দিল্লি ক্যান্টনমেন্টে জেনারেল বিপিনের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া আজ

প্রকাশ: ০৯ ডিসেম্বর ২১ । ১০:২২ | আপডেট: ১০ ডিসেম্বর ২১ । ১১:১০

অনলাইন ডেস্ক

জেনারেল বিপিন ২০১৯ সালের জানুয়ারিতে ভারতের প্রতিরক্ষা প্রধান বা চিফ অব ডিফেন্স স্টাফের দায়িত্ব নিয়েছিলেন। ছবি: এনডিটিভি।

সামরিক হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় নিহত ভারতের সেনা সর্বাধিনায়ক জেনারেল বিপিন রাওয়াতের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া শুক্রবার অনুষ্ঠিত হবে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় জেনারেল বিপিন রাওয়াত ও তার স্ত্রীর মৃতদেহ দিল্লির বাসভবনে নেওয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং, এবং তিন সেনা প্রধান শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন।

জেনারেল বিপিন রাওয়াতের শেষকৃত্য অনুষ্ঠিত হবে শুক্রবার দিল্লি ক্যান্টনমেন্ট এলাকায়। এই দুর্ঘটনায় বেঁচে থাকা একমাত্র সেনাকর্মী গ্রুপ ক্যাপ্টেন বরুণ সিং বর্তমানে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তাঁর শরীরের ৪৫ শতাংশ দুর্ঘটনায় পুড়ে গেছে বলে জানা গেছে।  

শুক্রবার সকাল ১০টায় জেনারেল বিপিন রাওয়াতের বাসভবনে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ শ্রদ্ধা জানান। শ্রদ্ধা জানাতে দিল্লির নাগরিকরা প্রয়াত চিফ অফ ডিফেন্স স্টাফের বাসভবন থেকে ব্রার স্কোয়ার পর্যন্ত রাস্তার পাশে পোস্টার লাগান। কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী তার শ্রদ্ধা জানান সকাল ৯.৩০ টায়। 

জেনারেল বিপিন রাওয়াতকে বেলা ১১টা থেকে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত কামরাজ মার্গের বাসভবনে সাধারণ নাগরিকরা শ্রদ্ধা জানাবেন। দুপুর সাড়ে ১২টা থেকে ১.৩০ পর্যন্ত সামরিক বাহিনীর কর্মীরা শ্রদ্ধা জানাবেন। এরপর দিল্লি ক্যান্টনমেন্টের ব্রার স্কোয়ারে শেষকৃত্যের জন্য মরদেহ নিয়ে যাওয়া হবে।

বুধবার দুপুরে তামিল নাড়ুর কুন্নুরে ভারতীয় সামরিক বাহিনীর এমআই ১৭ভি৫ হেলিকপ্টারটি বিধ্বস্ত হয়। এতে বিপিনসহ তার স্ত্রী, পিএসও, সিকিউরিটি কমান্ডো এবং বিমানবাহিনীর সদস্যসহ মোট ১৩ জন নিহত হন। খবর এনডিটিভি। 

দুর্ঘটনার প্রায় ছয় ঘণ্টা পর ভারতীয় বিমান বাহিনীর এক টুইটে হতাহতের সংখ্যা নিশ্চিত করে। বুধবার সকালে দিল্লি থেকে আকাশপথে কোইমবাটোরের সুলুর সেনাঘাঁটিতে গিয়েছিলেন জেনারেল বিপিন। দুপুরে সেখান থেকে নীলগিরির ওয়েলিংটনের ডিফেন্স স্টাফ কলেজে যাওয়ার পথে কুয়াশাচ্ছন্ন আবহাওয়ায় তার হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় পড়ে। দুর্ঘটনার কারণ তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

৬৩ বছর বয়সী জেনারেল বিপিন ২০১৯ সালের জানুয়ারিতে ভারতের প্রতিরক্ষা প্রধান বা চিফ অব ডিফেন্স স্টাফের দায়িত্ব নিয়েছিলেন। সেনা, নৌ ও বিমানবাহিনীর মধ্যে সমন্বয় করতেই প্রথমারের মতো দেশটিতে পদটি সৃষ্টি করা হয়। নতুন সৃষ্ট সামরিক বিষয়ক বিভাগের প্রধান হিসেবেও দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন এই চারতারকা জেনারেল।

বিপিনের মৃত্যুর পর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে মন্ত্রিসভার নিরাপত্তা কমিটির জরুরি বৈঠক হয়। টুইটে শোক প্রকাশ করে মোদি লিখেছেন, বিপিন ছিলেন অত্যন্ত অভিজ্ঞ। তার অসাধারণ সেবার কথা ভারত কখনও ভুলবে না। তিনি ছিলেন সত্যিকারের দেশপ্রেমিক। সশস্ত্র বাহিনীর আধুনিকায়নে তিনি বিশাল অবদান রেখেছেন। কৌশলগত ব্যাপারে তার অন্তর্দৃষ্টি ছিল ব্যতিক্রমী।


© সমকাল ২০০৫ - ২০২২

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com