নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচন

আবারও আইভীর ওপর আস্থা রাখল আওয়ামী লীগ

প্রকাশ: ০৩ ডিসেম্বর ২১ । ২০:৪৩ | আপডেট: ০৩ ডিসেম্বর ২১ । ২১:৪২

বিশেষ ও নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি

ডা. সেলিনা হায়াত আইভী

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন (নাসিক) নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাচ্ছেন ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী। গত নির্বাচনেও তিনি আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়ে বিপুল ভোটের ব্যবধানে নির্বাচিত হয়েছিলেন। এবার তার মনোনয়ন পাওয়ার বিষয়টি এখন পর্যন্ত দলীয় পর্যায় থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকাশ করা হয়নি।

গত বৃহস্পতিবার আওয়ামী লীগের সংসদীয় ও স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনোনয়ন বোর্ডের যৌথসভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ দলের নীতিনির্ধারক নেতারা সেলিনা হায়াৎ আইভীকে মনোনয়ন দেওয়ার বিষয়ে ইতিবাচক মনোভাব দেখিয়েছেন।

আওয়ামী লীগ সভাপতিমণ্ডলীর দু'জন প্রভাবশালী সদস্য এই তথ্য জানিয়ে সমকালকে বলেছেন, নাসিক নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী বাছাইয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য মনোনয়ন বোর্ডের শীর্ষ নেতারা শুক্রবার মুলতবি বৈঠকে বসেছেন। রাত সাড়ে ৮টায় এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারি বাসভবন গণভবনে বৈঠক চলছিল।

গঠনতান্ত্রিক নিয়ম অনুযায়ী, স্থানীয় সরকার নির্বাচনে আওয়ামী লীগ দলীয় মনোনয়নের জন্য তৃণমূল পর্যায় থেকে তিনজন সম্ভাব্য প্রার্থীর নাম কেন্দ্রে পাঠানো হয়ে থাকে। নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকেও নাসিক নির্বাচনে দলীয় প্রার্থিতার জন্য তিনজনের নামের একটি তালিকা পাঠানো হয়েছে। সেই তালিকায় ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর নাম নেই। সেখানে নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক খোকন সাহা, সহসভাপতি চন্দন শীল ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত মোহাম্মদ শহীদ বাদলের নাম রয়েছে।

ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী সমকালকে জানিয়েছেন, তৃণমূল থেকে কেন্দ্রে পাঠানো তালিকায় তার নাম আছে কি নেই, সেটা তিনি জানেন না। এ বিষয়ে এই মুহূর্তে এর চাইতে বেশি কিছু বলারও নেই। তবে গত নির্বাচনের সময়ও তৃণমূল পর্যায় থেকে তার নাম পাঠানো হয়নি। তৃণমূল থেকে কেন্দ্রে তার নাম পাঠানো হয় না। সেলিনা হায়াৎ আইভী নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি।

তিনি বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা তাকে এই পদ দিয়েছেন। সাংগঠনিক দায়িত্ব পালনের বেলায় সব সময়ই সচেষ্ট ছিলেন।

সবসময়ই নারায়ণগঞ্জের মানুষের সুখে-দুঃখের সঙ্গে একাত্ম হয়ে থাকেন জানিয়ে আইভী বলেন, আওয়ামী লীগ বড় রাজনৈতিক দল। নেতার সংখ্যাও বেশি। সুতরাং দলে ছোটখাটো সমস্যা থাকতেই পারে। এটা বড় কিছু নয়। তা ছাড়া এসব মেনে নিয়েই চলতে হবে।

এক প্রশ্নের জবাবে আইভী বলেন, ‘দলের মনোনয়ন পাব কিনা জানি না? তবে দলের শৃঙ্খলা মেনে চলব। মেয়র পদে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছি। কিন্তু দল মনোনয়ন না দিলে নির্বাচনে প্রার্থী হবো না।'

এদিকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে আইভীর মনোনয়ন চূড়ান্ত হওয়ার খবরে দলের আগ্রহী অন্য তিন প্রার্থীর অনুসারীসহ জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের একাংশের নেতাকর্মীদের মধ্যে হতাশা নেমে আসে।

আইভীর প্রতিপক্ষ হিসেবে দলে থাকা অংশের বেশ কয়েকজন নেতার সঙ্গে যোগাযোগ করলে তারা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, এবার আমাদের ধারণা ছিল প্রার্থী পরিবর্তন হবে। নানা কারণেই এমন ধারণা বদ্ধমূল হয়েছিল। কিন্তু নেত্রী যেটা ভালো মনে করেছেন, সেটাই করেছেন। আমরা দলের প্রার্থীর পক্ষেই কাজ করব।

এদিকে মেয়র আইভীর মনোনয়ন নিশ্চিত হওয়ার খবরে শুক্রবার রাতে নগরের ২ নম্বর রেলগেটের জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয় থেকে আনন্দ মিছিল বের করেন আওয়ামী লীগ জাতীয় পরিষদ সদস্য অ্যাডভোকেট আনিসুর রহমান দিপু।

মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জিএম আরাফাত বলেন, আমাদের বদ্ধমূল বিশ্বাস ছিল, নেত্রী নারায়ণগঞ্জের মানুষের স্পন্দন জানেন এবং বোঝেন। সেই অনুযায়ীই তিনি দলের যোগ্য প্রার্থীর হাতেই দলীয় প্রতীক তুলে দিয়েছেন।

© সমকাল ২০০৫ - ২০২২

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com