আরিচা ঘাটে ঢাকামুখী মানুষের ভোগান্তি

প্রকাশ: ০৭ মে ২২ । ১৯:৪৫ | আপডেট: ০৭ মে ২২ । ১৯:৫৯

মানিকগঞ্জ ও শিবালয় প্রতিনিধি:

পরিবার-পরিজনের সঙ্গে ঈদ উদযাপন শেষে ইতোমধ্যেই কর্মস্থলে ফিরতে শুরু করেছে মানুষ। কিন্তু ফিরতি পথেও এসব মানুষের সঙ্গী হচ্ছে ভোগান্তি আর অতিরিক্ত ভাড়া। শনিবার সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া ঘাট এলাকা ঘুরে এমন চিত্রই দেখা যায়।

সরেজমিনে দেখা যায়, রাজধানীমুখী অতিরিক্ত যাত্রীর চাপে পাটুরিয়া ঘাট ও আশেপাশের এলাকা রীতিমতো জনসমুদ্রে পরিণত হয়েছে। আর তাতে দৌলতদিয়া ঘাট থেকে লঞ্চ ও ফেরিতে নদী পার হয়ে পাটুরিয়া ঘাটে এসে কিছুটা ভোগান্তিতে পড়েছেন। যাত্রীবাহী বাসের তেমন সংকট না থাকলেও ঘাট থেকে প্রায় অর্ধ কিলোমিটার হেঁটে বাস উঠতে গিয়ে ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন তারা। পাশাপাশি বাসের নির্ধারিত ভাড়ার চেয়ে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অভিযোগ রয়েছে পরিবহন শ্রমিকদের বিরুদ্ধে।

শুক্রবারের মতো শনিবার সকাল থেকেই পাটুরিয়া ঘাটে অতিরিক্ত যাত্রীর চাপ দেখা যায়। অতিরিক্ত যাত্রীর চাপ ও প্রচণ্ড গরমে নারী ও শিশুরা আরও ভোগান্তিতে পড়েন। এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে স্থানীয় রিপা ভ্যান ও ব্যাটারি চালিত যানবাহনগুলো ঘাট থেকে বাসস্ট্যান্ড পর্যন্ত পৌঁছে দিতে নির্ধারিত ভাড়া চেয়ে কয়েকগুণ অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করছেন।

এসব যানবাহনে নির্ধারিত ভাড়া ২০ টাকা হলেও শনিবার যাত্রীদের কাছ থেকে ৫০ টাকা করে আদায় করতে দেখা যায়। একইভাবে যাত্রীবাহী বাসগুলো যাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভাড়া করছে। নির্ধারিত ভাড়ার চেয়ে গড়ে ১০০ টাকা করে বেশি নিতে যায় তাদের। অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের পিছনে পরিবহণ শ্রমিকদের যুক্তি, যাত্রী নামিয়ে দিয়ে খালি বাস নিয়ে পাটুরিয়া পর্যন্ত আসতে হয় তাদের।

পাটুরিয়া থেকে রাজধানীর গাবতলী বাস টার্মিনাল পর্যন্ত চলাচলকারী সেলফি পরিবহন বাসের ভাড়া জনপ্রতি ১৫০ টাকা। কিন্তু যাত্রীদের কাছ থেকে তারা আদায় করছে ২৫০ টাকা। এমনকি পাটুরিয়া থেকে নবীনগর ও সাভার এসে নামলেও দিতে হচ্ছে ২০০ টাকা। সাধারণ সময় একই দূরত্বের ভাড়া ১০০ টাকা। পাটুরিয়া থেকে ঢাকার চিটাগাং রোড পর্যন্ত নীলাচল পরিবহনের নির্ধারিত ভাড়া ২০০ টাকা। সেখানে যাত্রীদের কাছ থেকে তারা আদায় করছে ৩০০ টাকা। আর গাবতলি পর্যন্ত ১৩০ টাকার পরিবর্তে আদায় করছে ২০০ টাকা। পাটুরিয়া ঘাট থেকে চলাচলকারী নির্ধারিত যানবাহনের বাইরেও শত শত বাইরের যানবাহন ঈদ ফেরত যাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করছে।

অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অভিযোগের বিষয়ে শিবালয় বাস মালিক সমিতির সভাপতি আলাল উদ্দিন জানান, অতিরিক্ত ভাড়া নেয়ার ব্যাপারে কেউ অভিযোগ করেনি। এছাড়া বাস টার্মিনালগুলোতে পুলিশের লোকজন রয়েছে। অতিরিক্ত ভাড়া কেউ আদায় করলে তারা অবশ্যই ব্যবস্থা নেবেন।

শিবালয় থানার ওসি থানার মো. শাহীন জানান, যাত্রীদের কাছে থেকে অতিরিক্ত ভাড়া নেওয়ায় অভিযোগে পদ্মা লাইন বাসের শ্রমিক ইমরান হোসেনকে আটক করা হয়েছে। তবে যাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ে কোন সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পাওয়া যায়নি।

ঘাট এলাকায় দায়িত্বে থাকা জেলা ট্রাফিক পুলিশের পরিদর্শক আবদুল্লাহ আল জোবায়েদ সমকালকে বলেন, ঈদ পালন শেষে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের অসংখ্য মানুষ এখন কর্মস্থলের দিকে ছুটছে। রোববার থেকে সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন দপ্তর এবং পোশাককারখানাগুলো খোলা। এ কারণে কর্মস্থলগামী মানুষ পাটুরিয়া ঘাট হয়ে ঢাকা ও এর আশপাশের এলাকায় ফিরছেন।

তিনি আরও বলেন, সকাল থেকে ঘাট এলাকায় যাত্রীদের প্রচণ্ড চাপ রয়েছে। তবে পর্যাপ্ত বাস থাকায় কর্মস্থলগামী এসব যাত্রীদের যানবাহনের জন্য অপেক্ষায় থাকতে হচ্ছে না।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন সংস্থার (বিআইডব্লিউটিসি) আরিচা কার্যালয়ের উপ-মহাব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) শাহ মো. খালেদ নেওয়াজ সমকালকে বলেন, ঈদের ছুটির শেষ মুহূর্তে যাত্রী ও যানবাহনের চাপ বেড়েছে। তাই পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌপথে ২১টি ফেরি দিয়ে যাত্রী ও যানবাহন পারাপার করা হচ্ছে। পর্যাপ্ত ফেরি থাকায় পারাপারে যাত্রীদের কোনো ভোগান্তি নেই।

© সমকাল ২০০৫ - ২০২২

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৭১৪০৮০৩৭৮ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com