রোহিঙ্গাকে ভোটার করার অভিযোগ

দুই ইউপি চেয়ারম্যানসহ আটজনের নামে মামলা

প্রকাশ: ১১ আগস্ট ২২ । ২৩:৪৪ | আপডেট: ১১ আগস্ট ২২ । ২৩:৪৪

লামা (বান্দরবান) প্রতিনিধি

বান্দরবানের আলীকদমে এক রোহিঙ্গাকে ভোটার করার অভিযোগে দুই ইউপি চেয়ারম্যানসহ আটজনের নামে মামলা হয়েছে। আসামিরা উপজেলায় ছবিযুক্ত ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রমে এক রোহিঙ্গাকে জন্মসনদ, মৃত্যুসনদ ও প্রত্যয়নপত্র দিয়েছেন বলে গতকাল বৃহস্পতিবার জানিয়েছেন উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম। এর আগে গত ৯ আগস্ট মামলা করেন তিনি।

আসামিরা হলেন- উপজেলার নয়াপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান মো. কফিলউদ্দিন ও সচিব আবু হানিফ রাজু এবং চৈঙ্গ্যং ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ফেরদৌসুর রহমান, সচিব মানিক বড়ূয়া, আহছাব উদ্দিন, আয়েশা বেগম, জামাল হোসেন ও ইউপি সদস্য আবদুল মান্নান।

মামলায় অভিযোগ করা হয়, আসামিরা পরস্পর যোগসাজশে প্রতারণার মাধ্যমে পরিচয় গোপন করে জন্মনিবন্ধন ও মৃত্যুসনদ তৈরি করে জাতীয় পরিচয়পত্র নিতে মিথ্যা তথ্য দিয়ে বিদেশি নাগরিককে ভোটার করেছেন, যা দণ্ডনীয় অপরাধ।

মামলার বাদী শফিকুল ইসলাম বলেন, ৯ আগস্ট বিকেলে উপজেলা পরিষদ সভাকক্ষে নয়াপাড়া ইউনিয়নের চার ওয়ার্ডের ভোটারদের সংগ্রহকৃত ২২৭টি নিবন্ধন ফরম, বিশেষ তথ্য ফরম ও সংযুক্ত কাগজপত্র বাছাই করে বিশেষ কমিটি। এতে এসব ত্রুটি ধরা পড়ে। এ সময় নিবন্ধন ফরম নম্বর ১০০৫৯৭০৬৬ পূরণকারী আহছাবকে রোহিঙ্গা নাগরিক শনাক্ত করা হয়। তার মা আয়েশা বেগম জীবিত থাকার পরও নয়াপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ থেকে ২০২২ সালের ২০ জুন মিথ্যা মৃতসনদ দেওয়া হয়। অপরদিকে চৈঙ্গ্যং ইউনিয়ন পরিষদ থেকে আহছাবের জন্য ২০১৯ সালের ১৮ মে জন্মসনদ ইস্যু করা হয়। তাঁরা এসব করেছেন রোহিঙ্গা নাগরিক আহছাবকে ভোটার তালিকাভুক্ত করতে।


জানা গেছে, চৈঙ্গ্যং ইউনিয়ন পরিষদের নিবন্ধন বই ১-এ আহছাবের পিতা জামাল হোসেন, মাতা আয়েশা বেগম নামে জন্মসনদ ২০০৭ সালের ২০ আগস্ট ইস্যু করা হয়। পুরাতন রেকর্ডের ওপর ভিত্তি করে আহছাবকে ২০১৯ সালের ১৮ মে অনলাইন জন্মসনদ ইস্যু করেন চৈঙ্গ্যং ইউনিয়ন পরিষদের সচিব মানিক বড়ূয়া ও তৎকালীন চেয়ারম্যান ফেরদৌসুর রহমান।


আহছাবকে গত বছরের ১৫ নভেম্বর জাতীয়তা সদনপত্র দেন নয়াপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ফোগ্য মার্মা। অপরদিকে নয়াপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের প্রত্যয়নপত্র রেজিস্টারে ২০২১-২২ সালের ৫৪ নম্বর স্মারকের একটি প্রত্যয়নপত্রে দেখা যায়, আহছাবের মা স্ট্রোক করে ২০০৫ সালের ৫ মার্চ মারা যান। এ প্রত্যয়নপত্রে স্বাক্ষর করেন তৎকালীন ইউপি চেয়ারম্যান ফোগ্য মার্মা।

© সমকাল ২০০৫ - ২০২২

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৭১৪০৮০৩৭৮ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com