প্রাথমিক শিক্ষা বোর্ড আইন হবে আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত, বিশিষ্টজনদের বিবৃতি

প্রকাশ: ১৬ নভেম্বর ২১ । ১৮:৫০ | আপডেট: ১৬ নভেম্বর ২১ । ১৮:৫০

সমকাল প্রতিবেদক

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় কর্তৃক ‘প্রাথমিক শিক্ষা বোর্ড আইন-২০২১’ প্রণয়নের বিষয়ে উদ্বেগ জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন দেশের ৩৬ বিশিষ্টজন। তাদের মতে, এই সিদ্ধান্ত হবে আত্মঘাতী। তাই প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়কে এ সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসার জোর দাবি জানিয়েছেন তারা।

মঙ্গলবার দেওয়া ওই বিবৃতিতে বলা হয়, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে বাংলাদেশ শিক্ষাক্ষেত্রে বেশ কিছু মাইলফলক অর্জন করেছে। প্রায় শতভাগ শিশুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তি নিশ্চিতকরণ, ঝরে পড়ার হার কমিয়ে আনা, প্রাথমিক ও মাধ্যমিক ভর্তির ক্ষেত্রে ছেলে-মেয়ের সমতা, উপবৃত্তি এবং বছরের প্রথম দিনে উৎসব আয়োজন করে নতুন বই প্রদান যার মধ্যে অন্যতম। এজন্য আমরা সরকারকে সাধুবাদ জানাই।

বিবৃতিতে বলা হয়, আমরা লক্ষ্য করেছি বিদ্যালয়কেন্দ্রিক শিক্ষাকে গুরুত্ব দিয়ে সকলের জন্য বিনামূল্যে বই প্রদানের ফলে শিক্ষার্থীদের মধ্যে গাইড বই ব্যবহারের প্রবণতা কিছুটা হলেও হ্রাস পেয়েছে। একইভাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিভিন্ন সময় সংগত কারণেই শিক্ষার্থীদের ওপর থেকে পরীক্ষা ও বইয়ের বোঝা কমানোর ব্যাপারে নির্দেশনা দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রীর সেই নির্দেশনার প্রতিফলন আমরা লক্ষ্য করেছি ২০২১ সালে শিক্ষা মন্ত্রণালয় প্রণীত ‘জাতীয় শিক্ষাক্রম রূপরেখায়’, যেখানে প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা রাখা হয়নি। 

এটি দীর্ঘদিন ধরে শিক্ষার্থী, শিক্ষক, অভিভাবকসহ নাগরিক সমাজের একটি অন্যতম প্রত্যাশিত বিষয় ছিল। এমনকি জাতীয় শিক্ষানীতি ২০১০-এও পঞ্চম শ্রেণির পরীক্ষাকে ‘পাবলিক পরীক্ষা’ হিসেবে ধরা হয়নি। এর পরিবর্তে বলা হয়েছে স্থানীয়ভাবে উপজেলা, পৌরসভা বা থানা পর্যায়ে অভিন্ন প্রশ্নপত্রে সমাপনী পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

