পদ্মা সেতুতে টোল আদায় জমিদারের খাজনা আদায়ের মতো অত্যাচার: গণফোরাম

প্রকাশ: ১৯ মে ২২ । ১৯:০০ | আপডেট: ১৯ মে ২২ । ১৯:০০

সমকাল প্রতিবেদক

পদ্মা সেতুর টোল প্লাজা

গণফোরাম নেতারা বলেছেন, জনগণের অর্থায়নে নির্মিত পদ্মা সেতু টোল ফ্রি হওয়ার পরিবর্তে উচ্চমাত্রার টোল নির্ধারণ করা হয়েছে। এটা ব্রিটিশ আমলের জমিদারের খাজনা আদায়ের মতো জনতার উপর অত্যাচার। ভোটারবিহীন ও রাতের ভোটের দুটি নির্বাচনের মাধ্যমে রাষ্ট্রের ক্ষমতা দখল করে ক্ষমতাসীনরা জনগণের নিকট জবাবদিহি করতে অপারগ। জনগণ দায়িত্বশীল জায়গা থেকে বেফাঁস মন্তব্য শুনতে চায় না। জনগণ জানতে চায় তাদের টাকায় করা পদ্মা সেতুর আয় ব্যয়ের পূর্ণাঙ্গ হিসেব।

বৃহস্পতিবার গণফোরাম সভাপতির কর্যালয়ে নির্বাহী পরিষদের জরুরি সভায় তারা এসব কথা বলেন।

গণফোরাম সভাপতি মোস্তফা মোহসীন মন্টু বলেন, স্বাধীনতার ৫০ বছরেও বাংলাদেশে একটা সুশৃঙ্খল গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র কাঠামো গড়ে তুলতে পারিনি। দেশের বাইরে জনগণের অর্থ পাচার করছে কারা? রাষ্ট্রের বিচারহীনতায় সৃষ্টি হয়েছে এই অর্থ পাচারকারীরা। এদের শিকড় ক্ষমতাসীন অবৈধ সরকারের প্রভাবশালী ব্যক্তিবর্গ। বাংলাদেশ ব্যাংকের টাকা চুরি হয় একটা মামলা হয় না। প্রবাসী, গার্মেন্টস শ্রমিক ও কৃষকের টাকায় এদেশ চলছে। সেই টাকা উন্নয়নের নামে লুটপাট করছে।

গণফোরাম সাধারণ সম্পাদক সিনিয়র অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী বলেন, কেউ সত্য কথা বললেও মানহানি হয়ে যায়। অথচ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রতিনিয়ত মানুষকে অপমান-অপদস্থ করে কথা বললে কিছুই হয় না। উদোর পিন্ডি বুদোর ঘাড়ে চাপানো বন্ধ করুন।

নির্বাহী পরিষদের সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন গণফোরাম নির্বাহী সভাপতি অধ্যাপক আবু সাইয়িদ, মহিউদ্দিন আব্দুল কাদের, প্রেসিডিয়াম সদস্য মোহসীন রশিদ ও সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আইয়ুব খান ফারুক।

© সমকাল ২০০৫ - ২০২২

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৭১৪০৮০৩৭৮ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com