‘বাঙালি জাতির জাগরণে অনন্য দ্বীপশিখা ছিলেন আবদুল গাফ্‌ফার চৌধুরী’

ঢাকা মহানগর বঙ্গবন্ধু পরিষদের শোক বিবৃতি

প্রকাশ: ২০ মে ২২ । ১২:২৭ | আপডেট: ২০ মে ২২ । ১২:৩১

অনলাইন ডেস্ক

বিশিষ্ট সাংবাদিক, কলাম লেখক, গীতিকার ও সুরকার আবদুল গাফ্ফার চৌধুরীর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছে ঢাকা মহানগর বঙ্গবন্ধু পরিষদ। শুক্রবার গণমাধ্যমে পাঠানো শোক বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়, আবদুল গাফ্ফার চৌধুরীর মৃত্যুতে দেশবাসী একজন বহুমাত্রিক প্রতিভার অধিকারী মানুষকে হারালো। নিজ দেশের প্রতি তার ছিল গভীর অনুরাগ। একাত্তরে মহান স্বাধীনতা সংগ্রামে তার সাহসী ভূমিকা নতুন প্রজন্মকে দেশপ্রেমে উজ্জীবিত করবে। মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে সাপ্তাহিক ‘জয় বাংলা’ প্রকাশ করে মুক্তিযোদ্ধাদের উজ্জীবিত করেছেন। তিনি বাঙালি জাতির জাগরণে এক অনন্য দ্বীপশিখা ছিলেন।

ঢাকা মহানগর বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সরদার মাহামুদ হাসান রুবেল সাক্ষরিত শোক বিবৃতিতে আরও সাক্ষর করেছেন সংগঠনের সভাপতি মোহাম্মদ আলাউদ্দিন,সহসভাপতি প্রফেসর ডা. বেলায়েত হোসেন খাঁন, এম মনসুর আলী, প্রফেসর ড. সামছুদ্দিন ইলিয়াস, ড. এ কে এম নূরুজ্জামান, মো. আমিনুল বাহার, লায়ন হামিদুল আলম সখা, মো. হারুন উর রশিদ, হাজী মো. দেলোয়ার হোসেন, প্রবীর কুমার সরকার, বিনয় ভূষন তালুকদার, সালাউদ্দিন সিদ্দিক, ডা. অসিত মজুমদার, ডা. মশিউর রহমান, প্রকৌশলী খান মোহাম্মাদ কায়ছার, সালাউদ্দিন আল আজাদ, মো. আওরঙ্গজেব, কে এম সিদ্দিকুজ্জামান, ড. মোলতা মোহাম্মদ কফিল উদ্দিন, ডা. রিয়াসাত আলম (রাহাত) ও সঞ্জিব কুমার রায়। যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক এস. এম. ওয়াহিদুজ্জামান (মিন্টু), নির্মল বিশ্বাস, লায়ন শোয়েব উদ্দিন সোহেল, শরিফ উদ্দিন ভূঁইয়া, আফসা আহমেদ সানু, ফেরদৌস বিপ্লব ও হারুন আর রশিদ, সাংগঠনিক সম্পাদক নাফিজ হোসেন দীপ, নাঈম ফেরদৌস পলাস, লায়ন মোহাম্মদ আহসান উল্লাহ, মোহাম্মদ মাজহারুল ইসলাম, প্রকৌশলী মো. আসিফ আবেদীন, আবদুল্লাহ আল আমিন রঞ্জন, মো. আজিবুর রহমান রাজিব, প্রকৌশলী মো. জুয়েল ও কৃষিবিদ নাসির উদ্দিন আহম্মেদ, সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক ফাতিমা আক্তার লুনা, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক লায়ন মশিউর আহমেদ, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মনিরুল ইসলাম খান, দফতর সম্পাদক এ কে এম ওবায়দুর রহমান, তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক রায়হান কবির,  গ্রন্থনা ও প্রকাশনা সম্পাদক মেহেদী হাসান রাসেল, মুক্তিযুদ্ধ ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক মোহাম্মদ আনিসুর রহমান, নারী উন্নয়ন বিষয়ক সম্পাদক কাওসার জাহান রিতা, যুব ও মানবসম্পদ উন্নয়ন বিষয়ক সম্পাদক মো. হাসানুজ্জামান খান, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক কল্যাণ কিশোর, যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক সাইফুজ্জামান মিন্টু,  স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডা. মো. কামরুল ইসলাম খান (ইমন),  তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক মনোয়ারুল ইসলাম সজীব, আইন বিষয়ক সম্পাদক নীতিশ সরকার, ত্রাণ ও দুর্যোগ বিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান, গণমাধ্যম বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল সাফি, গণযোগাযোগ বিষয়ক সম্পাদক মাসুম বিল্লাহ, সাহিত্য বিষয়ক সম্পাদক রাজিব কিষান, নাট্য ও বিতর্ক বিষয়ক সম্পাদক শাহনাজ পারভীন এলিস, যুব ও কর্মসংস্থান বিষয়ক সম্পাদক মো. জুয়েল হোসেন, শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক মো. মাহুবুর রহমান চৌধুরী, চিকিৎসাসেবা বিষয়ক সম্পাদক  মো. নুরুল আনোয়ার ফারুকী, কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক কৃষিবিদ নূর ইসলাম, মহিলা বিষয়ক সম্পাদক শারমিন আক্তার, সমাজসেবা বিষয়ক সম্পাদক প্রকৌশলী মোহাম্মদ আওয়াল হোসেন, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান খোকন, অর্থ বিষয়ক সম্পাদক মো. লিয়ার হোসেন, উপ-সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক রাশেদ শোভন, উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক রেদওয়ান রাহার প্রামানিক, উপ-দফতর সম্পাদক শেখ ইমরান হোসেন, উপ-তথ্য ও গবেষনা বিষয়ক সম্পাদক শেখ মো. ফারুক শাহ, উপ-মুক্তিযুদ্ধ ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক কাজী সাইফুর রহমান, উপ-স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডা. ইফফাত মাহবুব, উপ-মহিলা বিষয়ক সম্পাদক ড. তাসলিমা আক্তার,  উপ-চিকিৎসা সেবা বিষয়ক সম্পাদক মো. জান্নাতুল ফেরদৌস রনি, উপ-ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক প্রদীপ কুমার দত্ত, উপ-ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক শরণ বড়ুয়া, সহ-সম্পাদক ডা. সৈয়দ মোহাম্মদ শাহিদ, ডা. শেখ শামসুজ্জামান, অধ্যক্ষ সিরাজুল ইসলাম, প্রকৌশলী এনামুল হক, নাহিদ হোসেন, মো. জামিল হোসেন, মো. মেহেবুব হাসান ও এ ডি সুজাউদ্দিন।সদস্য অঞ্জন রায়, শাহজাহান মোহম্মদ আলিউজ্জাম, ডা. বুশরা জাহান,  ডা. আশীষ কুমার অধিকারী, ডা. আসাদ আদনান উপল, ডা. মো. মিজানুর রহমান, মো. ওহিদুর রহমান, আশরাফুল আলম (আশরাফ), ব্যারিস্টার মো. ইসমাইল হোসেন হাওলাদার, মো. শাহীনুল হক, কামরুল হোসেন কল্পন, মো. জাকির হোসেন, পারভিন আক্তার নিলা, মো. সিরাজুল ইসলাম শাওন, মিনারুল ইসলাম মিনার, প্রকৌশলী মো. মহিদুল হাসান (সুজন), প্রকৌশলী সৈয়দ নিয়াজ মোরশেদ, মো. সাকিব মাহাদি আজিজ, এ এম জোরাফ, রাজিব আহম্মেদ সরদার, লাইলি চৌধুরী, রাফি আহমেদ ও মো. সাইফুল ইসলাম।

