'গায়েবি প্রকল্প' ধরতে ভিন্ন কৌশলে সরকার

প্রকাশ: ৩০ সেপ্টেম্বর ২২ । ০০:০০ | আপডেট: ৩০ সেপ্টেম্বর ২২ । ০১:৩২ | প্রিন্ট সংস্করণ

বাহরাম খান

উপজেলা থেকে ইউনিয়ন পর্যায়ে স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে সারা বছর বিভিন্ন ধরনের ছোট ছোট প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হয়। তবে অনেক প্রকল্পে কাজ না করেই টাকা গায়েবের অভিযোগ আছে। এসব প্রকল্পের কাগজপত্র ঠিক থাকলেও কাজের হদিস মেলে না। এ নিয়ে অডিট শুরু করতে যাচ্ছে স্থানীয় সরকার বিভাগ। একই সঙ্গে ইউনিয়ন পর্যায়ের সব কার্যক্রমের অডিট হবে। এ ক্ষেত্রে জেলা ও উপজেলা পর্যায় থেকে তদারকিতে সহযোগিতা করবেন যথাক্রমে স্থানীয় সরকারের উপপরিচালক (ডিডিএলজি) ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও)।

সম্প্রতি স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের ইউনিয়ন পরিষদ শাখা-২ থেকে সব জেলার ডিডিএলজি এবং ইউএনওদের কাছে পাঠানো চিঠিতে এমন বার্তা দেওয়া হয়েছে। চিঠিতে বলা হয়েছে, স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে বাস্তবায়নাধীন লোকাল গভর্ন্যান্স সাপোর্ট প্রজেক্টের (এলজিএসপি-৩) আওতায় দেশের সব ইউনিয়ন পরিষদের ২০২০-২০২১ অর্থবছরের কার্যক্রমের অডিট হবে। অডিট ফার্মগুলো অর্থবছরে ইউনিয়ন পরিষদের সব উৎস থেকে অর্থের প্রাপ্তি এবং ব্যয় সংবলিত বার্ষিক আর্থিক বিবরণী নিরীক্ষা করবে। প্রতিটি ইউনিয়নে তিন সদস্যবিশিষ্ট অডিট টিম চার দিন কাজ করবে। সব হিসাব সংশ্নিষ্ট রেজিস্টার, সম্পদ রেজিস্টার, এলজিএসপি-৩ প্রকল্পের আওতায় বাস্তবায়িত স্কিম, ১% ভূমি হস্তান্তর কর, নিজস্ব রাজস্ব ছাড়াও অন্যান্য তহবিল পরিচালিত স্কিম অডিটের আওতায় আসবে। একই সঙ্গে সংশ্নিষ্ট ওয়ার্ড কমিটি ও স্কিম বাস্তবায়ন কমিটির সদস্যদের উপস্থিতিতে বাস্তবায়িত স্কিম সরেজমিন পরিদর্শন করবে।

স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, ইউনিয়ন পর্যায়ে এবারের অডিট কার্যক্রম বিষয়ে সংশ্নিষ্ট সবাইকে সহযোগিতা করতে হবে। আইনে অডিট টিমের কার্যপরিধির বিষয়ে সুস্পষ্টভাবে বলা আছে। যেসব চেয়ারম্যান-মেম্বার এসব নিয়ম উপেক্ষা করতে চাইবেন তাঁদের কোনো ছাড় দেওয়া হবে না। এ বিষয়ে স্থানীয় সরকার ইউনিয়ন পরিষদ আইন-২০০৯ এর ৬০(১) ধারায় বলা হয়েছে, নিরীক্ষকরা তাঁদের কার্যক্রম পরিচালনার সুবিধার্থে সংশ্নিষ্ট যে কোনো ধরনের তথ্য চেয়ারম্যানদের কাছে চাইতে পারবেন। সংশ্নিষ্ট কাউকে উপস্থিত হওয়ার জন্য বলতে পারবেন। নিরীক্ষা শেষ হওয়া সংক্রান্ত প্রতিবেদনে নিরীক্ষকরা কী কী উল্লেখ করবেন আইনে তাও উল্লেখ করা হয়েছে। নিরীক্ষা প্রতিবেদনে তহবিল তছরুপের ঘটনা, পরিষদ তহবিলের ক্ষতি, অপচয় বা অপ্রয়োগের ঘটনা, হিসাবরক্ষণের ক্ষেত্রে অন্যান্য অনিয়ম ইত্যাদি। নিরীক্ষা প্রতিবেদন প্রস্তুতের পর একটি কপি নিরীক্ষা কর্তৃপক্ষ ইউনিয়ন পরিষদকে দেবে, একটি কপি সরকারের কাছে পাঠাবে।

স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো চিঠিতে বলা হয়েছে, ইউনিয়ন পরিষদে অডিট করার সময় ইউনিয়নের অর্থ ও ক্রয়-সংক্রান্ত স্থায়ী কমিটির সদস্যদের উপস্থিত থাকতে হবে। উপস্থিতির প্রমাণ হিসেবে অডিটররা সংশ্নিষ্ট দায়িত্বশীলদের স্বাক্ষর রাখবেন। ইউনিয়ন পরিষদ অডিট করার সময় উপজেলা পরিষদ থেকে ইউনিয়ন-সংশ্নিষ্ট টেস্ট রিলিফ (টিআর), কাজের বিনিময়ে খাদ্য (কাবিখা) এবং উন্নয়ন তহবিল সংক্রান্ত তথ্য সংগ্রহ ও পর্যবেক্ষণ করা হবে।

এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় সহযোগিতার জন্য ৪৯২টি উপজেলার ইউএনওকে বলা হয়েছে। অডিট টিমের কার্যক্রম শুরুর বিষয়েও কিছু নির্দেশনা স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় থেকে দেওয়া হয়েছে। বলা হয়েছে, অডিট টিম ইউনিয়ন পর্যায়ে অডিট কার্যক্রম শুরুর আগে জেলা পর্যায়ে স্থানীয় সরকারের উপপরিচালক ও উপজেলা পর্যায়ে ইউএনওদের সঙ্গে দুটি বৈঠক করবে। একইভাবে অডিট কার্যক্রম শেষ হলেও জেলা এবং উপজেলা পর্যায়ে 'সমাপ্তি বৈঠক' করে কাজ শেষ করবে। সমাপ্তি বৈঠকে ইউনিয়ন পর্যায়ের সংশ্নিষ্ট সবার উপস্থিতিতে অডিট-সংক্রান্ত বিষয় পর্যালোচনা করে কার্যবিবরণী প্রস্তুত করতে হবে। ইউএনও এ-সংক্রান্ত কার্যবিবরণীতে সই করবেন।











© সমকাল ২০০৫ - ২০২৩

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৭১৪০৮০৩৭৮ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com