হানিফ সিটি করপোরেশনের কেউ নন, গাড়ি হাতে পান সুসম্পর্ক থেকে

প্রকাশ: ২৭ নভেম্বর ২১ । ১৫:৪৩ | আপডেট: ২৭ নভেম্বর ২১ । ১৯:১১

সমকাল প্রতিবেদক

রাজধানীর পান্থপথে আহসান কবীর খানকে চাপা দেওয়া ময়লার গাড়ির চালক মো. হানিফ ওরফে ফটিক ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) কেউ নন। ডিএনসিসিতে কর্মরত ব্যক্তিদের সঙ্গে ‘সুসম্পর্কের’ কারণে তিনি ময়লা গাড়ি পেয়েছিলেন।

আজ শনিবার রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক খন্দকার আল মঈন এসব কথা বলেন

তিনি বলেন, গত বৃহস্পতিবার পান্থপথে সংবাদকর্মী আহসান কবীর খানকে চাপা দেওয়া গাড়ি মো. হানিফ (২৩) চালাচ্ছিলেন। তার সঙ্গে সহকারী হিসেবে ছিল ১০ বছরের এক শিশু। পান্থপথ হয়ে গাবতলীতে ময়লা ফেলার কথা ছিল তাদের। প্রতিদিনের মতো ওই দিনও তিন থেকে চারবার এ পথে যাওয়ার কথা ছিল গাড়িটির। তৃতীয়বার ময়লা নিয়ে যাওয়ার সময় দুর্ঘটনা ঘটে এবং তারা ভয়ে পালিয়ে যান। মো. হানিফ প্রথমে গাবতলীতে যান, পরে সেখান থেকে চাঁদপুরে নানাবাড়িতে আত্মগোপন করেন।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, মো. হানিফের হালকা গাড়ি চালানোর সনদ আছে। তিনি সিটি করপোরেশনের গাড়ি সারাইখানায় সহকারী হিসেবে সাত থেকে আট বছর কাজ করেছেন। পরে সিটি করপোরেশনের বিভিন্ন পদে কর্মরত ব্যক্তিদের সঙ্গে হানিফ সুসম্পর্ক গড়ে তোলেন। তারাও সিটি করপোরেশনের গাড়ি হানিফের হাতে ছেড়ে দিতে শুরু করেন। ২০১৯ সালে তিনি হালকা যান চালানোর সনদ পান। প্রথমে ছোট ট্রাক চালাতেন, এরপর ময়লার ট্রাক হাতে পান।

খন্দকার আল মঈন জানান, জিজ্ঞাসাবাদে র‌্যাব জেনেছে, ময়লার গাড়ি চালানোর বিনিময়ে হানিফ কোনো টাকা পেতেন না। প্রতিদিন গাড়ির জন্য যে তেল বরাদ্দ থাকত, সেখান থেকে বেঁচে যাওয়া তেল বেচতেন হানিফ। এটাই ছিল অলিখিতভাবে তার মজুরি।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর পান্থপথে ময়লার গাড়ির চাপায় মারা যান সংবাদকর্মী আহসান কবীর খান। তিনি একজনের সঙ্গে মোটরসাইকেলে রাইড শেয়ারিং করছিলেন। পেছন থেকে ময়লার গাড়ির ধাক্কায় তিনি রাস্তায় ছিটকে পড়েন। এ সময় গাড়িটি তার মাথার ওপর দিয়ে চলে যায়। এ ঘটনায় অজ্ঞাতনামা চালককে আসামি করে আহসান কবীরের স্ত্রী নাদিরা পারভীন কলাবাগান থানায় মামলা করেন।

© সমকাল ২০০৫ - ২০২২

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com