কালের আয়নায়

সমুদ্রতটে একা আওয়ামী লীগ

প্রকাশ: ০৫ মার্চ ২২ । ০০:০০ | আপডেট: ০৫ মার্চ ২২ । ০২:০২ | প্রিন্ট সংস্করণ

আবদুল গাফ্‌ফার চৌধুরী

ইউক্রেনে যুদ্ধ চলছে। যেভাবেই হোক আমেরিকা টেনেটুনে রাশিয়াকে যুদ্ধে নামতে বাধ্য করেছে। আমার ঘরের প্রতিবেশী হয়ে আপনি আমাকে নিত্য সকালে ধমকাবেন, অস্ত্রের ঝনঝনানি শোনাবেন, আর আমি কিছু করব না, তা তো হয় না। অন্যদিকে, বাংলাদেশে চলছে রাজনৈতিক অনিশ্চয়তা। সরকার একজন ভালো এবং নিরপেক্ষ লোককেই প্রধান নির্বাচন কমিশনার নিযুক্ত করেছে। কাজী হাবিবুল আউয়াল ভালো এবং নিরপেক্ষ লোক। কিন্তু বিএনপি তাকেও মানবে বলে মনে হয় না। বিএনপি দেশে ক্রমাগত অনিশ্চয়তা সৃষ্টি করার চেষ্টা করবে। আর আওয়ামী লীগ চুপচাপ ঘরে বসে থাকবে, তা তো হয় না। আওয়ামী লীগকে দেশের অনিশ্চয়তা দূর করার জন্য ক্ষমতায় থেকে যতটুকু করা দরকার, তা করতে হবে। ইউক্রেনে যুদ্ধের জন্য যেমন রাশিয়ার ওপর দোষ চাপানো হচ্ছে, তেমনি বাংলাদেশে রাজনৈতিক অনিশ্চয়তা সৃষ্টির জন্য আওয়ামী লীগের ওপর দোষ চাপানো হবে, এটা তো স্বাভাবিক।

তাই কী নিয়ে লিখব ভাবছিলাম। ইউক্রেন না বাংলাদেশ? ইউক্রেনে যে যুদ্ধটা চলছে তাকে প্রচার করা হচ্ছে ইউক্রেন ও রাশিয়ার মধ্যে যুদ্ধ। আসলে যুদ্ধটা হচ্ছে আমেরিকার সঙ্গে। আমেরিকা সেখানে প্রত্যক্ষভাবে যুদ্ধে নামেনি, কিন্তু তার ইউরোপিয়ান মিত্র ও ন্যাটোকে নামিয়েছে। ন্যাটো ব্যাপক অস্ত্র সাহায্য দিয়েছে ইউক্রেনকে। অন্যদিকে, রাশিয়ার বিরুদ্ধে ব্যাপক অর্থনৈতিক অবরোধ চলছে। পরিণামে কী হবে বলা শক্ত। আমার প্রার্থনা, ইউক্রেনে আমেরিকার ষড়যন্ত্র ব্যর্থ হোক এবং ইউক্রেনের মানুষ স্বস্তিপূর্ণভাবে আবার রাশিয়ার মিত্রে পরিণত হোক।

বাংলাদেশে গতবারের সাধারণ নির্বাচনের সময় আমেরিকা কলকাঠি নাড়তে চেয়েছিল, পারেনি। কারণ, ভারত দৃঢ়ভাবে বাংলাদেশে আমেরিকাকে হস্তক্ষেপ করতে দেয়নি। এবার পরিস্থিতি অন্যরকম। ভারত সরকারের সমর্থন এবার আর বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে তেমন নেই। চীন বাংলাদেশকে প্রচুর আর্থিক সাহায্য দিয়ে দ্রুত উন্নয়নের কাজ এগিয়ে দিচ্ছে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল মোমেনকে যখন সম্প্রতি জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল, 'এই বিপুল সাহায্যদান কীভাবে ঠেকানো যায়?' তখন তিনি বলেছেন, 'আমরা কী করব? চীন কাঁড়ি কাঁড়ি টাকা ঢালছে।' এভাবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী কূটনৈতিকসুলভ কথা বলেননি। কিন্তু বাংলাদেশের অসহায়ত্বের কথা প্রকাশ করে দিয়েছেন। বাংলাদেশে চীনের অতিরিক্ত অর্থলগ্নিতে ভারত রুষ্ট। শেখ হাসিনা এতদিন তার ব্যক্তিগত ক্যারিশমা দিয়ে আমেরিকা এবং চীন দুটি পরাশক্তিকেই বাংলাদেশের মিত্র করে রাখতে পেরেছিলেন। বর্তমানে পরিস্থিতি এতটাই জটিল হয়েছে, এই ক্যারিশমা কতটা কাজে লাগবে তা জানি না। তবে আমার ধারণা, শেখ হাসিনাই পারবেন এই আবর্ত থেকে বাংলাদেশকে উদ্ধার করে উভয় পরাশক্তির সঙ্গে সহাবস্থান বজায় রাখতে।

