বঙ্গবন্ধুর ছবির পাশে পাকিস্তানি নৃত্য

শারজাহ বাংলাদেশ সমিতির দুই নেতাকে অব্যাহতি

প্রকাশ: ১৯ জানুয়ারি ২২ । ২১:১১ | আপডেট: ১৯ জানুয়ারি ২২ । ২১:১১

কামরুল হাসান জনি, ইউএই

সংযুক্ত আরব আমিরাতের শারজাহ বাংলাদেশ সমিতির দুই নেতাকে দায়িত্বে অবহেলা ও উদাসীনতার দায়ে সাময়িকভাবে অব্যাহতি দিয়েছে দেশটির সরকারি নিবন্ধনপ্রাপ্ত বাংলাদেশ সমিতির কেন্দ্রীয় কার্যালয়। 

সাময়িক অব্যাহতি প্রাপ্তরা হলেন-শারজাহ বাংলাদেশ সমিতির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও সিনিয়র সহ সভাপতি মোহাম্মদ ইসমাইল গনি এবং সাধারণ সম্পাদক শাহ মো. মাকসুদ। তাদের সদস্য নম্বর যথাক্রমে ১১১৯ ও ১১১৭। পুনরায় আদেশ না দেওয়া পর্যন্ত এই পদগুলোতে পরবর্তী সিরিয়াল নম্বর অনুযায়ী নির্বাহী সদস্যরা দায়িত্ব পালন করবেন।

বাংলাদেশ সমিতির আবুধাবি কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেনের স্বাক্ষরিত অব্যাহতিপত্রে শারজাহ শাখার ‘বঙ্গবন্ধু হল’ পাকিস্তান কমিউনিটিকে ভাড়া দেওয়া ও সেখানে পাকিস্তানি অশালীন নৃত্য পরিবেশনার সুযোগ দেওয়াকে দায়িত্বের অবহেলা ও উদাসীনতা বলে উল্লেখ করা হয়।

এতে আরো উল্লেখ করা হয়- মুজিববর্ষ চলার সময় গত ১ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধু হল-এ বঙ্গবন্ধুর ছবির পাশে পাকিস্তানি অশালীন নৃত্য শুধু সমিতির নয়, বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করেছে। যা অমার্জনীয় অপরাধ। শুধু অর্থের বিবেচনায় হল ভাড়ার অজুহাত একেবারেই অগ্রহণযোগ্য।

একই অভিযোগে শারজাহ বাংলাদেশ সমিতিকে শোকজ পত্র দিয়েছে বাংলাদেশ কনস্যুলেট দুবাই। শোকজ পত্রে বঙ্গবন্ধু হলরুমে পাকিস্তানি কমিউনিটি কর্তৃক আয়োজিত অনুষ্ঠানে অশ্লীল, অশোভন ও কুরুচিপূর্ণ নৃত্যানুষ্ঠান আয়োজনের বিষয়ে ব্যাখ্যা চাওয়া হয়। বাংলাদেশ কনস্যুলেটের দেওয়া শোকজ পত্রে স্বাক্ষর করেন কাউন্সেলর ও দূতালয় প্রধান প্রবাস লামারাং।

অভিযোগ ও ঘটনার সত্যতা জানতে চাইলে শারজাহ বাংলাদেশ সমিতির সিনিয়র সহ সভাপতি মোহাম্মদ ইসমাইল গনি জানান, বঙ্গবন্ধু হল-এ পাকিস্তানি কমিউনিটির ঘটনাটি সত্য। তবে হল ভাড়া ও ঘটনাটি অসাবধানতার কারণে হয়েছে।

দুই নেতার অব্যাহতি বিষয়ে কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, মুজিববর্ষ চলাকালে বঙ্গবন্ধু হল-এ পাকিস্তানি কমিউনিটির মাধ্যমে যে কর্মকাণ্ড হয়েছে তা বঙ্গবন্ধু হল-এর নামের সাথে সঙ্গতিপূর্ণ নয়। এই বিষয়ে বাংলাদেশ সমিতির কেন্দ্রীয় কমিটি ক্ষোভ প্রকাশ করেছে। এটিকে অমার্জনীয় অপরাধ বিবেচনা করে দুইজনকে সাময়িকভাবে অব্যাহিত দেওয়া হয়েছে। অধিকতর তদন্তের পর এই বিষয়ে পরবর্তী পদক্ষেপ জানানো হবে।

শোকজ পত্রের বিষয়ে কনস্যুলেটের দূতালয় প্রধান প্রবাস লামারাং জানান, তিন কার্যদিবসের মধ্যে শারজাহ বাংলাদেশ সমিতিকে এই ঘটনার ব্যাখ্যা প্রদান ও কারণ দর্শানোর নোটিশ পাঠালে তারা (সমিতির পক্ষে) কনস্যুলেট বরাবর লিখিত দিয়েছে।

এই ব্যাপারে দুবাই বাংলাদেশ কনস্যুলেটের কনসাল জেনারেল বিএম জামাল হোসেনের মতামত জানতে বেশ কয়েকবার ফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলেও তাকে ফোনে পাওয়া যায়নি। 

© সমকাল ২০০৫ - ২০২২

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com