'জাওয়াদে'র প্রভাবে সালথায় পেঁয়াজের বীজতলার ব্যাপক ক্ষতি

প্রকাশ: ০৮ ডিসেম্বর ২১ । ১৪:৩৪ | আপডেট: ০৮ ডিসেম্বর ২১ । ১৪:৩৪

সালথা (ফরিদপুর) প্রতিনিধি

ঘুর্ণিঝড় জাওয়াদের প্রভাবে ফরিদপুরের সালথায় পেঁয়াজের বীজতলার ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। টানা দুইদিনের বৃষ্টিতে বীজতলায় পানি জমে গেছে। এতে পেঁয়াজের চারা পঁচে যাচ্ছে। পাশাপাশি বোরো বীজতলাও পানির নিচে ডুবে গেছে।

সালথা উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, পেঁয়াজ চাষে খ্যাত এ উপজেলায় এ বছরে ১২ হাজার হেক্টর জমিতে পেঁয়াজের চাষ হওয়ার কথা ছিল। যার বিপরিতে চাষীরা তাদের কাঙ্খিত বীজ তলা তৈরি করেছেন ৭৫২ হেক্টর জমিতে। অতি বৃষ্টিতে ৪২০ হেক্টর বীজতলায় পানি জমে চারা নষ্ট হয়ে গেছে। যার বাজার মূল্য প্রায় সাড়ে সাত কোটি টাকা। এছাড়াও ৮৫ হেক্টর মুড়িকাটা পেঁয়াজ ক্ষেতের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। ২৭ হেক্টর বোরো বীজ তলায় ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এ ছাড়াও ৬২০ হেক্টর জমিতে গমের আবাদ হয়েছিল। তাও এখন পানির নিচে।

উপজেলার কৃষকরা জানান, বীজতলা নষ্ট হওয়ায় তারা অসহায় হয়ে পড়েছেন। ক্ষেত থেকে পানি নামার পর আবার বীজ কিনে এখন আবার তাদের বীজতলা তৈরী করতে হবে। তারা আরও জানান, পুনরায় বীজতলা তৈরি করতে একদিকে যেমন পেঁয়াজ চাষে বিলম্ব হবে তেমনি তাদেরকে অর্থের ক্ষতিরও সম্মুখীন হতে হবে।

উপজেলার বিভাগদী গ্রামের পিঁয়াজ চাষী আলতাফ শেখ জানান, তিনি ১২ কেজি বীজ কিনে সাড়ে তিন একর জমিতে বীজতলা তৈরি করেছিলেন পেঁয়াজের চাষ করতে। কিন্তু বৃষ্টির কারণে জমিতে পানি জমে চারা নষ্ট হয়ে যাচ্ছে , নতুন করে বীজফেলার সময়ও শেষ হয়ে গেছে ।

মিরেকান্দা  গ্রামের পিয়াজ চাষী মোহাম্মাদ আলী বলেন, আমি প্রতি বছর ১০ বিঘা জমিতে পেঁয়াজের চাষ করি। তাই এ বছর সেই জমিতে পেঁয়াজের চাষ করতে ১২ কেজি দানা কিনে বীজতলা তৈরি করেছিলাম। কিন্তু বৃষ্টিতে সব শেষ। এখন আমি কি করব ভেবে পাচ্ছি না।

তিনি আরও বলেন, যেহেতু প্রাকৃতিক দূর্যোগের কারণে ক্ষতি হয়েছে তাই সরকারের কাছে আমরা বীজ কিনে দেওয়ার দাবি জানাই।

 বড় বাহিরদিয়া গ্রামের আরেক চাষী মতিউর রহমান বলেন, আমাদেরতো সব শেষ হয়ে গেছে। এখন সরকার যদি আমাদের পাশে থেকে সাহায্য সহযোগিতা না করে তাহলে এত টাকা খরচ করে পুনরায় বীজতলা তৈরি করে পেঁয়াজের আবাদ করা সম্ভব না।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জীবাংশু দাস বলেন, সালথা উপজেলায় এ বছরে ১২ হাজার হেক্টর জমিতে পেঁয়াজের চাষ হওয়ার কথা ছিল। যার বিপরীতে ইতোমধ্যে কৃষকরা ৭৫২ হেক্টর জমিতে বীজতলা তৈরি করেছেন। ঘুর্ণিঝড় জাওয়াদের প্রভাবে এর প্রায় ৫৫ ভাগ বীজতলা ক্ষতিকগ্রস্ত হয়েছে। এছাড়া ৮৫ হেক্টর মুড়িকাটা পেঁয়াজ, ২০ হেক্টর দানা পেঁয়াজের জমি, ৫২০ হেক্টর মসুর,  ৪২০ হেক্টর সরিষা এবং  গম, কালোজিরা, মটরসহ বিভিন্ন রবি ফসলের জমি এই বৃষ্টিতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

তিনি আরও বলেন,পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে নালা কেটে পানি বের করে দেওয়া, জমিতে সার প্রয়োগ না করাসহ বিভিন্ন পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে কৃষকদের জন্য।

© সমকাল ২০০৫ - ২০২২

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৭১৪০৮০৩৭৮ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com