পাঠক কমছে বাড়ছে লেখক

প্রকাশ: ২৫ মার্চ ২২ । ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

হাসান হামিদ

এবার দুই সপ্তাহ দেরিতে শুরু হওয়া বইমেলা টানা ৩১ দিন চলে। ১৭ মার্চ পর্দা নামে অমর একুশে গ্রন্থমেলার। ১৮ মার্চ সমকালের শেষ পাতায় 'শেষ দিনের আনন্দ রাগিণী' শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ যখন বিশ্বব্যাপী বাড়ছিল তখন সবাই ভেবেছিল, এই সময়ে ই-বুকের বিক্রি বাড়বে; কমে যাবে ছাপা বইয়ের বিক্রি। অথচ অবাক ব্যাপার, করোনাকালেও ছাপা বই-ই বিক্রি হয়েছে বেশি। বিভিন্ন পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, ২০২১ সালে বিশ্বের বইয়ের বাজার ছাপা বই থেকে আয় করেছে ১৪ দশমিক ৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। এর মধ্যে ই-বুক বিক্রি হয়েছে মাত্র ১০ শতাংশ। তবে সামনে এই ই-বুক বিক্রি হয়তো কিছুটা বাড়বে। কেননা, মানুষ এখন বেশি সময় কাটায় স্মার্টফোন বা কম্পিউটারে। তবে এও নিশ্চিত, ছাপা বই খুব সহজে একেবারে হারিয়ে যাচ্ছে না।

সম্প্রতি শেষ হওয়া অমর একুশে বইমেলায় ৫২ কোটি টাকার বেশি বই বিক্রি হয়েছে। ২০২১ সালের করোনাকালে বইমেলায় প্রায় তিন কোটি টাকার বই বিক্রি হয়েছিল। আর করোনাকালের আগের সর্বশেষ মেলায় অর্থাৎ ২০২০ সালে বিক্রি হয়েছিল প্রায় ৮২ কোটি টাকার বই। ২০১৯ সালে প্রায় ৮০ কোটি টাকার; ২০১৮ সালের মেলায় বই বিক্রি হয়েছিল ৭০ কোটি টাকার। ২০১৭ সালে বিক্রি হয়েছিল ৬৫ কোটি ৪০ লাখ টাকা, ২০১৬ সালে ৪২ কোটি, ২০১৫ সালে প্রায় ২২ কোটি টাকার। আর ২০১৪ সালের বইমেলায় বই বিক্রি হয়েছিল মাত্র সাড়ে ১৬ কোটি টাকার। এ বছর অনেকে ভেবেছিলেন, বেশি বই বিক্রি হবে। কিন্তু তা হয়নি। ২০২০ সালের বইমেলায় বাংলা একাডেমি বিক্রি করেছিল মোট দুই কোটি ৪৬ লাখ টাকার বই এবং ২০২১ সালে মাত্র ৪৬ লাখ টাকার বই। এবার বাংলা একাডেমি বিক্রি করেছে এক কোটি ২৭ লাখ টাকার বই। মেলার সময় কোনো কোনো লেখক মরিয়া হয়ে ওঠেন নিজেকে বেস্ট সেলার লেখক প্রমাণ করতে। কিন্তু প্রকৃত বেস্ট সেলার লেখক কখনও বলে বেড়াবেন না; প্রমাণ করতে চাইবেন না- তিনি বেস্ট সেলার।

ঢাকা

© সমকাল ২০০৫ - ২০২২

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৭১৪০৮০৩৭৮ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com