ইসিকে সাহসী পদক্ষেপ নিতে হবে: জাফরুল্লাহ চৌধুরী

প্রকাশ: ২২ মার্চ ২২ । ১৯:১০ | আপডেট: ২২ মার্চ ২২ । ১৯:১০

সমকাল প্রতিবেদক

সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য কাজী হাবিবুল আউয়াল নেতৃত্বাধীন নির্বাচন কমিশনকে সাহসী পদক্ষেপ নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী। 

তিনি বলেন, সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে নির্বাচন কমিশনকে অবশ্যই সত্য বলতে হবে।

নির্বাচনী সংলাপে নতুন নির্বাচন কমিশন যখন দেশের বিভিন্ন স্তরের নাগরিক ব্যক্তিত্ব ও রাজনৈতিক দলগুলোকে আমন্ত্রণ জানাতে শুরু করেছে, তখন দেশের বৃহত্তম রাজনৈতিক দল বিএনপি তা প্রত্যাখান করছে।

এ বিষয়টি সামনে এনে জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘এটি কঠিন সমস্যা, দেশের বিরাট একটি রাজনৈতিক দল বয়কট করে বেড়াচ্ছে। এটা সমস্যা। এর সমাধান করতে হবে।’ 

মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর আগারগাঁওয় নির্বাচন ভবনে ইসির সঙ্গে নাগরিক ব্যক্তিত্বদের সংলাপ শেষে তিনি এসব কথা বলেন।

জাফরুল্লাহ চৌধুরী জানিয়েছেন, জোনায়েদ সাকির নেতৃত্বাধীন গণসংহতি আন্দোলন ও মাহমুদুর রহমান মান্নার নাগরিক ঐক্যকে নিবন্ধন দেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন তিনি।

সংলাপে জাফরুল্লাহ চৌধুরী ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন সিপিডির বিশেষ ফেলো দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য, সাবেক পররাষ্ট্র সচিব মহিউদ্দীন আহমেদ, ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামান, সাবেক মন্ত্রিপরিষদ সচিব আলী ইমাম মজুমদার, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ফরাসউদ্দিন আহমেদ, বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) সাবেক চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক রুবায়েত ফেরদৌস, আইন বিভাগের অধ্যাপক হাফিজুর রহমান কার্জন, লেখক ও গবেষক মহিউদ্দিন আহমেদ ও সাবেক সচিব আব্দুল লতিফ মণ্ডল।

নির্বাচন কমিশনের ধারাবাহিক সংলাপের দ্বিতীয় দফায় ৩৭জন বিশিষ্ট নাগরিককে আমন্ত্রণ জানান হয়। তবে সংলাপে অংশ নিয়েছেন মাত্র ১৯ জন। 

এর আগে ১৩ মার্চ অনুষ্ঠিত প্রথম ধাপে শিক্ষাবিদদের সঙ্গে সংলাপে ৩০ জনকে আমন্ত্রণ জানানো হলেও মাত্র ১৩ জন অংশ নিয়েছেন। 

মঙ্গলবারের সংলাপে অংশ নিয়ে বিশিষ্টজনরা বলেছেন, সংলাপে অংশ নেওয়ার ক্ষেত্রে তাদের তেমন আগ্রহ না থাকলেও প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়ালের টেলিফোন পেয়ে তারা অংশ নিয়েছেন।

টানা দুই ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে অনুষ্ঠিত এই সংলাপে অংশ নিয়ে বিশিষ্টজনরা নির্বাচন ব্যবস্থার প্রতি আস্থা ফিরিয়ে আনা, ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিন-ইভিএমে ব্যবহার না করা, নির্বাচনের সময় মাঠ প্রশাসনকে সরকারের প্রভাবমুক্ত রাখা, নির্বাচনী মাঠে ধর্মের ব্যবহার বন্ধ এবং সরকারের দিক থেকে প্রতিবন্ধকতা আসলে নির্বাচন কমিশনকে পদত্যাগের পরামর্শ দিয়েছেন।



© সমকাল ২০০৫ - ২০২২

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com