'বিশ্রাম নেওয়ার স্বাধীনতা থাকা উচিত'

প্রকাশ: ১৬ মার্চ ২২ । ০০:০০ | আপডেট: ১৬ মার্চ ২২ । ১০:৪২ | প্রিন্ট সংস্করণ

সেকান্দার আলী

ঢাকা প্রিমিয়ার ক্রিকেট লিগে মোহামেডানের হয়ে খেলতে এসেছেন মোহাম্মদ হাফিজ

পাকিস্তানের হয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলেছেন। বিপিএলেও খেলেছেন তিন মৌসুম। অথচ ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে (ডিপিএল) কখনোই খেলা হয়নি তার। হাফিজকে সে সুযোগ করে দিল মোহামেডান স্পোর্টিং। ঢাকার ঐতিহ্যবাহী এ ক্লাবের সঙ্গে গতকাল চুক্তিবদ্ধ হলেন এ পাকিস্তানি। মোহামেডানের জার্সিতে আজই ম্যাচ খেলবেন তিনি। ঢাকা লিগ এবং বাংলাদেশের ক্রিকেট নিয়ে গতকাল বনানীতে খোলামেলা কথা বলেন হাফিজ, শুনেছেন সেকান্দার আলী



প্রশ্ন :
ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে আপনাকে স্বাগতম। মোহামেডান ক্লাবে খেলার জন্য কোন জিনিস আগ্রহী করেছে?

হাফিজ :
ঐতিহ্যবাহী ক্লাবটির অংশ হতে পারা আনন্দের। জাতীয় দলের হয়ে খেলতে এলেই এই দলের কথা শুনতাম। মানুষ এই ক্লাব নিয়ে কথা বলে। সাব্বির ভাইয়ের কাছ থেকে প্রস্তাব পাওয়ার পরই আমি রাজি হয়ে যাই। কিছু ম্যাচ খেলে ঐতিহ্যবাহী ক্লাবটির অভিজ্ঞতা নিতে চাই। আমি জানি এখানে প্রতিদ্বন্দ্বিতা থাকে। উত্তেজনাকর সে চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করতে মুখিয়ে আছি। বাংলাদেশের তরুণ এবং অভিজ্ঞ ক্রিকেটারদের সঙ্গে খেলা উপভোগ হবে আমার বিশ্বাস।

প্রশ্ন :জাতীয় দলের বেশিরভাগ খেলোয়াড় নেই। আপনার ওপর ফোকাসটা বেশি থাকবে।

হাফিজ :
এই টুর্নামেন্টে প্রতিটি দলই নিজেদের সেরা কয়েকজন খেলোয়াড়কে পাবে না। তারা দ্রুত ফিরে আসবে। আমাদের দলে যারা আছে, তাদের নিয়েই দল হিসেবে ভালো খেলতে চাই। তরুণদের জন্য এটা দারুণ সুযোগ নিজেদের মেলে ধরার। প্রতিটি দলেই তরুণরা সুযোগ পাবে। সব মিলিয়ে দল হিসেবে আমরা খুবই আত্মবিশ্বাসী। সৌম্যর মতো আন্তর্জাতিক খেলোয়াড়ও পাচ্ছি। আমরা জানি সে কতটা প্রতিভাবান।

প্রশ্ন :মোহামেডান তো চ্যাম্পিয়ন হতে চায়?

হাফিজ :
এটা আগে থেকেই অনুমান করা কঠিন। চ্যাম্পিয়ন হব আগে থেকে বলে দেওয়া সম্ভব না। তবে মাঠে ভালো করতে হবে। আমি মাঠে কাজ করতে চাই। আশা করি, দল হিসেবে আমরা ভালো করব। সঠিক পথে থাকলে ভালো করার সুযোগ থাকবে। সেক্ষেত্রে চ্যাম্পিয়ন রেসে থাকতে পারব।

প্রশ্ন :আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর নেওয়ার পর খেলা চালিয়ে যাওয়ার মোটিভেশন কী?

