ওয়ানস্টপ সার্ভিসে সেবা নিতে অনাগ্রহী ব্যবসায়ীরা: বিডা চেয়ারম্যান

প্রকাশ: ২১ এপ্রিল ২২ । ১৭:৫৯ | আপডেট: ২১ এপ্রিল ২২ । ১৮:০২

সমকাল প্রতিবেদক

বিডা ও এফবিসিসিআইয়ের সেমিনারে অতিথিরা। ছবি-সমকাল

বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ-বিডা ব্যবসায়ীদের জন্য সেবামূলক নানা কার্যক্রম চালু করলেও ব্যবসায়ীরা সেবা নিতে আসছে না বলে জানিয়েছেন বিডা চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর মতিঝিলে এফবিসিসিআই ভবনে আয়োজিত এক সেমিনারে তিনি এই কথা জানান। 

এফবিসিসিআই ও বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিডা) যৌথভাবে সেমিনারের আয়োজন করে। ব্যবসার পরিবেশ সহজ করতে ওয়ানস্টপ সেবা নিয়ে ব্যবসায়ীদের সচেতন করতে এই সেমিনারের আয়োজন করা হয়।

সেমিনারে বিডার চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘চলতি বছরের এপ্রিল পর্যন্ত ১০ হাজার ৪৫২ টি সেবা দিয়েছে।  নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ৮৬ শতাংশ সেবা দিয়েছে। ওয়ানস্টপ সেবার সাথে যুক্ত অনান্য সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলো বলছে ব্যবসায়ীরা সেবা নিতে আসছে না।’

তার আগে এফবিসিসিআই সভাপতি জসিম উদ্দিন বলেন, ‘ব্যবসা শুরু করতে সেফটি ও সিকিউরিটির জন্য পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র, ফায়ার লাইসেন্সসহ ৮ থেকে ১০ জায়গা থেকে লাইসেন্স নিতে হয়। অনেক দপ্তর থেকে লাইসেন্স নিতে হচ্ছে, যাদের তদারকি করার মতো সক্ষমতাই নেই ‘

তিনি বলেন. ‘দেশের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে নিরাপত্তা বিষয় বিভিন্ন সংস্থা তদারকি করে। এতে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই সমন্বয়হীনতা, অযাচিত হস্তক্ষেপ ও বিড়ম্বনায় মুখে পড়তে হচ্ছে ব্যবসায়ীদের। তাই একটি সংস্থার মাধ্যমে সেফটি ও সিকিউরিটির বিষয় তদারকি করা উচিত।’

এফবিসিসিআই সভাপতির বক্তব্যের জবাবে সিরাজুল ইসলাম বলেন, ব্যবসায়ীরা সেবা না নিয়েই ব্যবসার পরিবেশ নিয়ে পারস্পরিক দোষারোপ করেছে। ব্যবসা সহজ করতে বিডা যেসব সেবা ওয়ানস্টপ সেবা কার্যক্রমে যুক্ত করেছে তা গ্রহণ করতে হবে ব্যবসায়ীদের। তাহলে অনেক উদ্বেগ কমে যাবে। ব্যবসায়ীরা চালু করা সব সেবা নিচ্ছে না। প্রচুর অর্থ গেছে এসব তৈরি করতে।

পরিবেশ অধিদপ্তর, ফায়ার সার্ভিসসহ নানা সংস্থার ছাড়পত্র নিতে ব্যবসায়ীরা নানা প্রতিষ্ঠানে দৌঁড়ঝাঁপ করে হয়রান হচ্ছেন জানিয়ে ব্যসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইর সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন দাবি জানিয়েছেন, এসব ছাড়পত্র একটি সংস্থার অধীনে হলেই ভালো।

ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের জন্য বিভিন্ন ছাড়পত্র নেওয়ার বিড়ম্বনার কথা জানিয়ে জসিম উদ্দিন বলেন, ‘আশুলিয়া, গাজীপুরে ট্রেডলাইসেন্স নেয়ার জন্য এক লাখ টাকার ওপরে দিতে হয়। একটা ট্রেড লাইলেন্স নেয়ার জন্য প্রতি বছর কেন লাখ লাখ টাকা দিতে হবে। ব্যবসার পরিবেশ সহজ করতে অপ্রয়োজনীয় লাইসেন্স সেবা নেওয়া বন্ধ করতে হবে। 

জসিম উদ্দিনের সেই বাস্তবসম্মত নয় উল্লেখ করে বিডা চেয়ারম্যান বলেন, সব সেবা ব্যবসায়ীরা বিডার কাছে নিতে চায় এটা বাস্তব সম্মত নয়। অভিযোগ রয়েছে এনবিআরে অস্বচ্ছ কাজ হয়, যে কারণে ব্যবসায়ীরা হয়রানি হয়। তবে সব সেবা ডিজিটাল হলে নানা ধরণের হয়রানি ও অনৈতিক কাজ বন্ধ হয়ে যাবে। 

ব্যবসা পরিচালনায় লাইসেন্স নিতে চাঁদাবাজির অভিযোগ তুলে এফবিসিসিআ0ই সভাপতি বলেন, বিদেশি বিনিয়োগ টানতে হলে এসব সমস্যা সমাধান করতে হবে।

তার এই বক্তব্যের জবাবে বিডা চেয়ারম্যান বলেন, ৫৫০ টাকার লাইসেন্স ফি ৫০ হাজার টাকা ব্যবসায়ীরা দিলেও সরকারের খাতায় সেই অর্থ যাচ্ছে না। এটা অনৈতিকভাবে নেওয়া হচ্ছে। এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া দরকার। 




© সমকাল ২০০৫ - ২০২২

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৭১৪০৮০৩৭৮ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com