বরিশালে হঠাৎ বেড়েছে এলপিজির দাম

প্রকাশ: ১৯ মে ২২ । ২২:৪১ | আপডেট: ১৯ মে ২২ । ২২:৪১

বরিশাল ব্যুরো

বরিশাল নগরের গোড়াচাঁদ দাস সড়কের খুচরা ব্যবসায়ী জহিরুল ইসলাম বৃহস্পতিবার সকালে দোকান খুলে নির্ধারিত দামেই বিক্রি করছিলেন লিকুইড পেট্রোলিয়াম গ্যাস (এলপিজি) সিলিন্ডার। সকাল ১০টার পর গ্যাস কোম্পানির এক পরিবেশকের সরবরাহকারী এসে তাঁকে জানান, ১২ কেজি এলপিজির সিলিন্ডারের দাম ১০০ টাকা বেড়েছে। পরে আরও কয়েকজন পরিবেশককে ফোন দিয়ে দাম বৃদ্ধির বিষয়টি নিশ্চিত হন জহিরুল।

বরিশালের বাজারে পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই হঠাৎ এলপিজি সিলিন্ডারের দাম বাড়ায় বিপাকে পড়েছেন ভোক্তারা। ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, দাম বৃদ্ধির পর থেকেই বৃহস্পতিবার পরিবেশকরা খুচরা ব্যবসায়ীদের সিলিন্ডার সরবরাহ করছেন না। ১২ কেজির সিলিন্ডারের সরকার নির্ধারিত খুচরা দাম ১ হাজার ৩৩৫ টাকা হলেও মিলছে না এই দামে।

এলপিজি কোম্পানির একাধিক পরিবেশক দাম বৃদ্ধির বিষয়টি নিশ্চিত করে সমকালকে জানান, ডলারের দাম বাড়ায় প্রতিটি এলপিজি কোম্পানি থেকে দাম বাড়ানো হয়েছে। বুধবার রাতে কোম্পানি থেকে দাম বৃদ্ধির বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পর বৃহস্পতিবার সকালে তাঁরা খুচরা ব্যবসায়ীদের জানিয়ে দিয়েছেন।


এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে খুচরা বিক্রেতা জহিরুল ইসলাম ও মো. সেলিম জানান, মে মাসে ১২ কেজির সিলিন্ডারের সরকার নির্ধারিত দাম ১ হাজার ৩৩৫ টাকা। কোম্পানিগুলো দাম বৃদ্ধি করায় তাঁদের এখন খুচরা বিক্রি করতে হবে ১ হাজার ৪০০ টাকায়। এক্ষেত্রে খুচরা ব্যবসায়ীরা ভ্র্যাম্যমাণ আদালতে হয়রানির শিকার এবং ভোক্তাদের রোষানলে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। তাঁরা আরও জানান, এলপিজি কোম্পানির বরিশালের পরিবেশকরা খুচরা ব্যবসায়ীদের মূল্য রসিদ দেন না।


বেসরকারি যমুনা গ্যাস কোম্পানির পরিবেশক মো. সুমন জানান, ডলারের দাম বাড়ায় কোম্পানি থেকে দাম বৃদ্ধি করা হয়েছে। বরিশালের পরিবেশকরা বুধবার রাতে নিজেদের মধ্যে সভা করে বৃহস্পতিবার থেকে প্রতি সিলিন্ডারে ১০০ টাকা দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেন।


ওমেরা গ্যাস কোম্পানির পরিবেশক মীর মাহফুজ জানান, তাঁর কোম্পানির ১২ কেজির সিলিন্ডার বুধবার পর্যন্ত খুচরা ব্যবসায়ীদের ১ হাজার ২৮০ টাকায় দিয়েছেন। বৃহস্পতিবার থেকে দিচ্ছেন ১ হাজার ৩৬০ টাকায়।


অরিয়ন গ্যাস কোম্পানির পরিবেশক তরিকুল ইসলাম বলেন, কোম্পানিগুলো বৃহস্পতিবার পরিবেশকদের সিলিন্ডার সরবরাহ করেনি। যে কারণে পরিবেশকরা খুচরা ব্যবসায়ীদের চাহিদা অনুযায়ী সিলিন্ডার দিতে পারেননি। খুচরা ব্যবসায়ীদের মূল্য রসিদ না দেওয়া প্রসঙ্গে তরিকুল বলেন, কিছুদিন পর পরই দাম ওঠানামা করে। তাঁরা প্রশাসনের হয়রানি এড়াতে খুচরা ব্যবসায়ীদের রসিদ দেন না।


জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের বরিশালের সহকারী পরিচালক শাহ শোয়াইব মিয়া বলেন, ১২ কেজির এলপিজি সিলিন্ডারের সরকার নির্ধারিত খুচরা দর ১ হাজার ৩৩৫ টাকার বেশি দামে কেউ বিক্রি করলে তাঁকে জরিমানা করা হবে। তিনি বৃহস্পতিবারও কয়েকজন খুচরা ব্যবসায়ীকে জরিমানা করেছেন। পরিবেশকরা খুচরা ব্যবসায়ীদের মূল্য রসিদ দেন না- এ প্রসঙ্গে সহকারী পরিচালক বলেন, খুচরা বিক্রেতারাও রসিদ ছাড়া পণ্য কিনে অন্যায় করছেন।

© সমকাল ২০০৫ - ২০২২

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৭১৪০৮০৩৭৮ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com