ইউক্রেন এবং বাংলাদেশ, একটিতে যুদ্ধাবস্থা এবং অন্যটিতে রাজনৈতিক অনিশ্চয়তা বিরাজ করছে। এই যুদ্ধাবস্থা ও অনিশ্চয়তা সৃষ্টির মূলে একই শক্তি আমেরিকা। এক মার্কিন সাংবাদিক ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন, আমেরিকা আবার যদি এশিয়ায় কোনো আঞ্চলিক যুদ্ধ বাধাতে চায়, তা হবে চীন ও ভারতের মধ্যে। বাংলাদেশ এক্ষেত্রে গুরুতর বিপদে পড়বে। এমন পরিস্থিতিতে বাংলাদেশকে রক্ষার জন্য দরকার হবে একটি শক্তিশালী স্থিতিশীল সরকার। সেই সরকার একমাত্র গঠন করতে পারবেন শেখ হাসিনা। আমেরিকা চাচ্ছে, শেখ হাসিনা যাতে কোনোরকমেই তার দল নিয়ে নির্বাচিত হতে না পারেন। বিএনপি ক্ষমতায় এলে, সহজেই দেশটাকে আফগানিস্তান বানানো যাবে। বিএনপি ক্ষমতায় এলে কী ধ্বংসকাণ্ড দেশে চলবে, বাংলাদেশের মানুষ তা এখনও অনুমান করতে পারছেন না। আজ ইউক্রেনের মানুষ তাদের দেশে এই ধ্বংসকাণ্ড দেখছে। আমেরিকা প্রত্যক্ষযুদ্ধে নামছে না; কিন্তু তার ইউরোপীয় মিত্র ও ন্যাটোকে দিয়ে সাহায্য জোগাচ্ছে। তেমনি বাংলাদেশে তারা প্রত্যক্ষ হস্তক্ষেপ করবে না; কিন্তু পেছন থেকে সাহায্য জুগিয়ে চাইবে বিএনপিকে ক্ষমতায় বসাতে।

ভারতীয় উপমহাদেশে গত এক হাজার বছর ধরেই চলছে এই বিদেশি হস্তক্ষেপ। প্রাচীন ভারতে দিল্লির রাজা ছিলেন পৃথ্বীরাজ আর পৃথক আজমির রাজ্যের রাজা ছিলেন জয়চন্দ্র। জয়চন্দ্র শক্তিতে ছোট। তাই দিল্লি অধিকার করতে পারবেন না জেনে, কাবুল থেকে বাবরকে ডেকে এনেছিলেন দিল্লি আক্রমণের জন্য। জয়চন্দ্র ভেবেছিলেন, মোগলরা দিল্লি দখল করে কিছু লুটপাট করে চলে যাবে। তখন তিনি দিল্লির রাজা হবেন। কিন্তু বাবর দিল্লি ছেড়ে যাননি। তিনি দিল্লিতে সিংহাসনে বসেন এবং জয়চন্দ্রের রাজ্য আক্রমণ করে তাকেও হত্যা করেন। তার রাজ্য দখল করে নেন। একই ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি হয়েছে বাংলায় নবাব সিরাজুদ্দৌলার শাসনামলে। তারই প্রধান সেনাপতি মীর জাফর ইংরেজ বণিকদের ডেকে নিয়ে এনেছিল সিরাজকে হত্যা করে নিজে নবাব হওয়ার আশায়। সিরাজকে হত্যা করে ইংরেজরা মীর জাফরকে কিছুদিনের জন্য নবাব পদে বসিয়েছিল। তারপর সিংহাসন থেকে ফেলে দিয়েছে। কুষ্ঠ রোগে মীর জাফরের মৃত্যু হয়। ভারতীয় উপমহাদেশে ইংরেজ শাসন অবসানের একশ বছর পূর্ণ না হতেই শুরু হয়েছে একই ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি।

বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার আগে থেকেই উপমহাদেশের রাজনীতিতে আমেরিকা ও চীনের হস্তক্ষেপ প্রবল হয়ে উঠেছিল। বাংলাদেশ যাতে স্বাধীন না হয় সেজন্য এই দুই শক্তি প্রবল চেষ্টা করেছে। দুই শক্তিই পাকিস্তানকে অস্ত্র সাহায্য দিয়েছে। বাংলাদেশের একমাত্র বন্ধু ছিল ভারত। ভারতের অনুরোধে সোভিয়েত ইউনিয়নও বাংলাদেশের পক্ষে দাঁড়ায়। তাই বাংলাদেশের স্বাধীনতা ৯ মাসে অর্জন সম্ভব হয়েছিল। মার্কিন সপ্তম নৌবহরের বঙ্গোপসাগরে যাত্রা ব্যর্থ হয়েছিল। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর আমেরিকা ও চীন যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশকে সাহায্যদানে তেমন এগিয়ে আসেনি। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর তারা তাদের অনুগতদের বাংলাদেশের ক্ষমতায় বসানোর পর দেশটির আদর্শ, উদ্দেশ্য সম্পূর্ণ লন্ডভন্ড করেছে। তারপর বিএনপি নামে যে রাজনৈতিক দল গঠন করা হয়, তাকে দীর্ঘদিন ক্ষমতায় রাখা হয়। তখন আমেরিকা এবং চীন প্রতিযোগিতামূলকভাবে দেশটিতে প্রভাব বিস্তারের জন্য এগিয়ে আসে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ আবার ইতিহাসের চাকা ঘোরায়। বাংলাদেশে একটি আধা-পূর্ণাঙ্গ গণতান্ত্রিক দল ক্ষমতায় বসে। এ দলটিই আওয়ামী লীগ। এই দলটি জিয়াউর রহমান, এরশাদ ও খালেদার আমলের জঞ্জাল পূর্ণ সাফ করতে পারেনি এবং প্রশাসনকেও অতীতের মনোভাব ও আচরণ থেকে মুক্ত করতে পারেনি।

বাংলাদেশে সুশাসন প্রতিষ্ঠিত হয়নি, একথা সত্য। আওয়ামী লীগের ভেতরেও দুর্নীতি আছে এবং দলটির কতিপয় নেতাকর্মীর স্বেচ্ছাচারিতা ও অত্যাচার নিন্দনীয়। তার নিন্দা জ্ঞাপন করে আমি অনেক লেখা লিখেছি। কিন্তু এ কথা সত্য, আওয়ামী লীগ দেশটির স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষা করেছে। বিএনপি চায় দেড়শ বছর আগের মতো ইংরেজের বদলে আমেরিকাকে তাদের মিত্র হিসেবে দেশের রাজনীতিতে টেনে আনতে। তার পাশাপাশি চাচ্ছে চীন। তাদের সাহায্যে বাংলাদেশের দ্রুত অর্থনৈতিক উন্নয়ন হতে পারে। সেই উন্নয়ন হবে সুউচ্চ অট্টালিকার উন্নয়ন, সাধারণ মানুষের উন্নয়ন নয়। চীন দ্রুত উন্নত হয়নি। চীনে কমিউনিস্ট শাসন প্রবর্তিত হওয়ার গোড়ার দিকে কিছু মার্কিন সাংবাদিক চীনে গিয়ে ছবি তুলে আনতেন এটা দেখাবার জন্য, দেশটি এতই গরিব যে, একটি লাঙল কিংবা ট্রাক্টর কেনার পয়সাও চাষিদের নেই। তারা জমি চাষ করে গরুর বদলে নিজেরা জোয়াল কাঁধে নিয়ে। কিন্তু এই ধীর উন্নয়ন চীনকে আজ আমেরিকার প্রতিদ্বন্দ্বী পরাশক্তিতে পরিণত করেছে। বাংলাদেশেও যারা দ্রুত উন্নয়ন দেখতে চান, তাদের বলি, 'ধীরে বন্ধু, ধীরে।' আমাদের উন্নয়নের একটা ধীরগতি থাকলে আজ আমাদের গলায় ফাটা বাঁশ আটকে যেত না। ধীর উন্নয়নের ফসল গিয়ে পৌঁছত সাধারণ মানুষের কাছে। এখন দ্রুত উন্নয়নের ফল যাচ্ছে ধনীদের ঘরে। আওয়ামী লীগকেও বলি, ঢাকা শহরকে দ্রুত উন্নত করার দরকার নেই। ধীর কিন্তু টেকসই উন্নতি হোক উন্নয়ন পরিকল্পনার মূল ভিত্তি। তাতে দেশ মীর জাফরদের কবল থেকে মুক্ত থাকবে।