প্রসঙ্গত, ১৯৪৬ সালে স্কুলের ছাত্র অবস্থায় কলাম লেখা শুরু করেন আবদুল গাফ্‌ফার চৌধুরী। বরিশাল হিতৈষী পত্রিকায় তার প্রথম লেখার শিরোনাম ছিল 'সমাচার সন্দেশ'। 

১৯৫০-এর দশকে সাংবাদিকতার মাধ্যমে কর্মজীবন শুরু করেন আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী। পেশাগত কাজে সফলতার স্বীকৃতিস্বরূপ বাংলা একাডেমি পুরস্কার, একুশে পদক, স্বাধীনতা পদক, ইউনেস্কো পুরস্কার, বঙ্গবন্ধু পুরস্কার, মানিক মিয়া পদকসহ দেশীয় এবং আন্তর্জাতিক পদক ও পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন তিনি। 

কলাম ছাড়াও কবি, নাট্যকার ও ঔপন্যাসিক হিসেবে পরিচিত তিনি। বঙ্গবন্ধু হত্যার ওপর লেখা 'পলাশী থেকে ধানমণ্ডি' তার বিখ্যাত নাটক।

৬০ বছর ধরে মিঠাকড়া, ভীমরুল, তৃতীয় মত, কাছে দূরে, একুশ শতকের বটতলায়, কালের আয়নায়, দৃষ্টিকোণ ইত্যাদি শিরোনামে কলাম লিখেছেন তিনি। 


© সমকাল ২০০৫ - ২০২২

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৭১৪০৮০৩৭৮ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com