় যাওয়ার সিঁড়ি হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে, তখনই সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এই দেশে ধর্মীয় ও জাতিগত সংঘাতের সৃষ্টি হয়েছে। অর্থাৎ মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ এই জনপদে ইসলামের চিরন্তন উদারতা, পরমতসহিষ্ণুতা ও পরধর্মের অনুসারীদের প্রতি দায়িত্বশীলতার বিষয়টি বিস্মৃত হয়ে যখনই গোঁড়ামি, অন্ধত্ব ও কায়েমি স্বার্থ এসে ভর করে, তখনই অমুসলিম সংখ্যালঘু সম্প্র্রদায় নির্যাতিত হয়; তাদের উপাসনালয় আক্রমণের শিকার হয় এবং সাম্প্র্রদায়িক দাঙ্গার ঘটনা ঘটে। সাম্প্র্রতিক সময়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে অমুসলিম সম্প্রদায়ের ওপর নির্যাতনের চিত্রাবলি তারই ধারাবাহিকতা মাত্র। কিন্তু এসবের পরেও আমাদের ভুলে গেলে চলবে না- বাংলাদেশ বারো আউলিয়ার দেশ, সুফিদের দেশ। এ দেশ অধ্যাত্মবাদী মুনি-ঠাকুরের দেশ। এ দেশের মানুষের চরিত্র-বৈশিষ্ট্যের মধ্যে রয়েছে সমুদ্রের উদারতা, অরণ্যের সহনশীলতা এবং অন্তরীক্ষে অবস্থিত মহাজ্ঞানের প্রভাব। আর জ্ঞানের গভীরতাই আমাদের সত্যিকার ঐক্য এনে দিতে পারে। স্থাপন করতে পারে সবার মাঝে সম্প্রীতি।

বাংলার আকাশ, বাংলার বাতাস, বাংলার মাটি, বাংলার কাদা ও বাংলার ষড়ঋতু কথা বলে। এদের কথা যারা আত্মার খবর রাখেন তাদের কাছে বোধগম্য হয়। এ দেশের হাওর-বাঁওড়, নদনদী ও সমুদ্র মানুষের হৃদয়ে অতীন্দ্র অনুভূতির সাড়া দেয়। তাই ধর্মীয় সম্প্রীতি যে কোনো মূল্যে এ দেশে অক্ষুণ্ণ রাখতে হবে। ভারতীয় এক নবীন কবির কবিতাংশ দিয়ে শেষ করি- 'মোদের দেশে যদি মোরা রাখি সম্প্রীতি, সুখে-শান্তিতে থাকব আমরা সকল জাতি।'

চেয়ারম্যান ও অধ্যাপক, ফারসি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

© সমকাল ২০০৫ - ২০২২

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com