ইউক্রেনে যদি রাশিয়ার আক্রমণ ব্যর্থ হয়, তাহলে দেশটি হবে ন্যাটোর আণবিক ঘাঁটি। দেশটির ক্ষমতায় বসবে আমেরিকার তাঁবেদার কোনো প্রেসিডেন্ট। সেনাবাহিনী হবে আমেরিকার আজ্ঞাবহ এবং দেশটির অর্থনীতি সম্পূর্ণ পশ্চিমাদের কৃপার ওপর নির্ভর করবে। এখন ইউক্রেনে যাদের দেশদ্রোহী বলে হত্যা করা হচ্ছে, তারা আসলে দেশপ্রেমিক, যারা আমেরিকার নগ্ন হস্তক্ষেপ বন্ধ করে দেশটির সার্বভৌমত্ব রক্ষা করতে চায়। বাংলাদেশেও আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে স্বৈরাচারী দল এবং গণতন্ত্রের শত্রু বলে প্রচার চালানো হচ্ছে। কিন্তু আওয়ামী লীগই দেশপ্রেমিকদের দল এবং স্বাধীনতার জন্য তারাই যুদ্ধ করেছে। এই দলের নেতা স্বাধীনতা অর্জন করেছেন এবং স্বাধীনতা রক্ষার জন্য প্রাণ দিয়েছেন। তার কন্যা গণতান্ত্রিক উপায়ে ক্ষমতায় এসেছেন এবং তার গত তিন দফা শাসনেই দেশের এই স্বাধীনতা রক্ষার জন্য যুদ্ধ করছেন। দেশে ক্রমাগত বন্যা, ঝড়, খরা এবং করোনা মহামারির ক্ষতি কাটিয়ে ওঠার জন্য তিনি সর্বক্ষণ ব্যস্ত। প্রশাসন সংস্কারে তেমন মন দিতে পারেননি। তা ছাড়া বিদেশি ষড়যন্ত্র সামলানোর জন্যও তাকে ব্যস্ত থাকতে হয়েছে। এই সময়ে তাকে সমর্থন জোগানো দেশের দেশপ্রেমিক প্রত্যেক মানুষের কর্তব্য।

