রাজনীতি

তৃণমূল নিয়ে ব্যস্ততা আওয়ামী লীগে

আগামী অক্টোবর ও নভেম্বরের মধ্যে আওয়ামী লীগের সব সাংগঠনিক জেলা-উপজেলা সম্মেলন শেষ করার প্রস্তুতি রয়েছে: ড. আব্দুর রাজ্জাক

প্রকাশ: ২১ মে ২২ । ০০:০০ | আপডেট: ২১ মে ২২ । ০২:১৩ | প্রিন্ট সংস্করণ

অমরেশ রায়

তৃণমূল সম্মেলন নিয়ে ব্যস্ত সময় কাটছে আওয়ামী লীগের। আগামী ডিসেম্বরে অনুষ্ঠেয় দলের জাতীয় কাউন্সিলের আগেই সব জেলা-উপজেলা সম্মেলন শেষ করে দলকে গুছিয়ে নিতে চায় সংগঠনটি। লক্ষ্য দলে স্বচ্ছ ও নতুন নেতৃত্ব গড়ে তুলে আগামী নির্বাচনের প্রস্তুতিও এগিয়ে রাখা।

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক জেলার সংখ্যা ৭৮টি। এর মধ্যে গত তিন বছরে ৪১টি জেলার সম্মেলন শেষ হয়েছে। বাকি রয়েছে আরও ৩৭টি জেলা। এ ছাড়া প্রায় পাঁচশ উপজেলা কমিটির মধ্যে দুই-তৃতীয়াংশের বেশি সম্মেলন শেষ হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্নিষ্ট দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা।

আওয়ামী লীগ সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক সমকালকে জানিয়েছেন, আগামী অক্টোবর ও নভেম্বরের মধ্যে আওয়ামী লীগের সব সাংগঠনিক জেলা, উপজেলা সম্মেলন শেষ করার প্রস্তুতি রয়েছে।

তৃণমূল সম্মেলন কার্যক্রমে সবচেয়ে এগিয়ে রয়েছে রাজশাহী বিভাগ। এই বিভাগের ৯টি সাংগঠনিক জেলার সবগুলোর সম্মেলন শেষ হয়েছে। সম্মেলনের মাধ্যমে বগুড়া, রাজশাহী, রাজশাহী মহানগর, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, জয়পুরহাট, পাবনা, নাটোর, সিরাজগঞ্জ এবং নওগাঁ জেলায় নতুন নেতৃত্বও প্রতিষ্ঠা পেয়েছে।

তবে সম্মেলন কার্যক্রমে অনেকটাই পিছিয়ে ঢাকা, চট্টগ্রাম ও ময়মনসিংহ বিভাগ। ঢাকা বিভাগের ১৫টি সাংগঠনিক জেলার মধ্যে মাত্র তিনটি রাজবাড়ী, ফরিদপুর ও গাজীপুরের সম্মেলন শেষ হয়েছে। বাকি ১২টি জেলা টাঙ্গাইল, নরসিংদী, কিশোরগঞ্জ, মানিকগঞ্জ, মুন্সীগঞ্জ, গাজীপুর মহানগর, নারায়ণগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ মহানগর, গোপালগঞ্জ, মাদারীপুর, শরীয়তপুর এবং ঢাকা জেলা কমিটির মেয়াদ শেষ হয়েছে ৩ থেকে ৬ বছর আগেই।

আওয়ামী লীগের ঢাকা বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম সমকালকে বলেন, তাঁরা ঢাকা বিভাগের দায়িত্ব গ্রহণের পর রাজবাড়ী, ফরিদপুর ও গাজীপুর এবং ৩৫-৩৬টি উপজেলা সম্মেলন হয়েছে। মেয়াদোত্তীর্ণ ১২টি জেলার মধ্যে শরীয়তপুর ও ঢাকা জেলা সম্মেলন আগামী মাসেই অনুষ্ঠানের প্রস্তুতি শেষ করা হয়েছে। আর আগামী অক্টোবরের মধ্যেই সব জেলা-উপজেলা সম্মেলন শেষ করতে পারবেন।

