সার কারখানায় আধিপত্য বিস্তারে আ.লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষ

পুলিশ ও সংবাদিকসহ আহত ৩০

প্রকাশ: ২৪ ফেব্রুয়ারি ২২ । ১৬:৩২ | আপডেট: ২৪ ফেব্রুয়ারি ২২ । ১৬:৩৩

সরিষাবাড়ী (জামালপুর) প্রতিনিধি:

জামালপুরের
সরিষাবাড়ী উপজেলার তারাকান্দিতে অবস্থিত দেশের বৃহৎ ইউরিয়া উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান যমুনা
সার কারখানায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে স্থানীয় আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের
মধ্যে দফায় দফায় হামলা
, ভাঙচুর, ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।

বুধবার রাত থেকে বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত ঘটনায় দুই
গ্রুপের মধ্যে কয়েক দফা সংঘর্ষ হয়েছে। এতে পুলিশ
সংবাদকর্মীসহ অন্তত ৩০ জন আহত হয়েছেন। এদিকে
পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুঁড়েছে পুলিশ।

স্থানীয় সূত্র
জানায়
, তারাকান্দি যমুনা
সারকারখানা নিয়ন্ত্রণকে কেন্দ্র করে উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও তারাকান্দি ট্রাক
মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল আলম মানিক এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক
সম্পাদক ও ট্রাক মালিক সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম রফিকের মধ্যে
দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। কারখানার শ্রমিক-কমর্চারী ইউনিয়নের (সিবিএ) নির্বাচন
উপলক্ষে বৃহস্পতিবার বিকেলে সাধারণ সভা আহ্বান করা হয়। এর আগেই এলাকা নিয়ন্ত্রণে
নিতে মশিউর রহমান মোর্শেদের নেতৃত্বে রফিকুল ইসলামের লোকজন বুধবার বিকেলে
তারাকান্দি শহিদ মিনার প্রাঙ্গণে অবস্থান নেয়।

এসময় আশরাফুল আলম
মানিক গ্রুপের যুবলীগ কর্মী খোকন মিয়াকে (৩৫) বেধড়ক পেটায় প্রতিপক্ষ দলের লোকজন। এ
খবর ছড়িয়ে পড়লে এলাকায় উত্তেজনার সৃষ্টি হয় এবং মানিক গ্রুপের লোকজন দল বেঁধে রফিক
গ্রুপের কামরুজ্জামান ও মোফাজ্জলকে পাল্টা মারধর করে। এসময় উভয়পক্ষের মধ্যে কয়েক
দফা ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া চলে। এরপর খোকন ও কামরুজ্জামানকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে
ভর্তি করা হয়। রাতে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে পুলিশ।



এদিকে বৃহস্পতিবার
সকালে রফিকের লোকজন পুনরায় অবস্থান নিলে নতুন করে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে এবং ফের সংঘর্ষে
জড়ায় উভয়পক্ষ। পাল্টাপাল্টি হামলা
, ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও ইটপাটকেল নিক্ষেপে এলাকা
রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি
বর্ষণ করে।

এসময় এসআই ফয়জুর
রহমান
, এসআই সোহাগ, এএসআই
আবু শামা
, সংবাদকর্মী রাইসুল ইসলাম ও সোহেল রানা আহত হন।
এছাড়া স্থানীয় আনিসুর রহমান (৪০)
, সাইফুল ইসলাম
(৩২)
, মো. মণ্ডল (২৫),
শফিকুল ইসলাম (৩০),
মিন্টু মিয়াসহ (৩০)
উভয়পক্ষে অন্তত ৩০ জন আহত হয়।



কারখানার
শ্রমিক-কমর্চারী ইউনিয়নের (সিবিএ) সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান জানান
, আসন্ন সিবিএ নির্বাচনকে প্রভাবিত করতে একটি
পক্ষ এলাকায় অস্থিতিশীল পরিস্থিতির সৃষ্টি করছে। প্রশাসন কঠোর না হলে নির্বাচনে বড়
ধরনের সহিংসতার আশঙ্কা রয়েছে বলে দাবি করেন তিনি।



তারাকান্দি ট্রাক
মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল আলম মানিক অভিযোগ করেন
, সিবিএ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে রফিকুল ইসলাম
প্রভাব বিস্তারের চেষ্টা করছে। বিএনপি থেকে আসা তার ক্যাডার মোর্শেদকে দিয়ে এলাকায়
হামলা ও ভীতি সঞ্চার করায় বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি হয়েছে।



এ ব্যাপারে
জামালপুরের এএসপি (সদর সার্কেল) মো. জাকির হোসেন সুমন জানান
, যমুনা সারকারখানার সিবিএ'র নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দুইপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ
হয়। দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোড়ে
পুলিশ। এসময় কয়েকজন পুলিশ সদস্য আহত হন। সংঘর্ষ এড়াতে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ
মোতায়েন করা হয়েছে।

© সমকাল ২০০৫ - ২০২২

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com