আওয়ামী লীগের ভুল অনেক। সে জন্য স্বাধীনতার শত্রুদের ক্ষমতায় বসানো হবে দেড়শ বছর আগেকার করা আরেকটি ভুল। আওয়ামী লীগ যদি নিজে না শোধরায়, তাকে শোধরাতে হবে সচেতন গণআন্দোলন দ্বারা, বিশ্বাসঘাতকতা দ্বারা খাল কেটে বিদেশি কুমির এনে নয়। এই বিদেশি কুমির আনার, খাল কাটার কাজটি করছে বিএনপি ও জামায়াত। দেশবাসীকে বলি সাবধান হোন। একটি গল্প বলি। কোনো এক রাজ্যে রাজা ছিলেন কঠোর স্বভাবের লোক। কিছুটা স্বেচ্ছাচারীও বটে। ওই রাজ্যের জনসাধারণ তাদের এক দরবেশের কাছে গিয়ে আবেদন জানালো, 'আপনার সব আবেদন আল্লাহ শোনেন। আপনি আল্লাহকে বলুন, এই দজ্জাল রাজাকে আমাদের রাজ্য থেকে সরাতে।' দরবেশ বললেন, 'বলব।' তার কিছুদিন পরে ওই জনসাধারণ আবার দরবেশের কাছে এলো। বলল, 'আপনি আল্লাহর কাছে আমাদের আবেদন পেশ করেছেন কি?' দরবেশ বললেন, 'আল্লাহকে বলেছি। আল্লাহ বলেছেন, রাজ্যের জনসাধারণের উচিত ঐক্যবদ্ধ হয়ে রাজাকে সরানো। আমি সরালে পরিণতি ভালো নাও হতে পারে।' জনগণ শুনল না। তারা দরবেশকে বলল, 'আপনি আল্লাহকে বলুন এই রাজাকে সরাতে।' কিছুদিনের মধ্যে রাজা শিকারে গেল এবং বাঘের কবলে পড়ে মারা গেলেন। ওই রাজ্যে অরাজকতা শুরু হলো। কেউ কারও কথা মানে না। লুটপাট অত্যাচার অবিচার চরমে। তখন পাশের রাজ্যের রাজা এসে দেশটি দখল করে নিল। জনসাধারণ হায় হায় করে উঠল। তারা দরবেশের কাছে গিয়ে বলল, 'আমরা তো এটা চাইনি।' দরবেশ বললেন, 'আল্লাহ বলেছেন, যে দেশের মানুষ ঐক্যবদ্ধ হয়ে নিজের ভাগ্য পরিবর্তন করতে পারে না, তাদের ভাগ্যে এমনই ঘটে থাকে।' গল্পের শেষে বর্তমানের কথা বলি। ব্রিটেনে টনি ব্লেয়ার তখন মিথ্যা কথা বলে, আমেরিকার সঙ্গে মিলে ইরাক আক্রমণ করেছিলেন। তখন প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ারের আহম্মকির কথা জেনেও বিরোধী টোরি পার্টি পার্লামেন্টে ব্লেয়ারের পক্ষে ভোট দিয়েছিল। এটা দেশপ্রেম। এখানে বাংলাদেশের বিএনপি প্রতিপক্ষ হলে টনি ব্লেয়ারকে তো সমর্থন করতই না, সাদ্দাম হোসেনকে গোপনে চিঠি লিখত ইংল্যান্ড আক্রমণের জন্য।

আগামীতে বাংলাদেশের নির্বাচন ঘিরে সমস্ত তৎপরতা লন্ডনে ও ওয়াশিংটনে। শেখ হাসিনার শত্রুরা কেউ বিজ্ঞানী, কেউ রাজনীতিবিদ, কেউ পলাতক অপরাধী। সবাই শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। এক্ষেত্রে দেশপ্রেমিক মানুষের ভূমিকা কী হতে পারে? এই ব্যাপারেও আরও একটা গল্প বলি। ব্রিটেনে এক সমাজতান্ত্রিক সাংবাদিক ছিলেন, যিনি তার প্রতিটি লেখায় চার্চিলের সাম্রাজ্যবাদী নীতিকে দারুণ আক্রমণ করতেন। কিন্তু চার্চিল যখন হিটলারের বিরুদ্ধে যুদ্ধে নামলেন, ইউরোপে গণতন্ত্র রক্ষার নামে, তখন তিনি তার কলামে লিখলেন, 'এই ওকে (চার্চিলকে) সমর্থন করা ছাড়া এখন আমি আর কী করতে পারি?' এখন আমিও সেই কথাটাই বলি। ইউক্রেনে যে ষড়যন্ত্র সামরিক রূপ ধারণ করেছে, বাংলাদেশে তা এখনও রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক চাপ হিসাবে আছে। ইউক্রেনে চীন তবু এখনও রাশিয়ার পক্ষে রয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশকে এই দুই মহাশক্তি দু'দিক থেকে চাপ দিচ্ছে। প্রার্থনা করি, হাসিনা যেন যুদ্ধজয়ী চার্চিলের মতোই কঠোর থাকতে পারেন। লন্ডনে যখন হিটলারের ভি-রকেট প্রতি মিনিটে একটি করে পড়ছে, তখনও চার্চিল বোমাবিধ্বস্ত পার্লামেন্টে দাঁড়িয়ে বলেছেন, 'আমি সমুদ্রতটে একা। কিন্তু কখনোই পরাজয় মানব না'। আজ শেখ হাসিনার সেটাই শপথ হোক। ভারতের সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝি দূর করা এবং মৈত্রী দৃঢ় করার জন্য তিনি তৎপর হোন।

লন্ডন, ২ মার্চ ২০২২

© সমকাল ২০০৫ - ২০২২

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৭১৪০৮০৩৭৮ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com