এলেঙ্গা থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু পর্যন্ত এক লেনে চলবে গাড়ি

প্রকাশ: ২৭ এপ্রিল ২২ । ২০:০৪ | আপডেট: ২৮ এপ্রিল ২২ । ০২:১৮

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি

ঈদের আর মাত্র কয়েক দিন বাকি। ঈদকে কেন্দ্র করে ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে যাত্রীবাহী গণপরিবহনের চাপ বৃদ্ধি পেয়েছে। সেইসঙ্গে মানুষ বাড়ি ফেরাও শুরু করেছেন। মহাসড়কে গণপরিবহনের অতিরিক্ত চাপ বৃদ্ধি পেলেও স্বাভাবিক গতিতে চলাচল করছে দূরপাল্লার পরিবহনগুলো।

বুধবার দুপুরে মহাসড়কের করটিয়া থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব পর্যন্ত ২৩ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে এমন চিত্র দেখা যায়। পরিবহনশ্রমিক ও যাত্রীরা জানায়, এই মহাসড়কে প্রতি বছর ঈদে চরম ভোগান্তিতে পড়তে হয়। বিশেষ করে এলেঙ্গা থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব পর্যন্ত ১৩ কিলোমিটার সিঙ্গেল লেন থাকায় বেশি ভোগান্তিতে পড়তে হয়। এখন পর্যন্ত রাস্তায় কোথাও যানযট দেখা যায়নি।

টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার সরকার মোহাম্মদ কায়সার জানান, ঢাকা থেকে টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার এলেঙ্গা পর্যন্ত চার লেন সড়ক। এর পর থেকে সেতু পর্যন্ত দুই লেনের সড়ক। যানবাহনের চাপে এখানে জট সৃষ্টি হয়। এই যানজট এড়াতে এবার এলেঙ্গা থেকে সেতু পর্যন্ত সাড়ে ১৩ কিলোমিটার সড়ক একমুখী (ওয়ানওয়ে) করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ঢাকা থেকে উত্তরবঙ্গগামী যানবাহন এই সড়ক দিয়ে সেতু পর্যন্ত যাবে।

তিনি আরও জানান, অন্যদিকে উত্তরবঙ্গ থেকে সেতু পার হয়ে আসা যানবাহন বিকল্প সড়ক ভূঞাপুর হয়ে এলেঙ্গা পর্যন্ত আসবে। যানবাহনের চাপ বৃদ্ধি পেলে এই ওয়ানওয়ে ব্যবস্থা কার্যকর করা হবে।

এদিকে, যানজট নিরসনে কাজ করছে পুলিশসহ অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ৮১০ জন সদস্য। এলেঙ্গা হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ আতোয়ার রহমান বলেন, আমরা সবসময় মহাসড়কে অবস্থান করছি। ঈদকে কেন্দ্র করে যানবাহনের চাপ বাড়ছে। তবে মহাসড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে।

বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সফিকুল ইসলাম বলেন, ভোর থেকে সকাল ৯টা পর্যন্ত পণ্যবাহী ট্রাকের কিছুটা চাপ ছিল। পরবর্তীতে বেলা বৃদ্ধির সাথে সাথে যানচলাচল স্বাভাবিক হয়।

এদিকে ঈদযাত্রায় মহাসড়কের পাশে টয়লেট না থাকায় যাত্রীদের চরম দুর্ভোগে পড়তে হয়। বিশেষ করে নারীরা পড়ে চরম বিপাকে। এলেঙ্গা-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের ১৩ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে যানজটে যাত্রীদের দুর্ভোগের আশঙ্কার বিষয়টি মাথায় রেখে মহাসড়কের বিভিন্ন জায়গায় স্থাপন করা হয়েছে ২৫টি অস্থায়ী গণশৈচাগার। আর এ  উদ্যোগ নিয়েছেন কালিহাতী উপজেলার এলেঙ্গা পৌরসভার মেয়র নূর এ আলম সিদ্দিকী। তার ব্যক্তিগত উদ্যোগেই তিনি এ গণশৈচাগারগুলো স্থাপন করছেন।

মহাসড়ক দিয়ে চলাচলকারী যাত্রী ও পরিবহনশ্রমিকরা বলেন, ঈদে ঘরমুখো যাত্রীদের যানজটের কারণে ঘণ্টার পর ঘণ্টা বসে থাকতে হয়। পুরুষরা যেকোনো জায়গায় টয়লেট করতে পারলেও নারী যাত্রীরা পড়েন চরম বিপাকে। এবার মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে অস্থায়ী টয়লেট দেখা যাচ্ছে। সত্যিই এ উদ্যোগটি প্রশংসার দাবি রাখে।

এ ব্যাপারে মেয়র নূর এ আলম সিদ্দিকী জানান, ঈদ আসলেই এ মহাসড়কে যানজটের কবলে পড়েন ঘরমুখো যাত্রীরা। এতে করে যাত্রীদের টয়লেট করা কষ্টকর হয়ে পড়ে। বিশেষ করে নারী যাত্রীরা পড়েন বিভ্রান্তিকর অবস্থায়। তাই মহাসড়কে চলাচলরত পরিবহন শ্রমিক ও যাত্রীদের কষ্ট লাগবের কথা ভেবে মহাসড়কের বিভিন্ন জায়গায় অস্থায়ী ২৫টি পাবলিক টয়লেট স্থাপন করা হয়েছে।

পুলিশ সুপার সরকার মোহাম্মদ কায়সার জানান, ঢাকা থেকে টাঙ্গাইলের কালিহাতীর এলেঙ্গা পর্যন্ত চার লেন সড়ক। এর পর থেকে সেতু পর্যন্ত দুই লেনের সড়ক। যানবাহনের চাপে এখানে জট সৃষ্টি হয়। এই যানজট এড়াতে এবার এলেঙ্গা থেকে সেতু পর্যন্ত সাড়ে ১৩ কিলোমিটার সড়ক একমুখী করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ঢাকা থেকে উত্তরবঙ্গগামী যানবাহন এই সড়ক দিয়ে সেতু পর্যন্ত যাবে।

© সমকাল ২০০৫ - ২০২২

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৭১৪০৮০৩৭৮ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com