পরকীয়ার বদলা নিতে স্ত্রীর প্রেমিককে হত্যা, ফাঁসির রায়

প্রকাশ: ০২ জুন ২২ । ২০:৩৯ | আপডেট: ০২ জুন ২২ । ২০:৩৯

যশোর অফিস

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত হাফিজুর রহমান

যশোর সদর উপজেলার সালতা গ্রামের মিনারুল হত্যা মামলায় ওসমানপুর গ্রামের হাফিজুর রহমানের মৃত্যুদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানার আদেশ দিয়েছেন আদালত। 

গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে যশোরের সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ মো. ইখতিয়ারুল ইসলাম মল্লিক এই রায় ঘোষণা করেন। এ সময় আদালতে আসামি হাফিজুর উপস্থিত ছিলেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) এম. ইদ্রিস আলী। 

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি হাফিজুর রহমানের বাড়ি সদরের ওসমানপুর গ্রামে আর নিহত মিনারুলের বাড়ি সালতা গ্রামে।

আদালত সূত্র জানায়, হাফিজুর রহমান একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কৃষিবিভাগে কাজ করতেন। তার ছোট ভাই আব্দুল মান্নানের বন্ধু ছিলেন নিহত মিনারুল। মান্নান বাড়িতে দর্জির কাজ করতেন।  মিনারুল দর্জির কাজ শেখার জন্য মান্নানের বাড়িতে যেতেন। এ যাতায়াতের ফলে হাফিজুরের প্রথম স্ত্রী সাবিনার সাথে মিনারুলের পরকীয়ার সম্পর্ক গড়ে ওঠে, যা শারীরিক সম্পর্কে গড়ায়। এ বিষয়টি একদিন হাফিজুর দেখে ফেলেন। ঘটনার দিন হাফিজুরের কাছে ক্ষমা চান মিনারুল। হাফিজুর বিষয়টি কাউকে বলেননি। তবে মনের দুঃখে স্ত্রী সাবিনাকে তালাক দেন। পরে ডলি নামে আরেকজনকে বিয়ে করে সংসার শুরু করেন। কিন্তু প্রথম স্ত্রীর কথা কখনো ভুলতে পারেননি। 

এরপর মিনারুল তার গ্রামের বিলকিস নামে আরও এক নারীর সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলেন। এ ঘটনায় দায়ের করা মামলায় মিনারুল কয়েক বছর হাজতবাসও করেন। এসব ঘটনায় হাফিজুরের আরও বেশি ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। তিনি তখন মিনারুলকে হত্যার পরিকল্পনা করেন। তিনি মিনারুলের সাথে সম্পর্ক গড়ে তোলে। ২০১৯ সালের ১৪ আগস্ট রাতে মিনারুলের বাড়ির পাশের একটি বাগানে ধারাল অস্ত্র রেখে আসেন হাফিজুর। পরে রাত ১০টার দিকে মিনারুলের বাড়ি যান। এ সময় মিনারুলকে ইশারায় ডেকে বাড়ির পাশে ওই বাগানে নিয়ে যান। এরপর ওই দা দিয়ে মিনারুলকে কুপিয়ে হত্যা করে চলে যান।

এ ঘটনায় মিনারুলের বড় ভাই আক্তারুজ্জামান বাদী হয়ে অজ্ঞাত আসামি করে কোতোয়ালি থানায় মামলা করেন। হত্যার ৯ দিনের মাথায় গ্রেপ্তার হন হাফিজুর। পরে আদালতে হত্যার কথা স্বীকার করে জবানবন্দি দেন। ওই বছরের ৭ ডিসেম্বর মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আদালতে চার্জশিট জমা দেন। ২৩ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে গতকাল বৃহস্পতিবার আসামির উপস্থিতিতে আদালত মামলার রায় ঘোষণা করেন।

© সমকাল ২০০৫ - ২০২২

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৭১৪০৮০৩৭৮ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com