হাফিজ :
মোটিভেশন হলো, আমি খেলাটিকে উপভোগ করি। হ্যাঁ, আমি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর নিয়েছি। তবে ব্যক্তিগতভাবে আমি মনে করি, এখনও ক্রিকেটকে আরও কিছু দেওয়ার আছে। সেখান থেকেই আমি উজ্জীবিত হই। আমি প্রসেস অনুসরণ করি। চেষ্টা করি তরুণরা যেন আমার কাছ থেকে কিছু শিখতে পারে। বেসিক্যালি আনন্দ এবং খুশির জন্যই খেলি।

প্রশ্ন :মোহামেডান যে আবাহনীর চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী, তা জানেন?

হাফিজ :
আমি শুনেছি, তবে কখনও অভিজ্ঞতা হয়নি। প্রথমবারের মতো ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে খেলতে এসেছি। আমি প্রতিবার বাংলাদেশে এসেই এ দুই দলের প্রতিদ্বন্দ্বিতার কথা শুনেছি ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ নিয়ে। মোহামেডান ক্লাব সম্পর্কে অনেক শুনেছি। এটা ঐতিহ্যবাহী একটি দল। সমর্থকরা খুবই একাগ্র। তারা ক্লাবটিকে নিজের মনে করে। সত্যি বলতে, আমার প্রথম অভিজ্ঞতা হবে।

প্রশ্ন :সাকিব, মুশফিক, মাহমুদউল্লাহও মোহামেডান দলে খেলবে?

হাফিজ :
তারা খুবই ভালোমানের বাংলাদেশি ক্রিকেটার। আমি তাদের খুবই উঁচু মানের মনে করি। তারা নিজের দেশকে সেবা দিচ্ছে। প্রতিপক্ষ হিসেবে আমরা অনেক গেম খেলেছি। একই দলের হয়ে খেলা এই প্রথম। আমরা একসঙ্গে খেলে ভালো কিছু করার জন্য উন্মুখ হয়ে আছি।

প্রশ্ন :গত দুই বছর বায়ো-বাবলে খেলেছেন। ঢাকা লিগে কোনো বায়ো-বাবল নেই?

হাফিজ :
এটা অন্যতম কারণ মোহামেডানের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হওয়ার (হাসি)। এটা ছোট বিষয়, কিন্তু অনেক বড়। আমি বলেছি বায়ো-বাবল থাকলে খেলব না। যখন বলেছে নেই, তখন বলেছি- আমি বাংলাদেশের সুন্দর সংস্কৃতির সঙ্গে সম্পৃক্ত হতে চাই। এখানে থাকা এবং ক্রিকেট খেলাটাকে উপভোগ করতে চাই। বায়ো-বাবল মেন্টাল ব্লক তৈরি করে। এই লিগ সবাই উপভোগ করবে আমি নিশ্চিত। একই সঙ্গে সবাই শতভাগ পারফর্মও করবে।

প্রশ্ন :কভিড সময়ে মেন্টাল হেলথের বিষয়টি ক্রিকেটে যোগ হয়েছে। সাকিব এখন মানসিক হেলথের কথা বলছেন। আপনার অভিজ্ঞতা কী?

হাফিজ : 
আমরা প্রত্যেকেই মানুষ। ২০২০ সালে যখন বায়ো-বাবল শুরু হলো, তখন আড়াই মাস ইংল্যান্ডে থাকতে হয়েছে। দেশে পরিবার রেখে থাকা খুবই কঠিন ছিল। মেন্টালি যে কোনো সময় ব্রেক দরকার পড়তে পারে। প্রত্যেকের বিশ্রামের সিদ্ধান্ত নেওয়ার স্বাধীনতা থাকা উচিত। আমরা এখন জানি কীভাবে জীবন যাপন করতে হবে। প্রায় সবাই ভ্যাকসিন নিয়েছে। এখন স্বাভাবিক জীবন যাপন করতে হবে। পেশাদার ক্রিকেটে উদ্দীপনা থাকবে, চাপও থাকবে। এর ভেতর থেকেই নিজেকে রিফ্রেশ করতে হবে। আমি আশা করি, আন্তর্জাতিক ক্রিকেট এবং লিগ এ বিষয়টি বুঝবে।

© সমকাল ২০০৫ - ২০২২

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৭১৪০৮০৩৭৮ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com