বিবৃতিতে বিশিষ্টজনরা বলেন, সম্প্রতি আমরা গভীর উদ্বেগের সঙ্গে লক্ষ্য করছি যে, প্রধানমন্ত্রীর দিক-নির্দেশনাকে আমলে না নিয়ে এবং জাতীয় শিক্ষানীতি ২০১০-কে পাশ কাটিয়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় ‘প্রাথমিক শিক্ষা বোর্ড আইন-২০২১’ নামক একটি আইনের খসড়া তৈরি করে এর ওপর মতামতের জন্য ওয়েবসাইটে প্রকাশ করেছে। ‘শিক্ষানীতি ২০১০’ ও ‘জাতীয় শিক্ষাক্রম রূপরেখা ২০২১-এর’ নীতি ও অঙ্গীকারের সঙ্গে সাংঘর্ষিক প্রাথমিক শিক্ষা বোর্ড আইন-২০২১ প্রণয়নের উদ্যোগ কেন নেওয়া হলো তা আমাদের বোধগম্য নয়। যেখানে করোনার কারণে গত শিক্ষা বছরে একটিও পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব হয়নি, এমনকি এ বছরও প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা নেওয়া হবে না বলে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে, সেখানে এই আইন প্রণয়নের প্রস্তাব কতটুকু যৌক্তিক ও বাস্তবসম্মত তা প্রশ্নসাপেক্ষ।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, আমরা সবসময় প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত আমাদের ভবিষ্যৎ নাগরিকদের সৃজনশীল মেধা বিকাশে আনন্দমুখর পরিবেশে শিক্ষা গ্রহণের দাবি জানাই। তাদের মানসিক ও শারীরিক বিকাশে এবং প্রতিভার উন্মেষ ঘটানোর জন্য শুধুমাত্র পরীক্ষা নির্ভর, সনদসর্বস্ব ব্যবস্থার পরিবর্তে সহ-পাঠ্যক্রমিক কার্যক্রমের প্রতি বিশেষ নজর দেওয়ারও দাবি জানাচ্ছি আমরা। শিক্ষার্থীদের মুখস্তনির্ভর করা, গাইড বই ও প্রাইভেট টিউশনকে বৈধতা দেওয়া এবং কোচিং বাণিজ্যকে উৎসাহিত করার নানা অপচেষ্টা আমরা পূর্বেও লক্ষ্য করেছি এবং প্রতিবাদও জানিয়েছি। 

প্রস্তাবিত আইন আমাদের কোমলমতি শিক্ষার্থীদের কাঁধে বইয়ের বোঝা বাড়াবে এবং করোনার মতো মহাবিপর্যয়ের পর অভিভাবকদের কোচিং ও গাইড বইয়ের জন্য অতিরিক্ত ব্যয় বাড়াবে। আমরা মন্ত্রণালয়কে এই আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসার জোর দাবি জানাচ্ছি।

তারা বলেন, আশা করছি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ আমাদের উদ্বেগের বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে শিক্ষার্থীদের সৃজনশীল মেধা বিকাশে সহায়তার সুযোগ সৃষ্টি করবেন এবং প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর পরিচালিত জাতীয় শিক্ষার্থী মূল্যায়নের (এনএসএ) মতো মূল্যায়ন প্রক্রিয়ার ফলাফলকে সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্রক্রিয়ায় কীভাবে দক্ষতার সঙ্গে ব্যবহার করা যায় সেদিকে দৃষ্টি দেবেন। আমরা বিশ্বাস করি ‘ভিশন-২০৪১’ এর সঙ্গে সঙ্গতি রেখে নতুন প্রজন্মকে মেধা-মননের বিকাশ ও নীতি-নৈতিকতা শিক্ষার মাধ্যমে এগিয়ে নেওয়ার কোনো বিকল্প নেই।

বিবৃতিদাতাদের মধ্যে রয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইমেরিটাস অধ্যাপক ড. সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ড. কাজী খলীকুজ্জামান আহমদ, বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যাপক আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ, গণস্বাক্ষরতা অভিযানের নির্বাহী পরিচালক রাশেদা কে. চৌধুরী, ড. হোসেন জিল্লুর রহমান, রামেন্দু মজুমদার, অ্যাডভোকেট সুলতানা কামাল, সেলিনা হোসেন, নাসিরউদ্দনি ইউসুফ বাচ্চু, অধ্যাপক সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম, অধ্যাপক এম এম আকাশ, ড. মনজুর আহমেদ,মামুনুর রশীদ, ইলিয়াস কাঞ্চন, অধ্যাপক মাহফুজা খানম, ড. ইফতেখারুজ্জামান, অধ্যাপক রোবায়েত ফেরদৌস, ব্যারিস্টার সারা হোসেন, সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান, অধ্যক্ষ কাজী ফারুক আহমেদ, শাহীন আনাম, অধ্যাপক মেসবাহ কামাল, ড. বদিউল আলম মজুমদার, ড. মোহাম্মদ আবদুল মজিদ, বুলবুল মহালনবীশ প্রমুখ।

© সমকাল ২০০৫ - ২০২২

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com