উচ্চ শিক্ষায় মোটিভেশন লেটার

এগিয়ে রাখবে এক ধাপ

প্রকাশ: ২৩ মে ২২ । ০০:০০ | আপডেট: ২৩ মে ২২ । ১১:০৫ | প্রিন্ট সংস্করণ

পিয়াস আহমেদ, অস্ট্রেলিয়া থেকে

মোটিভেশন লেটার এক ধরনের চিঠি, যা উচ্চ শিক্ষার জন্য আবেদনকারীকে বিশ্ববিদ্যালয় বা স্কলারশিপ প্রদানকারী কর্তৃপক্ষের কাছে লিখতে হয়। এই লেটার খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, এর মাধ্যমে একজন শিক্ষার্থীর গুণগত মান বিচার করা হয়। বিদেশে মাস্টার্স অথবা পিএইচডি করার আগ্রহ অনেকেরই। কিন্তু তাঁদের অনেকেই জানেন না, বিদেশে মাস্টার্স ও পিএইচডি লেভেলে বৃত্তির সুযোগ রয়েছে। তবে সেই বৃত্তি পেতে হলে ভালো রেজাল্ট এবং এর পাশাপাশি গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় হচ্ছে মোটিভেশন লেটার; যেটি আবেদনপত্রের সঙ্গে দিতে হয়। অনেক সময় এটিকে SOP বলা হয়ে থাকে।SOP-এর Full Form হলো Statement of Purpose। একে কখনও কখনও  Letter of Motivation বলা হয়। মূলত এটি এক ধরনের চিঠি, যা উচ্চ শিক্ষার জন্য আবেদনকারীকে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃৃপক্ষ বা স্কলারশিপ প্রদানকারী কর্তৃপক্ষের কাছে লিখতে হয়। এই SOP খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, এর মাধ্যমে একজন শিক্ষার্থীর গুণগত মান বিচার করা হয়।

দেখা গেছে, পৃথিবীর অনেক ভার্সিটি মাস্টার্স লেভেলে আবেদনপত্রের সঙ্গে সিভি, মোটিভেশন লেটার, রিকমেন্ডেশন লেটার পাঠাতে বলে। এই মোটিভেশন লেটার খুব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে সিলেক্টেড হওয়ার ব্যাপারে। কিন্তু এসব লেটারের বেশির ভাগই সিলেকশন কমিটিকে সন্তুষ্ট করতে ব্যর্থ হয়। প্রতিটি সিলেকশন কমিটির আলাদা নিজস্ব ধারা আছে এবং তারা নিজেরাই ঠিক করে, কী ধরনের মোটিভেশন লেটার উপযুক্ত হিসেবে ধরে নেবে। তাই বলা খুব কঠিন, আপনার মোটিভেশন লেটারটি আসলেই সাকসেসফুল হবে কিনা। এটি ভার্সিটি, ডিপার্টমেন্ট, সিলেকশন কমিটি এবং সর্বোপরি ব্যক্তির ওপর নির্ভর করে। পিএইচডির ক্ষেত্রে সাধারণত প্রফেসর বা প্রফেসরের স্টাফ পার্সোনালই মোটিভেশন লেটার পড়ে থাকেন। মাস্টার্সের জন্য জার্মানিতে আলাদা ভর্তি কমিটি থাকে এবং তারাই এগুলো পড়ে থাকে।

SOP কীভাবে লেখতে হয়

SOP-এর তিনটি অংশ থাকে Introduction, Body ও Conclusion। মূলত এর আঙ্গিক সাধারণ Essay-এর মতো হলেও এটি লিখতে আপনাকে হতে হবে আর্টিস্টিক, যেন এটি পড়ে আপনার স্কলারশিপ বা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আপনাকেই সিলেক্ট করে। আপনি চাইলে বডি পার্টে অনেক কিছু যুক্ত করতে পারেন, যাতে লেখাগুলোয় আপনার অনেক দিক নিয়ে আলোচনা থাকে। এ ক্ষেত্রে খেয়াল রাখতে হবে, অনেক প্যারাগ্রাফ সংযুক্ত করতে গিয়ে যেন এলোমেলো বা অগোছালো না হয়ে যায়। অথবা আপনার লেখা দিকহারা না হয়ে যায়। আপনার SOP হবে Concise, Explanatory, Convincing and Dynamic-Diversified।

স্ট্রাকচার :একটা SOP-এর অ্যানাটমি দেখলে খুব আহামরি কঠিন মনে হবে না এবং এখানে সবাই মোটামুটি ভালোই মেইনটেইন করে। প্রথমেই ইন্ট্রোডাকশন, তারপর একাডেমিক অ্যাচিভমেন্ট, রিসার্চের এক্সপেরিয়েন্স থাকলে সেটা লেখা বা না থাকলে জাস্টিফাই করা, তারপর ওই পার্টিকুলার ইউনিভার্সিটিতে এবং প্রোগ্রামে কেন ইন্টারেস্টেড সেটা উল্লেখ করা, তারপরও আপনি কেন ভালো ক্যান্ডিডেট তা নিয়ে বিস্তারিত বলা।