চট্টগ্রাম বিভাগের ১৫টি সাংগঠনিক জেলার মধ্যে ৬টি- কুমিল্লা উত্তর, ফেনী, নোয়াখালী, বান্দরবান, খাগড়াছড়ি এবং চট্টগ্রাম উত্তর জেলার সম্মেলন শেষ হয়েছে। বাকি ৯টি জেলা- ব্রাহ্মণবাড়িয়া, কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা, কুমিল্লা মহানগর, চাঁদপুর, লক্ষ্মীপুর, কক্সবাজার, রাঙামাটি, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা এবং চট্টগ্রাম মহানগরের মেয়াদ শেষ হয়েছে ৩ থেকে ৭ বছর আগে। ময়মনসিংহ বিভাগের পাঁচ সাংগঠনিক জেলার মধ্যে জামালপুর, শেরপুর, ময়মনসিংহ জেলা, ময়মনসিংহ মহানগর এবং নেত্রকোনা- কোনোটিরই সম্মেলন হয়নি গত তিন বছরে। সবগুলোর মেয়াদ শেষ হয়েছে ৩-৪ বছর আগে।

ময়মনসিংহ বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক সফিউল আলম চৌধুরী নাদেল অবশ্য বলেছেন, ২১তম জাতীয় কাউন্সিলের মাধ্যমে তারা দায়িত্ব পেয়েছেন তিন বছর আগে। যার মধ্যে দুই বছর সময় গেছে করোনা সংকটে। ফলে সেভাবে দায়িত্ব পালন করা যায়নি। বর্তমানে তারা উপজেলা সম্মেলনগুলো আয়োজন করছেন। এগুলো শেষ হলে আগামী সেপ্টেম্বর-অক্টোবরে জেলা সম্মেলন শুরু করবেন তারা। আর অক্টোবরের মধ্যেই সব জেলা সম্মেলনও শেষ হয়ে যাবে।

অন্য বিভাগগুলোর মধ্যে রংপুর বিভাগের ৬টি- ঠাকুরগাঁও, নীলফামারী, লালমনিরহাট, রংপুর, রংপুর মহানগর ও কুড়িগ্রাম জেলা সম্মেলন শেষ হয়েছে। বাকি ৩টি পঞ্চগড়, দিনাজপুর ও গাইবান্ধা জেলা সম্মেলন দ্রুততম সময়ের মধ্যে শেষ করা যাবে বলে জানিয়েছেন রংপুর বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন শফিক।

খুলনা বিভাগের ১১টি জেলার মধ্যে ৯টি- কুষ্টিয়া, যশোর, নড়াইল, বাগেরহাট, সাতক্ষীরা, খুলনা, খুলনা মহানগর, মাগুরা ও মেহেরপুর জেলা সম্মেলন শেষ হয়েছে। বাকি রয়েছে চুয়াডাঙ্গা ও ঝিনাইদহ জেলা সম্মেলন। তবে গত ১৫ মে চুয়াডাঙ্গা জেলা সম্মেলনের তারিখ নির্ধারিত হলেও জেলা সভাপতি সোলায়মান হক জোয়ারদার ছেলুনের অসুস্থতার কারণে পিছিয়ে জুনের শেষ সপ্তাহে নির্ধারণ করা হয়েছে। মেয়াদোত্তীর্ণ ঝিনাইদহ জেলা সম্মেলনও খুব শিগগির আয়োজনের প্রস্তুতি রয়েছে বলে জানিয়েছেন খুলনা বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক।

বরিশাল বিভাগের ৭টি জেলার মধ্যে পটুয়াখালী, ঝালকাঠি ও বরিশাল মহানগরের সম্মেলন শেষ হয়েছে। বাকি চারটি বরগুনা, ভোলা, পিরোজপুর এবং বরিশাল জেলার সম্মেলন জুনের মধ্যে শেষ করা হবে বলে জানিয়েছেন বরিশাল বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আফজাল হোসেন। এ ছাড়া সিলেট বিভাগের ৫টি জেলার মধ্যে ৩টি- সিলেট, সিলেট মহানগর ও হবিগঞ্জ জেলা সম্মেলন শেষ হয়েছে। বাকি দুটি জেলা সুনামগঞ্জ ও মৌলভীবাজারের সম্মেলনও দ্রুততম সময়ে শেষ করা হবে বলে জানিয়েছেন সিলেট বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন।

আজ ২১ মে পাবনার আমিনপুর, ২২ মে সিরাজগঞ্জ সদর, ২৩ মে বেলকুচি, ২৪ মে জয়পুরহাট সদর, ২৫ মে কিশোরগঞ্জ সদর, ২৬ মে কিশোরগঞ্জের হোসেনপুর, ২৮ মে নাটোরের লালপুর, ২৯ মে নাটোরের বাগাতিপাড়া, ৩০ মে নাটোরের গুরুদাসপুর ও কিশোরগঞ্জের অষ্টগ্রাম, ৩১ মে কিশোরগঞ্জের ইটনা এবং ২ জুন টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার সম্মেলন হবে।

© সমকাল ২০০৫ - ২০২২

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৭১৪০৮০৩৭৮ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com