একাডেমিক অ্যাচিভমেন্ট :এখানে সবচেয়ে বড় ভুল যেটা সবাই করে, সেটা হলো লম্বা একটা লিস্ট করতে থাকে যে সে আন্ডারগ্রাউডে কী কী সাবজেক্ট পড়েছে এবং কী টাইপ রিসার্চ করেছে বা কী কী টেকনিক সে জানে। এগুলোর সবকিছুই আপনি আপনার সিভি বা রিজিউমে মেনশন করেছেন, তাহলে এখানে আবার কেন? আপনি এগুলো এখানে দেবেন না, কিন্তু আপনাকে ভালোভাবে কানেক্ট করে দেখাতে হবে আপনি যে প্রোগ্রামে অ্যাপ্লাই করছেন, তার প্রিপারেশন হিসেবে আপনি কী কী শিখেছেন এবং সেটা কীভাবে আপনার প্রসপেক্টিভ ফিল্ডে অ্যাপ্লাই করেছেন বা ওই ফিল্ডে সাকসেসফুল হওয়ার পেছনে আপনার এত দিনের অর্জিত জ্ঞান আপনাকে কীভাবে হেল্প করতে পারে। এরপর আপনাকে লিখতে হবে কেন আপনি ওই ইউনিভার্সিটি বা প্রোগ্রাম বাছাই করলেন। এ ক্ষেত্রে রিভিউ কমিটিকে ইমপ্রেস করতে হলে আপনাকে অবশ্যই কিছুটা সময় নিয়ে রিসার্চ করতে হবে। কেন ওই ইউনিভার্সিটি বা প্রোগ্রাম অন্যদের থেকে আলাদা বা ওই প্রোগ্রামের বিশেষত্ব কী? সেখানে ভর্তি হতে পারলে সেটা আপনার কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্য অর্জনে কীভাবে সাহায্য করবে, তাদের রিসার্চের কোন কোন আসপেক্ট আপনার ভালো লেগেছে ইত্যাদি।

আর মনে রাখবেন, এটার সঙ্গে ইন্ট্রোডাকশনে আপনি যেটা লিখেছেন, সেটার কানেকশন থাকাটা সুপার ইম্পর্ট্যান্ট। আপনি হয়তো ভবিষ্যৎ প্ল্যান নিয়ে এমন কিছু লিখলেন বা উচ্চাকাঙ্ক্ষার কারণে এমন কিছু প্রপোজ করলেন যে সেই টাইপের রিসার্চই ওই প্রতিষ্ঠানে হয় না। সে ক্ষেত্রে হিতে বিপরীত হতে পারে।

তবে একটি পেশাদার মোটিভেশনাল লেটারে নিচের কয়েকটি বিষয় অবশ্যই অন্তর্ভুক্ত থাকতে হবে :

-আপনার নাম এবং যোগাযোগের ডিটেইল;

-যে সংস্থা বা বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদন করছেন তার নাম ও ঠিকানা;

-প্রিয় স্যার/ ম্যাডাম (সরাসরি পরিচিত ব্যক্তি/ পরিচালক/ নিয়োগকারীর উদ্দেশ্যে লিখুন);

-মূল লেখা;

-আন্তরিকভাবে শেষ করুন।

সহজ কথায়, অন্য সব তথ্য উপস্থাপনের সঙ্গে সঙ্গে, বিশেষ করে আপনার ক্যারিয়ারের উদ্দেশ্য নিয়ে লিখুন। লিখুন কীভাবে আপনার উচ্চশিক্ষা এবং আপনি যে কোর্সে আবেদন করছেন, সেটি আপনার ক্যারিয়ারে প্রভাবিত করবে। কোর্সের সঙ্গে সংশ্নিষ্ট এমন কোনো প্রফেশনাল কাজ বা রিসার্চের বা ভলান্টিয়ার বা অন্য কোনোভাবে কাজ করার অভিজ্ঞতা থাকলে সেগুলো উল্লেখ করতে পারেন। আপনার ব্যক্তিগত স্কিলগুলো সুন্দর করে বর্ণনা করুন। ওই কোর্সে পড়ার জন্য আপনার এই স্কিলগুলো কীভাবে মোটিভেট করছে, সে কথা সুন্দর করে লিখুন। কোনো একটি গ্রুপে বা টিমে কাজ করার অভিজ্ঞতা থাকলে তা-ও লিখুন। লিডারশিপ, গ্রুপ লিডার, ম্যানেজারশিপ ইত্যাদি বিষয়ে কাজ করার অভিজ্ঞতা থাকলে সেগুলো উল্লেখ করতে পারেন, তবে তা অবশ্যই অপ্রাসঙ্গিক যেন না হয়।

© সমকাল ২০০৫ - ২০২২

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৭১৪০৮০৩৭৮ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com